বরিশালে ইলিশের সরবরাহ থাকলেও দাম চড়া
প্রকাশ : ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১২:০৭
বরিশালে ইলিশের সরবরাহ থাকলেও দাম চড়া
এম. আরিফুল ইসলাম, বরিশাল
প্রিন্ট অ-অ+

প্রতিদিনই জেলেদের জালে ধরা পড়ছে রুপালী ইলিশ। যা বরিশালের চাহিদা পুরোপুরি মেটাতে না পারলেও বরিশালের বাইরের অন্য জেলার চাহিদা মিটিয়ে আসছে। এমনকি ভারতের বাজারেও পাওয়া যাচ্ছে এই রুপালী ইলিশ।


বাজার ঘুরে দেখা যায় চাহিদার তুলনায় সরবরাহ বেশি থাকলেও আড়ৎ মালিকরা বলছে সরবরাহ কম। ফলে আজ থেকে পুনরায় আরেক ধাপ বাড়বে ইলিশের দাম। অর্থাৎ বরিশালের মধ্যবিত্ত পরিবারে ইলিশ মাছ জোটা এখন ভাগ্যের ব্যাপার।


এদিকে আড়তের দ্বিগুন দামে ইলিশ বিক্রি করছে বাজারের খুচরা বিক্রেতারা। আর পাইকারি বিক্রেতারা বলছে, কোরবানির পরে বাজারে মাংসের চাহিদা কমে যাওয়ায় মাছের দাহিদা বেড়ে গেছে, ফলে দাম কিছুটা বেশি।


বরিশাল নগরীর প্রতিটি বাজারেই শুক্রবার মাছের দাম ছিলো চড়া। বাজার ঘুরে দেখা গেছে, যে মাছটি এলসি হিসেবে ধরা হয় তার দাম ধরা হয়েছে পাইকারি ৮৫০ টাকা। আর কেজির মাছ প্রায় ১৫‘শ টাকা করে। সেই হিসেবে বাজারে এই মাছগুলো বিক্রি হচ্ছে দ্বিগুন হারে। যেমন এলসি মাছ খুচড়া বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১৪‘শ টাকায় আর কেজির মাছ চোখে তেমন না পড়লেও সেগুলো বিক্রি হয়েছে ২৫‘শ টাকায়।


নগরীর পুরান বাজারে মাছের দাম গতকাল একটু বেশি গেলেও পোর্ট রোডের বাজারে তুলনায় ছিলো কম। আবার বাংলা বাজার, চৌমাথা বাজরে সন্ধ্যায় ইলিশের দাম ছিল অনেক বেশি। বাজারের এই তারতম্যর বিষয় জানতে চাইলে খুচরা ব্যাবসায়ী সজিব জানান, একেক ব্যবসায়ী একেক আড়ৎ থেকে একেক দামে মাছ কিনেছে। ফলে দামের পার্থক্য রয়েছে। আবার মাছের উপরও রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন দাম। সব মাছের স্বাদ বা দেখতে একই রকম না হওয়ার কারণে দামের ভিন্নতা রয়েছে।



আর পাইকারি বিক্রেতারা বলছে, খুচড়া বিক্রেতাদের কারসাজির কারণেই দামের পার্থক্য রয়েছে। কারণ হিসেবে বলছে কোরবানির মাংস সবার বাসাতেই রয়েছে। তাই এখন মাছের চাহিদার রয়েছে সবার বাসাতেই। আর মাছের মধ্যে ইলিশের প্রতি সবার আগ্রহটাই সবার আগে। এসব বিষয় মাথায় রেখে খুচড়া বিক্রেতারা দামটা বাড়িয়ে বিক্রি করছে যার প্রভাব পড়ছে ভোক্তাসাধারণদের উপর।


দাম বেশি নেয়ার কারণ জানতে চাইলে পুরান বাজারের তুহিন জানান, মাছ কেনার পরে বরফ কিনতে হয়, স্থান ভাড়া দিতে হয়। আবার এর মধ্যে কোনো মাছ নষ্ট হয়ে গেলে সেই মাছের দাম অন্য মাছের উপরে গিয়ে পড়ে।


এ ব্যাপারে বরিশাল মৎস মালিক সমিতির প্রচার সম্পাদক ইয়ার উদ্দিন শিকদারের বরাত দিয়ে তার ছেলে মুন্না শিকদার জানান, শুক্রবার মাছের দাম এলসি ৮৫০- ৯০০ টাকা হারে ছিলো। আর কেজির মাছ ছিলো ১৪০০- ১৫০০ টাকা করে। তবে শনিবার ইলিশের দাম আরো বাড়বে। কারণ সাগরে কোন মাছ ধরা পড়ছে না। যা ধরা পড়ছে নদীর মাছ। ফলে দামটা একটু বেশি দরেই বিক্রি হবে ও হচ্ছে।


তবে এ ব্যাপারে বরিশাল জেলা মৎস কর্মকর্তা (ইলিশ) বিমল চন্দ্র দাস বলেন, আবহাওয়ার কারণে ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরে বাজারে ইলিশের উৎপাদন কিছুটা কম। শুধু ইলিশ নয় সব মাছের উৎপাদনই কম।


বিবার্তা/আরিফুল/জাকিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com