ভাল কাজের জন্য সহকর্মীদের বখশিশ !
প্রকাশ : ০৯ মে ২০১৯, ১২:২২
ভাল কাজের জন্য সহকর্মীদের বখশিশ !
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

যুক্তরাজ্যে বসবাসকারী এবং সেখানকার একটি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত বেকি থর্নটন বলেন, অফিসে কেউ যদি সত্যিই ভাল কিছু করে থাকে তাহলে আমরা তাকে সাধারণত দুই থেকে পাঁচ পাউন্ড কিংবা তারও কিছু বেশি বখশিশ দিয়ে থাকি।


তিনি মনে করেন, আপনি যদি কারও কাজ সত্যিই পছন্দ করে থাকেন তাহলে সেটা প্রকাশের স্পষ্ট উপায় হতে পারে এই বখশিশ দেয়া।


যুক্তরাজ্যের কর্মক্ষেত্রে ভাল কাজের পুরস্কার হিসেবে এখন অনেক বস বা অফিস প্রধান এই টিপস বা বখশিশ দেয়ার প্রচলন শুরু করেছেন। তারা এর নাম দিয়েছেন ‘মাইক্রো বোনাস’।


আর এই কারণে এ ধরনের ব্রিটিশ প্রতিষ্ঠানগুলোতে ইতিবাচক পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। মূলত যেসব প্রতিষ্ঠানে ভাল কাজের জন্য কর্মীদের অল্প পরিমাণে হলেও টিপস দেয়ার মতো ক্ষমতা ও বাজেট রয়েছে সেখানেই প্রবৃদ্ধি চোখে পড়েছে।


এই পরিকল্পনার পেছনে জড়িত প্রধান দুটি প্রতিষ্ঠান সম্প্রতি বিবিসি রেডিও ফাইভের সরাসরি সম্প্রচারিত ‘ওয়েক আপ টু মানি' নামের একটি অনুষ্ঠানে আসে।


সেখানে প্রতিষ্ঠান দুটোর কর্ণধাররা জানিয়েছেন, কর্মীদের ছোট ছোট নগদ পুরষ্কার প্রদানের ক্ষমতা দেয়ার কারণে যুক্তরাজ্যের ব্যবসায় বড় ধরণের প্রবৃদ্ধি দেখা গেছে।


যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক ফার্ম বোনাসলি বলেছে, গত ১২ মাসে ব্রিটেনের গ্রাহকদের মধ্যে তাদের স্কিম ৭৫% বেড়ে গেছে। যার মানে হল, এখন ২৫০টি যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংস্থা তাদের স্কিম ব্যবহার করছে এবং এর অন্যতম কারণ ১০ হাজারের মতো কর্মচারীকে তারা পুরস্কৃত করেছে।


রিওয়ার্ড গেটওয়ে নামে আরেকটি প্রতিষ্ঠান রেডিও ফাইভকে জানিয়েছে, সহকর্মীদের অল্প পরিমাণে নগদ অর্থ প্রদানের ক্ষমতা দেয়ার পর যুক্তরাজ্যে ব্যবসার পরিমাণ ১০০% বৃদ্ধি পেয়েছে।


বেকি থ্রনটন বলেন, প্রতিক্রিয়া জানানোর জন্য এটি একটি দুর্দান্ত উপায়, কারো কাজের প্রশংসা করার জন্য একে সবচেয়ে ইতিবাচক উপায় বলে মনে হয়।


তিনি বলেন, আমি আমার টিপসের অর্থ জমাতে থাকি। যখন সেটা ১০০ পাউন্ড ছাড়িয়ে যায়, তখন সেই অর্থ তুলে আমি নিজেকে খুশি করতে কিছু একটা করি।


বোনাসলির সহ-প্রতিষ্ঠাতা রাফায়েল ক্রাউফোর্ড-মার্কস বলেন, এই উপহারের উদ্দেশ্য হল, কর্মীরা যেন সময়মত ভাল কাজের অর্থপূর্ণ স্বীকৃতি পায়।


তিনি এটাকে শুধুমাত্র টিপিং বা বখশিশ প্রদান হিসেবে দেখতে পছন্দ করেন না। তিনি বরং মনে করেন যুক্তরাষ্ট্রে এই বখশিশের একটি ভিন্ন অর্থ আছে, যেখানে টিপস অনেকের মাসিক বেতনের একটি বড় অংশ গঠনে ভূমিকা রাখে।


তিনি বলেন, কর্মচারীদের মধ্যে ভাল অভ্যাস গড়ে তুলতে এবং অন্যের কাজের স্বীকৃতি দিতে এই পুরস্কার সাহায্য করে। যখন প্রত্যেক কর্মচারীর কাছে অর্থ থাকে তখন তারা এটি সহকর্মীদের মধ্যে বিলিয়ে দিতে চান। যেটা কিনা অন্যদেরও কাজে গতি ফেরাতে উৎসাহ যোগায়।


কিন্তু যারা এই অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে গেছেন তারা সবাই যে একে সমর্থন করছেন সেটা বলা যাবে না।


ভিক্টোরিয়া ডেভিস এমন একটি সংস্থায় কাজ করতেন যেখানে এই পদ্ধতিতে বোনাস পরিচালনা করতে হতো। কিন্তু দিনশেষ সবকিছুর হিসেব রাখা তার জন্য অনেক কঠিন হয়ে পড়ত।


তিনি বলেন, যদি আপনি এমন ব্যক্তি হন যিনি অন্য অনেকের চাইতে বেশি পারদর্শী, সেইসঙ্গে আপনি এই কাজটি শুধুমাত্র টিপস পাওয়ার জন্য করতে চান না, সেক্ষেত্রে এই টিপস আমার কাছে অপব্যবহারের সুযোগ সৃষ্টির মতো। এটা বাড়তি চাপ তৈরির ব্যাপার বলে মনে হয়।


ভিক্টোরিয়া বলেন, অনেকটা স্কুলের জনপ্রিয়তা যাচাইয়ের প্রতিযোগিতার মতো। ওই কমিউনিটির মধ্যে আমি ঘেঁষতে চাই না। ঠিক যেমন আমি এই টিপস দলের অংশ হতে চাই না। এটি আমার কাছে বাড়তি চাপ ছাড়া আর কিছুই না। যেটা আমার প্রয়োজন নেই।


বখশিশের অর্থের পরিমাণকত হবে এবং কিভাবে এই পুরষ্কারটি দেয়া হবে- সেটা নির্ভর করে নিয়োগকর্তার ওপর।


মিটার স্বেকির নামে এক প্রতিষ্ঠানের নিয়োগকর্তা ১৫ পাউন্ড বরাদ্দ রাখেন শুধুমাত্র তার সহকর্মীদের টিপস দেয়ার জন্য। এভাবে বছর শেষে একজন ১০০ পাউন্ডও উত্তোলন করেছেন। সূত্র: বিবিসি


বিবার্তা/জাকিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com