দীর্ঘ ২ মাস বন্ধ মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত
প্রকাশ : ১৮ আগস্ট ২০১৭, ১৮:০২
দীর্ঘ ২ মাস বন্ধ মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত
মৌলভীবাজার প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

উপভোগ্য সৌন্দর্যের অধিকারী দেশের সর্ববৃহৎ জলপ্রপাত ‘মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত ও ইকোপার্ক’। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রতিদিন হাজার হাজার পর্যটক এসে ভিড় করতো এই সৌন্দর্যের আধার মাধবকুণ্ড জলপ্রপাতে। লোকে লোকরণ্য হয়ে থাকতো সর্বসাধারণের উপভোগ্য এলাকাটি।


পর্যটকদের পদচারণায় যে এলাকাটি প্রতিনিয়ত কানায় কানায় ভর্তি থাকতো সেই এলাকাটি গত ২ মাস থেকে নিস্তব্দ হয়ে পড়ে আছে। পাহাড়ি ঢল আর ভারি বর্ষণে অভ্যন্তরীণ রাস্তায় ফাটল ও ধস দেখা দিলে গত ২১ জুন থেকে বনবিভাগ এ পর্যটন কেন্দ্রটির প্রধান ফটক বন্ধ করে দেয়।


কর্তৃপক্ষের নিষেধাজ্ঞা জারির কারণে নানা প্রতিকুলতা অতিক্রম করে দুর দুরান্ত থেকে পর্যটক মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত এলাকায় পৌঁছেও জলপ্রপাত না দেখেই ফিরে যেতে বাধ্য হচ্ছেন। ঈদুল ফিতরে মাধবকুণ্ডের অপরুপ সৌন্দর্য উপভোগ করা থেকে বঞ্চিত হন প্রকৃতিপ্রেমিরা।


বিভাগীয় বন কর্মকর্তা এসএম মনিরুল হক ১০ আগস্ট ইকোপার্কের প্রধান ফটক উন্মুক্ত করার আশ্বাস দিলে পর্যটন সংশ্লিষ্টদের মাঝে স্বস্তি দেখা দেয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সে আশ্বাস অবাস্তবায়িত থাকায় হতাশা ও ক্ষোভ বিরাজ করছে সংশ্লিষ্টদের মাঝে।


ব্যবসায়ী ও পর্যটকদের অভিযোগ বন বিভাগের উদাসীনতায় মুলত দীর্ঘ দুই মাসে ও অধিক সময় অভ্যন্তরীণ রাস্তার মেরামত কাজ সম্পন্ন হচ্ছে না। সঠিক উদ্যোগ ও সমন্বয়হীনতার কারণে মুলত দেশের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্রটির নাম আজ ভুলতে বসেছে দেশের মানুষ।


স্থানীয় ব্যবসায়ী এনাম উদ্দিন, আব্দুল হান্নান, ইমরান আহমদসহ হেলাল উদ্দিন অনেকটা ক্ষোভের কণ্ঠে বিবার্তাকে জানান, রাস্তায় সামান্য ফাটল ও ধসের কারণে ইকোপার্কের গেট বন্ধ করে দেয়ার যুক্তিটা তাদের বোধগম্য নয়। এর আগে ও যখন রাস্থাঘাট পাকা ছিল না, এর চেয়ে অনেক খারাপ অবস্থায় ছিল তখন অনেক মানুষ মাধবকুণ্ডে যাতায়াত করেছে। তবে কেন এখন এমনটি হচ্ছে এমন প্রশ্ন উত্থাপন করেন তারা।


স্থানীয় আদিবাসি গ্রাম প্রধান ওয়ানবর এল গিরি বিবার্তাকে জানান, বিভাগীয় বন কর্মকর্তা এসএম মনিরুল হক ১০ আগস্ট ইকোপার্কের গেট খোলার আশ্বাস দিলেও তা খুলে দেয়া হয়নি।


সহকারী রেঞ্জ কর্মকর্তা শেখর রঞ্জন দাস বিবার্তাকে জানান, গত ২১ জুন বিভাগীয় বন কর্মকর্তার আদেশে রাস্তার মেরামত কাজ ও অনাকাঙ্খিত দুর্ঘটনা এড়াতে ইকোপার্কের প্রধান ফটক বন্ধ রাখা হয়। ১০ আগস্ট বিভাগীয় বন কর্মকর্তা খুলে দেয়ার আশ্বাস দিলেও সংস্কার কাজ সম্পন্ন না হওয়ায় তা খুলে দেওয়া সম্ভব হয়নি। তবে আগামী ঈদুল আজহার আগে মাধবকুণ্ড ইকোপার্ক পর্যটকদের জন্য খুলে দেয়ার চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি।


উল্লেখ্য যে, গত জুন মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহের ভারি বর্ষণ আর পাহাড়ি ঢলে মাধবকুন্ড জলপ্রপাতের অভ্যন্তরীণ রাস্তায় ফাটলসহ যাতায়াতের সিড়ির নিচের কিছু মাটি দেবে যাওয়ায় রাস্তাটি ঝুঁকিপুর্ণ হয়ে উঠে। তাই অনাকাঙ্খিত দুর্ঘটনা এড়াতে স্থানীয় প্রশাসন গত ২১ জুন থেকে মাধবকুন্ডের অভ্যন্তরে পর্যটক প্রবেশ বন্ধ করে দেয়।



বিবার্তা/আরিফ/আমিরুল

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com