নিজেকে হত্যা করিয়ে ডিজিটালি বাঁচতে চান এই ধনপতি
প্রকাশ : ১৬ মার্চ ২০১৮, ১৮:৩৭
নিজেকে হত্যা করিয়ে ডিজিটালি বাঁচতে চান এই ধনপতি
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

মরিতে চাহিনা আমি সুন্দর ভুবনে, মানবের মাঝে আমি বাঁচিবারে চাই। এটি ছিল বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘প্রাণ’ কবিতার প্রথম দুটি লাইন। মানুষ পৃথিবীতে দীর্ঘজীবন লাভ করার ইচ্ছা পোষণ করলেও সবার ভাগ্যে কী আর দীর্ঘজীবন লাভ সম্ভব হয়। তাই অনেকে দীর্ঘজীবন লাভের বিকল্প পথের সন্ধান করেন ।


তেমনই দীর্ঘজীবন লাভের আশায় যুক্তরাষ্ট্রের এক ধনপতি (হাজার কোটি টাকার মালিক) নিজেকে হত্যার জন্য এক কোম্পানিকে ১০ হাজার ডলার দিয়ে অগ্রিম ভাড়া করে রেখেছেন। তার নাম স্যাম অল্টম্যান। ৩২ বছর বয়সী সিলিকনভ্যালির এই প্রযুক্তি ব্যবসায়ী ‘নেকটোমি’ নামে এক কোম্পানিকে নিজের মস্তিষ্ক সংরক্ষণের জন্য বুকিং দিয়েছেন।


স্যাম অল্টম্যান চান তার মৃত্যুর আগেই মস্তিষ্ক সংরক্ষণ করে বোতলে রাখা হোক। পরে মস্তিষ্কের সব অংশ স্ক্যান করে তা কম্পিউটারে আপলোড করা হোক। এরপর সিমুলেশন ব্যবহার করে সেই মস্তিষ্ককে জাগিয়ে তোলা হবে। তিনি এই পৃথিবীতে ডিজিটাল পদ্ধতিতে বেঁচে থাকতে চান। এমআইটি টেকনোলজি রিভিউতে তিনি এসব কথা বলেন।


নেকটোমি কোম্পানিতে এভাবে বেঁচে থাকার জন্য আরো ২৪ জন নাম লিখিয়েছেন। কোম্পানিতে এমন প্রস্তাব নতুন নয়। জীবিত থাকতেই ব্যক্তিকে এ কাজ করতে হবে বলে তারা জানিয়েছে। তবে তারা এখনো এ কাজটি করার অনুমতি পায়নি। তবে যেদিন এটি করার আইনি অনুমতি পাবে সেদিন তারা এ কাজ করবে।


নেকটোমি এখন রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে মৃতদেহকে সংরক্ষণ করার কাজ করছে। হাজার বছর এসব দেহকে বাঁচিয়ে রাখা যাবে বলে তাদের দাবি। এসব করার উদ্দেশ্য একটাই, ভবিষ্যতে যাতে বিজ্ঞানীরা এসব মরদেহকে কম্পিউটার সিমুলেশনের মাধ্যমে পুনরুজ্জীবিত করতে পারে।


খোঁজ নিয়ে জানা যায় নেকটোমি চিকিৎসকের সহায়তায় তাদের ক্লায়েন্টদের আত্মহত্যা করার সুযোগ দেবে। তবে তারা মৃত দেহের টিস্যু থেকে অতীত স্মৃতি তুলে আনতে পারবে এমন কোনো প্রমাণ দেখাতে পারেনি। ইতিমধ্যে তারা এমন গ্রাহকদের তালিকা তৈরির কাজ শুরু করেছে যারা ডিজিটালি বাঁচতে চান। যেদিন এই পুরো প্রক্রিয়াটি আইনি ভিত্তি পাবে, সেদিন এসব কাজ শুরু করা হবে। নেকটোমির সহ প্রতিষ্ঠাতা রবার্ট মসিন্টিরে এসব কথা বলেন। তাছাড়া চিকিৎসকের সহায়তায় আত্মহত্যা যুক্তরাষ্ট্রের পাঁচটি অঙ্গরাজ্যে বৈধ। তাই নেকটোমি তাদের কাজের বৈধতা পেতে বেশি সময় নেবে না বলেও আশা ওই কর্মকর্তার।



যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক আরেকটি কোম্পানি মরদেহকে তরল নাইট্রোজেন দিয়ে সংরক্ষণ করছে। তাদের আশা ভবিষ্যতে বিজ্ঞান এতটাই আধুনিক হবে যে মেডিসিন বা প্রযুক্তি দিয়ে মৃতের মধ্যে প্রাণ সঞ্চার করা যাবে। তাই তারা মরদেহকে তরল নাইট্রোজেনে সজীব করে রাখছে। সূত্র : দ্যা মিরর অনলাইন


বিবার্তা/সুমন/সোহান

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com