নবীগঞ্জে সিএনজি ও মোটরসাইকেল সংঘর্ষে নিহত ২
প্রকাশ : ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১:৫৭
নবীগঞ্জে সিএনজি ও মোটরসাইকেল সংঘর্ষে নিহত ২
হবিগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার সাতাইয়াল গ্রামের নিকট সিএনজি ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে দুইজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো ৬ জন। আহতদের সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।


বুধবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইরেশ সরকার ও সোহেল মিয়ার মৃত্যু হয়।


নিহতরা হলেন- ইরেশ সরকার (৩০) নবীগঞ্জ উপজেলার স্বস্তিপুর গ্রামের বারিন্দ্র সরকারের ছেলে এবং সোহেল মিয়া (৩২) করগাও গ্রামের সুরুজ মিয়ার ছেলে।


স্থানীয় লোকজনের দাবি, হাইওয়ে পুলিশ মহাসড়কে চলাচলকারী সিএনজিটিকে ধাওয়া করে। এ সময় সিএনজি চালক পুলিশের কবল থেকে বাঁচার চেষ্টাকালে মোটরসাইকেলের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে গজনাইপুর ইউনিয়নের সাতাইহাল গ্রামে মহাসড়কের নিকটবর্তী মসজিদের সামনে এ ঘটনা ঘটে।


প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আউশকান্দি থেকে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহী সিএনজিটি মহাসড়ক দিয়ে অবৈধভাবে যাচ্ছিল। শেরপুর হাইওয়ে পুলিশের টহলরত একদল পুলিশ অবৈধভাবে মহাসড়কে চলাচলকারী সিনজিটিকে আটকাতে পিছু নেয়। সিএনজিটি গজনাইপুর ইউনিয়নের সাতাইহাল মসজিদের সামনে পৌঁছলে পিছন দিক থেকে হাইওয়ে পুলিশের গাড়িটি সামনে গিয়ে সিএনজিটিকে আটকানোর চেষ্টা করেন। এসময় সিএনজির সাথে সাতাইহাল ফুলতলী বাজার থেকে আসা একটি মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে সিএনজি ও মোটরসাইকেল ধুমড়ে মুচড়ে যায়।


দুর্ঘটনায় আহত মোটরসাইকেল আরোহীরা হলেন- উপজেলার গজনাইপুর ইউনিয়নের শতক গ্রামের জব্বার মিয়ার ছেলে ধান ব্যবসায়ী আজাদ মিয়া (৩০), করগাও গ্রামের সুরুজ মিয়ার ছেলে সুহেল মিয়া (৩২)। সিএনজি যাত্রীরা হলেন, নবীগঞ্জ উপজেলার স্বস্তিপুর গ্রামের বারিন্দ্র সরকারের ছেলে ইরেশ সরকার (৩০), একই গ্রামের দুর্গা সরকারের ছেলে কালিপদ সরকার (৪০), একই গ্রামের মৃত আলাউদ্দিন মিয়ার ছেলে সাইফুল ইসলাম (৩০), শিরিস চন্দ্র বিশ্বাসের ছেলে শান্ত বিশ্বাস (১০), সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর উপজেলার শশী চন্দ্র বিশ্বাসের ছেলে সেবক চন্দ্র বিশ্বাস (৩২), মৌলভীবাজারের শেরপুর এলাকার সরধন সরকারের ছেলে রগু সরকার (৪০)।


স্থানীয়দের সহযোগিতায় হাইওয়ে পুলিশের গাড়িতে করে আহতদের সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সিএনজি যাত্রী ইরেশ সরকার ও পরে মোটরসাইকেল যাত্রী সোহেল মিয়া মারা যান।


ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে উপস্থিত গজনাইপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড মেম্বার সৈয়দ মাহবুব আলী নূরুর সাথে রাত ১টার দিকে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি সোহেল মিয়া মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।


খবর পেয়ে (নবীগঞ্জ-বাহুবল) সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার পারভেজ আলম চৌধুরী, নবীগঞ্জ থানার ওসি এসএম আতাউর রহমান, গোপলার বাজার তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ কাওছার আলম ঘটনাস্থলে পৌঁছে গজনাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুলের সহযোগিতায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।


এ ব্যাপারে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার পারভেজ আলম চৌধুরীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, পুলিশের ধাওয়ায় দুর্ঘটনা ঘটেনি। সিএনজি ও মোটরসাইকেলের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। তখন হাইওয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে আহতদের উদ্ধার করে পুলিশের নিজ গাড়িতে করে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।


বিবার্তা/ছনি/জহির

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com