ক্লাসে শিক্ষার্থীর বদলে ছাগল!
প্রকাশ : ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৪:২৩
ক্লাসে শিক্ষার্থীর বদলে ছাগল!
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

রাজ্যের স্কুলগুলোর অবস্থা জানতে কোনও আগাম বার্তা না দিয়েই সেগুলো পরিদর্শনে গিয়েছিলেন মণিপুরের শিক্ষামন্ত্রী টি রাধেশ্যাম।


শিক্ষামন্ত্রী মায়াং ইম্ফল এবং ওয়াবাগাই বিধানসভা ক্ষেত্রের কয়েকটি স্কুলে অভিযানের মাধ্যমে সফর শুরু করেছিলেন। এই হঠাৎঅভিযানে যে তিক্ত অভিজ্ঞতা হয়েছে, তাতে বেজায় চটেছেন মন্ত্রী!


মন্ত্রী দেখলেন, কোথাও স্কুল খোলা কিন্তু শিক্ষক নেই। কোথাও আবার শিক্ষক রয়েছেন তো ছাত্র নেই! তবে মন্ত্রীর জন্য আরও চমক অপেক্ষা করছিল পশ্চিম ইম্ফলের একটি স্কুলে।


সেখানকার খেলাকং অঞ্চলের একটি স্কুলে ঢুকে পড়েছিলেন কেমন পরিস্থিতি তা খতিয়ে দেখতে। কিন্তু এ কী! মন্ত্রী কিছুটা দ্বন্দে পড়েছিলেন, এটা আদৌ স্কুল তো!


নথি অনুযায়ী স্কুলই বটে। তবে স্কুলে কোনও ছাত্র ছিল না, শিক্ষকদের উপস্থিতি তো টেরই পাওয়া যায়নি। স্কুলের ক্লাসরুমগুলো ফাঁকা, আর সেখানে চরে বেড়াচ্ছে ছাগলের দল।


একের পর এক স্কুলে ঘুরেছেন রাধেশ্যাম। কিন্তু কোনও স্কুল থেকেই তার অভিজ্ঞতাটা খুব একটা সুখকর হয়নি। ওই এলাকারই আরও একটি স্কুলে ঢুকে অবশ্য প্রধান শিক্ষককে দেখতে পান। কিন্তু বাকি শিক্ষকদের টিকি খুঁজে পাওয়া যায়নি। কোথায় গেলেন অন্য শিক্ষকরা?


এই প্রশ্নের জবাবে প্রধান শিক্ষক জানান, তারা কাজের জন্য বাইরে গিয়েছেন। কিন্তু প্রধান শিক্ষকের জবাব সন্তুষ্ট করতে পারেনি মন্ত্রীকে। হুঁশিয়ারির সুরেই তিনি বলেন, যে সব শিক্ষকেরা স্কুলে আসছেন না, তাদের বিরুদ্ধে এবং স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


খেলাকঙের স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, পাঁচ বছর আগে ওই স্কুলে ২০০ পড়ুয়া ছিল। কিন্তু কোথায় গেল তারা? এ প্রশ্নের জবাব অবশ্য পাওয়া যায়নি। যেমন একটা স্কুল সরকারকে হিসেব দিয়েছিল ৩২ জন পড়ুয়া রয়েছে। কিন্তু মন্ত্রী সেই স্কুলে গিয়ে দেখেন, স্কুল কর্তৃপক্ষের দাবি পুরোটাই মিথ্যা। ছিল মাত্র ২ জন শিক্ষার্থী!


স্কুলগুলোর এই অবস্থা দেখার পর মন্ত্রীর মুখে শোনা যায়, “এটা সত্যিই বিরক্তিকর এবং দুঃখের বিষয় যে পড়ুয়ারা স্কুলে নেই। স্কুল ভবনগুলোর অবস্থা তথৈবচ। সরকার শীঘ্রই ব্যবস্থা নেবে।”


প্রশাসনের একটা সূত্র বলছে, সমস্ত সরকারি অনুদান, মিড ডে মিল, বই, স্কুলের পোশাক যাতে নিয়মিত ভাবে পাওয়া যায় সে কারণেই স্কুলগুলো সরকারের কাছে মিথ্যা খতিয়ান দিচ্ছে। সূত্র: আনন্দবাজার


বিবার্তা/শারমিন

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com