গাছের নিচে সন্তান প্রসব: দু'টি তদন্ত কমিটি
প্রকাশ : ১৩ আগস্ট ২০১৮, ২১:১৫
গাছের নিচে সন্তান প্রসব: দু'টি তদন্ত কমিটি
দিনাজপুর প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সেবাবঞ্চিত প্রসূতি গাছের নিচে সন্তান প্রসবের ঘটনায় দু’টি তদন্ত কমিটি গঠিন করা হয়েছে। ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে ওই নারীকে হাসপাতালে এক রাত রেখেই ছাড়পত্র দিয়ে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।


এদিকে, অভিযুক্ত নার্সদের শাস্তির দাবিতে ঝাড়ু মিছিল ও বিক্ষোভ করেছে এলাকাবাসী। সোমবার সকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রংপুর বিভাগীয় পরিচালক ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।


ফুলবাড়ী উপজেলা সংলগ্ন পার্বতীপুর উপজেলার হামিদপুর ইউনিয়নের বাঁশপুকুর গ্রামের বাসিন্দা রিকশা চালক আবু তাহেরের স্ত্রীর রিনা বেগম (৩৩) প্রসব ব্যথা শুরু হলে গত রবিবার ভোরে ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেন। সেখানে কর্মরত নার্স ( সেবিকা) রোজিনা আক্তার ও আফরোজা খাতুন প্রসব ব্যথায় ছটফট করা আবু তাহেরের স্ত্রী রিনা বেগমকে ভর্তি না করে বেসরকারি ক্লিনিকে নিয়ে যেতে বলে। দ্বিতীয়তলা থেকে প্রসূতিকে নামিয়ে দেন তারা।


এরপর রোগীর প্রসব বেদনা আরো তীব্র হলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পাশের এক দোকানদারের মা এগিয়ে আসেন। তার সহযোগিতায় খোলা আকাশের নিচে কামরাঙ্গা গাছের নিচে ঘাসের ওপর জনসম্মুখে একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেন আবু তাহেরের স্ত্রী রিনা বেগম।


ঘটনাটি জানাজানি হলে তোলপাড় শুরু হয়। দিনাজপুর জেলা প্রশাসক এ নিয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। সহকারী কমিশনার (ভূমি) এনামুল হকের নেতৃত্বে তদন্ত কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. সঞ্জয় কুমার গুপ্ত ও উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ইসমাইল হোসেন।


অপরদিকে সিভিল সার্জন পৃথকভাবে গঠন করেন আরেকটি তদন্ত কমিটি। আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. সঞ্জয় কুমার গুপ্তর নেতৃত্বে তদন্ত কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- পরিবার পরিকল্পনা মেডিকেল অফিসার ডা. রইচ উদ্দিন ও মেডিকেল অফিসার ডা. মুহর্তেমা ফাতেমা।


তদন্ত প্রতিবেদন ৩ কার্য দিবসের মধ্যে জমা দেয়ার কথা বলা হয়েছে।


উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নুরুল ইসলাম জানান, প্রাথমিক তদন্তে অভিযুক্ত নার্সদের তিনটি অপরাধ চিহ্নিত করা হয়েছে। প্রথমত তারা প্রসূতি রোগীকে সতর্কতার সাথে সেবা দেয়নি। দ্বিতীয়ত রোগীর অবস্থা কী সে বিষয়ে কোনো চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করেনি। তৃতীয়ত চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ না করেই বেসরকারি হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দিয়েছে। যা চিকিৎসক ছাড়া তারা অন্য জায়গায় রোগীকে রেফার্ড করতে পারে না।



তিনি আরো জানান, তদন্ত কমিটির রিপোর্ট আসলেই অভিযুক্ত নার্সদের বিরুদ্ধে শাস্তিমুলক ব্যবস্থা নেয়া হবে।


এই বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুস সালাম চৌধুরীর বলেন, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। জেলা প্রশাসকের পরামর্শে সহকারী কমিশনার ভূমি এনামুল হককে আহবায়ক করে তিন সদস্যর একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন আসলে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


বিবার্তা/শাহী/কামরুল


<<স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জায়গা না পেয়ে ঘাসের ওপরেই সন্তান প্রসব!

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com