ছেলেকে হত্যার দায়ে বাবার মৃত্যুদণ্ড
প্রকাশ : ১৩ আগস্ট ২০১৮, ১৫:৫০
ছেলেকে হত্যার দায়ে বাবার মৃত্যুদণ্ড
ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

ঠাকুরগাঁওয়ে জমির দলিলে সাক্ষর না করায় ছেলে মনসুর আলীকে (১২) শ্বাসরোধ করে হত্যার দায়ে পিতা মুসা আলীর মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত।


সোমবার দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ বি এম তারিকুল কবীর এ রায় দেন। মুসা আলী সদর উপজেলার শুখানপুখুরী লাউথুতি গ্রামের মৃত জেল হকের ছেলে।


অভিযোগে জানা যায়, গত আঠারো বছর পূর্বে মুসা আলীর সাথে মঞ্জুরা বেগমের বিয়ে হয়। বিয়ের এক বছর পর তাদের একটি পুত্র সন্তানের জন্ম হয়। মুসার জুয়া খেলার নেশা থাকায় বিয়ের এক বছর পরেই সন্তান মনসুরকে রেখে স্ত্রী মঞ্জুরা বেগম তাকে তালাক দিয়ে অন্যত্র বিয়ে করেন। পরবর্তীতে শিশু মনসুর আলী সদর উপজেলা বড়বালিয়া বাগুলাডাঙ্গী গ্রামে তার নানা বাড়িতে বসবাস করে বড় হয়।


এরইমধ্যে মুসাও দ্বিতীয় বিয়ে করলে স্থানীয় চেয়ারম্যান ও অন্যান্যদের সমঝোতায় প্রথম স্ত্রীর সন্তান মনসুর আলীর নামে ভবিষ্যতের জন্য বিশ শতক আবাদি জমি রেজিস্ট্রি করে দেয় মুসা। এরইমধ্যে মুসা জুয়া খেলায় হেরে যাওয়ায় বন্দক হিসেবে উক্ত জমি অন্যান্য জুয়ারিদের কাছে বন্দক রাখে। পরবর্তীতে ২০১২ সালের ১২ অক্টোবর ছেলে মনসুরকে ঈদের কাপড় কিনে দেয়ার নাম করে তার নানা বাড়ি থেকে নিজ বাড়িতে নিয়ে আসে মুসা।


পরে ১৭ অক্টোবর রাতে ছেলে মনসুর আলীকে কাগজে সই দিতে বললে সে সই দিতে রাজি না হওয়ায় তার গলা চেপে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে মুসা। ঘটনা গোপন রাখতে পরে রাতেই মনসুরের লাশ বাড়ির পাশের একটি পুকুরে ফেলে রাখে মুসা। পরে মুসার ভাই ফজল হক ভোরে পুকুরের পানিতে লাশ ভাসতে দেখে চিৎকার করে ও স্থানীয়দের খবর দেয়।


এ ঘটনায় মুসার ভাই ফজল হক বাদি হয়ে সদর থানায় একটি হত্যা মামলা করলে পুলিশ মুসাকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে পাঠায় ও আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন। পরবর্তীতে আদালতে তার জবানবন্দী নেয়া হয়। তার বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৩০২ ধারার অভিযোগ প্রমাণ হওয়ায় তাকে দোষী সাব্যস্ত করে মৃত্যুদন্ডের আদেশ দেন আদালত।


বিবার্তা/বিধান/জহির

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com