মধুপুরের নির্জন সড়কে বারবার ঘটছে চাঞ্চল্যকর হত্যা, ধর্ষণ ও ডাকাতি
প্রকাশ : ০৫ আগস্ট ২০২২, ২১:২৪
মধুপুরের নির্জন সড়কে বারবার ঘটছে চাঞ্চল্যকর হত্যা, ধর্ষণ ও ডাকাতি
মোল্লা তোফাজ্জল
প্রিন্ট অ-অ+

টাঙ্গাইলের মধুপুরের বনাঞ্চল এলাকার নির্জন সড়ককে নিরাপদ স্থান হিসেবে বেঁছে নিয়েছে দৃষ্কৃতিকারীরা। অপরাধ করে এ এলাকায় পালিয়ে যাওয়ার সহজ সুযোগ থাকায় বারবার ঘটছে লোমহর্ষক হত্যা, ডাকাতি ও ধর্ষনের মতো ঘটনা।


বাসের যাত্রী এবং স্থানীয়রা রাতে চলাচল করতে অনেক সময় নিরাপত্তাহীনতায় ভুগেন। হত্যা মামলার বিচার প্রাপ্তি নিয়েও সংশয় প্রকাশ করেছেন বাদীরা। সুশীল সমাজ মনে করছে মহাসড়কে পুলিশী টহল জোরদার থাকলে হয়তো বাস কেন্দ্রিক ঘটনাগুলো রোধ করা যেত।


পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায় বাসে ডাকাতি, ধর্ষণ ও হত্যার তিনটি ঘটনা সারাদেশে ব্যাপক আলোচনায় আসছে। এছাড়া বনের মধ্যে স্কুলের প্রধান শিক্ষিকাকে হত্যা করে ডাকাতরা। এছাড়া ছোটখাটো দুর্ঘটনা প্রায়ই ঘটে। ২০০৯ সালের ২৬ জানুযারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা বাসন্তী মাংসাং বনাঞ্চলের জলছত্র থেকে টেলকি যাচ্ছিলেন। তার সাথে স্কুলের শিশুদের টাকা ছিল। পথে ডাকাতদল বাসন্তীকে কুপিয়ে হত্যা করে টাকা নিয়ে যায়। পরে বাসন্তীর স্বামী যতীশ নকরেক বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন।


তিনি বলেন, মামলা এখনো চলমান আছে। আসামীরা জামিনে বের হয়ে গেছে। আমি আদালতে নিয়মিত হাজিরা দিলেও ওরা আসে না। বিচার প্রাপ্তি নিয়ে আমি সন্দিহান। এ ডাকাতদের যথাযথ বিচার চাই।


২০১৬ সালের ১ এপ্রিল এক গার্মেন্টস কর্মী টাঙ্গাইলের ধনবাড়ি বাসস্ট্যান্ড থেকে ভোর পাঁচটার দিকে ‘বিনিময় পরিবহনের’ একটি বাসে কালিয়াকৈরের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। এসময় বাসে যাত্রী না থাকার সুযোগে বাসটি কিছুদূর যাওয়ার পর হেলপার বাসের জানালা দরজা বন্ধ করে দেয়। পরে গাড়ির চালক হাবিবুর রহমান নয়ন তাকে পেছনের সিটে নিয়ে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে। পালাক্রমে বাসের কন্টাকটার- হেলপাররাও ধর্ষণ করে। পরে বাসটি ঢাকা না গিয়ে টাঙ্গাইল ময়মনসিংহ রোডের একটি ফাঁকা জায়গায় ওই গৃহবধূকে নামিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। গৃহবধূর স্বামী বাদী হয়ে টাঙ্গাইল মডেল থানায় ৯ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করে। পরে পুলিশ তদন্ত শেষে চারজনকে আসামি করে চার্জশিট দিয়ে ছয়জনকে অব্যাহতি প্রদান করে।


নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল আদালতের তৎকালীন বিশেষ পিপি নাসমিুল আক্তার বলেন, ২০১৯ সালের ২২ মে এ মামলার রায়ে ৪ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং প্রত্যককে ১ লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়। পরে আসামীরা উচ্চ আদালতে আপিল করেন।


২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট বগুড়া থেকে ময়মনসিংহ যাওয়ার পথে সিরাজগঞ্জের জাকিয়া সুলতানা রুপাকে চলন্ত বাসে পরিবহন শ্রমিকরা ধর্ষণ করে। পরে তাকে হত্যা করে টাঙ্গাইলের মধুপুর বন এলাকায় ফেলে রেখে যায়। পুলিশ ওই রাতেই তার লাশ উদ্ধার করে। ময়নাতদন্ত শেষে পরদিন বেওয়ারিশ লাশ হিসেবে টাঙ্গাইল কেন্দ্রীয় গোরস্থানে দাফন করা হয়।


২০১৮ সালে গণধর্ষণ ও হত্যা মামলায় ৪ আসামির মৃত্যুদণ্ড এবং একজনের সাত বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। জব্দকৃত ছোঁয়া পরিবহনের বাসটি রূপার পরিবারকে হস্তান্তর করার নির্দেশ দেন আদালত। রুপার ভাই হাফিজুর রহামন বলেন মামলাটি উচ্চ আদালতে বিচারাধীন আছে। চাঞ্চল্যকর এ মামলার রায় কার্যকর কবে হবে সেটা নিয়ে আমরা সংশয়ে আছি।


সর্বশেষ কুষ্টিয়া থেকে ছেড়ে আসা ঈগল পরিবহনের বাসটি বুধবার (৩ আগস্ট) ভোরে টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ সড়কের মধুপুর উপজেলার রক্তিপাড়া জামে মসজিদের পাশে বালির স্তুপে উল্টিয়ে দিয়ে ডাকাত দল পালিয়ে যায়। এঘটনায় এক যাত্রী বাদী হয়ে মামলা করেছেন। এসময় এক নারীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করা হয়। ধর্ষণের শিকার এক নারীকে শারীরিক পরীক্ষার জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধর্ষনের আলামত পাওয়া গেছে এবং তিনি আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। ‘বাসটিতে ২৪-২৫জন যাত্রী ছিল। এর মধ্যে ৬-৭জন নারী যাত্রী ছিল। বাসের সবাইকে জিম্মি করে টাকা, স্বর্ণ ও মোবাইল সব কিছু লুট করে নেয় ডাকাতরা। রাত দেড়টা থেকে রাত সাড়ে ৩ টা পর্যন্ত বাসটি ডাকাত দলের নিয়ন্ত্রণে ছিল।


এ ঘটনার প্রধান আসামী রাজা মিয়াকে বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) ভোরে শহরের নতুন বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সে কালিহাতী উপজেলার বল্লার হারুন অর রশিদের ছেলে। পালাক্রমে যৌন নিগ্রহের ঘটনায় আরও দুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ নিয়ে চাঞ্চল্যকর ওই ঘটনায় মোট তিনজন গ্রেফতার হল।


শুক্রবার (৫ আগস্ট) পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে দুজনকে গ্রেফতারের তথ্য প্রকাশ করেন, টাঙ্গাইল জেলা পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার। গ্রেফতারকৃত দুজন হচ্ছেন-গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার কাঞ্চনপুর গ্রামের শুকুর আলীর ছেলে মো. আব্দুল আউয়াল (৩০) ও কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার ধোনার চর পশ্চিমপাড়া গ্রামের বাহেজের ছেলে নুরুন্নবী(২৬)। গ্রেফতারকৃত দুজনই মাদকাসক্ত।


চাঞ্চল্যকর এ ঘটনার পরপরই গ্রেফতারকৃত রাজা মিয়ার ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করে আদালতে পাঠায় পুলিশ। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় টাঙ্গাইলের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মধুপুর আমলী আদালতের বিচারক বাদল কুমার চন্দ পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এরপর থেকেই তাকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে পুলিশ। তার কাছ থেকে বাস ডাকাত চক্রের সম্পর্কে তথ্য নেয়া হচ্ছে।


মধুপুরের জয়েনশাহী আদিবাসী উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি ইউজিন নকরেক বলেন, এ বনাঞ্চল এলাকার নির্জন স্থানে ধর্ষণসহ প্রায়ই ছোটখাটো অপরাধ হয়ে থাকে। কিছু ঘটনা জানাজানি হয়, আবার অনেক ঘটনাই ধামাচাপা পড়ে যায়।


মধুপুর ডিগ্রি কলেজের প্রাক্তন শিক্ষক এবং সিনিয়র সাংবাদিক জয়নাল আবেদীন বলেন, মধুপুরের নির্জন এলাকা অপরাধীরা নিরাপদ বোধ করে। তাই বাস কেন্দ্রীক ডাকাতি, হত্যা এবং ধর্ষণ এ এলাকায় বারবার ঘটছে। যা অত্যন্ত দুঃখজনক ও নিন্দার। সড়কের জলছত্র থেকে রসুলপর পর্যন্ত আগে প্রায়ই প্রান্তিক পরিবহনে ডাকাতি হতো । তখন পুলিশ যাত্রীদের একত্রিত করে স্কট দিয়ে অনিরাপদ সড়কটুকু পার করে দিতো। এখন আর সে ব্যবস্থা নেই। ফলে রাতে চলাচলকারী যাত্রীরা অনেক সময় নিরাপত্তাহীনতায় ভুগেন। টাঙ্গাইল ময়মনসিংহ সড়কের বিশেষ করে মধুপুর এরিযায় সন্ধ্যা থেকে ভোর পর্যন্ত যদি জোরদার পুলিশি টহল থাকতো তাহলে এ অপরাধগুলো রোধ করা যেত।


টাঙ্গাইল জেলা মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আতাউর রহমান আজাদ বলেন, ডাকাতদল ও অপরাধীরা মধুপুরের নির্জনস্থানে নিয়মিত ঘটনা ঘটাচ্ছে। এ সড়কে মানুষের যানমাল হুমকিরমুখে পড়ে। আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীকে আরো তৎপর হতে হবে। অপরাধী বাস চালক হেলপারদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত হলেই বাসের এ ধরনের ঘটনা কমে যাবে।


মধুপুর থানার ওসি মোহাম্মদ মাজহারুল আমিন বলেন, বাসে ডাকাতির ঘটনায় অনেক সময় চালক হেলপারদের সাথে ডাকাত দলের সদস্যদের যোগসাজস থাকে বলে আমরা শুনি। কিন্তু ঈগল বাসের এ ঘটনার সাথে এখন পর্যন্ত সে ধরনের যোগসাজস পাওয়া যায় নি। তবুও আমরা তদন্ত করে দেখবো। মানুষের নিরাপত্তার জন্য এ সড়কে পুলিশি টহল ব্যবস্থা জোরদার করা হবে।


বিবার্তা/তোফাজ্জল/এমএইচ

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com