খুলনায় নৌধর্মঘটে দিনে ক্ষতি ২৫ কোটি টাকা
প্রকাশ : ২৭ আগস্ট ২০১৬, ১২:৫৩
খুলনায় নৌধর্মঘটে দিনে ক্ষতি ২৫ কোটি টাকা
নিপা মোনালিসা, খুলনা
প্রিন্ট অ-অ+

দেশব্যাপী চলছে অনির্দিষ্টকালের নৌযান ধর্মঘট। ধর্মঘটের পঞ্চম দিনে সারাদেশের ন্যায় খুলনা অঞ্চলেও বন্ধ রয়েছে নৌযান চলাচল। বন্ধ রয়েছে খুলনা নদী বন্দর ও মংলা সমুদ্র বন্দরের পণ্য ওঠা-নামার কাজ। এদিকে এসব কার্যক্রম বন্ধ থাকায় এ অঞ্চলে দিনে প্রায় ২৫ কোটি টাকার ক্ষতি হচ্ছে। যশোর থেকে মংলা পর্যন্ত প্রায় ৪ হাজার নৌযান নোঙ্গর ফেলে অবস্থান করছে। অলস সময় কাটাচ্ছেন এ এলাকার প্রায় তিন হাজার শ্রমিক।



সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, ধর্মঘটের প্রভাবে খুলনার রূপসা, নতুন বাজার, যশোরের নওয়াপাড়াসহ বিভিন্ন স্থানে প্রায় ৪ হাজার ছোট বড় নৌযানে পণ্য ওঠা নামার কাজ বন্ধ রয়েছে। মংলা বন্দরে কয়লা, ক্লিংকার, বোল্ডার স্টোন, সার, গম, পদ্মা-সেতুর জন্য যন্ত্রপাতিসহ সর্বমোট ১৩ টি জাহাজ অবস্থান করছে। ধর্মঘটের কারণে এসব জাহাজ থেকে মালামাল খালাস করা সম্ভব হচ্ছে না। ধর্মঘট দীর্ঘস্থায়ী হলে ক্লিংকারের অভাবে যেকোনো সময় সিমেন্ট ফ্যাক্টরিগুলোর কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যেতে পারে। পাথরসহ নির্মাণ সামগ্রীর অভাবে নির্মাণ কাজও বন্ধ হওয়ার পথে। ফলে লোকসান গুণতে হচ্ছে আমদানীকারক, শিপিং, এজেন্ট ও স্টিভেডর ব্যবসায়ীদের। গত কয়েক দিনে খুলনার বিআইডব্লিউটিএ ৪, ৫, ৬ ও ৭ নম্বর ঘাট এবং রুজভেল্ট জেটিতে অবস্থানরত কোনো নৌযান থেকে পণ্য খালাস করা হয়নি। এছাড়া খুলনা লঞ্চঘাট থেকেও কোনো নৌযান ছেড়ে যায়নি বা আসেনি। মংলা বন্দর থেকে যশোরের নওয়াপাড়া পর্যন্ত কোথাও কোনো নৌযান চলছে না।



খুলনা বিভাগীয় অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন মালিক গ্রুপ ও মংলা বন্দর ব্যবহারকারী সমন্বয় কমিটির মহাসচিব অ্যাডভোকেট মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, ধর্মঘটে নৌযান মালিকরা ভীষণ ক্ষতির শিকার হচ্ছেন। একদিন বন্দরের কার্যক্রম বন্ধ থাকলে দিনে প্রায় ২৫ কোটি টাকার ক্ষতি হয়।



খুলনা চেম্বার অব কমার্সের সদস্য মংলা বন্দর ব্যবহারকারী এইচ এম দুলাল জানান, বন্দরের ১৩টি জাহাজের জন্য জরিমানাসহ অন্যান্য খরচ হিসেবে প্রতিদিন প্রায় ২ থেকে ৪ কোটি টাকা ক্ষতি হবে। টার্ম এ্যারাউন্ড টাইমের চুক্তি অনুযায়ী জাহাজের পণ্য খালাসে সময় বেশী লাগলে বন্দরের সুনাম ক্ষুন্ন হয়।



বাংলাদেশ নৌযান শ্রমিক ফেডারেশন খুলনা জেলার সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন জানান, কেন্দ্রের ডাকা ধর্মঘট খুলনা ও মংলায় সর্বাত্মকভাবে পালিত হচ্ছে। বেতন ভাতা বাড়ানোসহ ১৫ দফা দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে।



বিবার্তা/নিপা/নাজিম

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com