যে শহরের সবকিছুই ১১ সংখ্যার, ঘড়িতেও নেই ১২টার কাঁটা
প্রকাশ : ০৩ আগস্ট ২০২১, ১৬:৩২
যে শহরের সবকিছুই ১১ সংখ্যার, ঘড়িতেও নেই ১২টার কাঁটা
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

সুইজারল্যান্ডের সৌন্দর্য মুগ্ধ করে না এমন লোক খুজে পাওয়া কঠিন। বিশ্ববাসী সুন্দর এই দেশে যাওয়ার স্বপ্ন দেখেন প্রতিনিয়ত। এ কারণেই প্রতি বছর লাখ লাখ পর্যটক ভিড় জমান সুইজারল্যান্ডে। শুধু পর্যটনকেন্দ্র হিসেবেই নয়, অন্য আরো অনেক দিক থেকেই দেশ হিসেবে শ্রেষ্ঠত্বের মর্যাদা পেয়েছে ইউরোপের ছোট্ট এই দেশটি।


সুইজারল্যান্ডের আয়তনের ৭০ শতাংশ ঘিরে রয়েছে আল্পস পর্বতমালা। দেশটির সবচেয়ে উঁচু পর্বতের নাম মন্টি রোজা। সুইজারল্যান্ডে বার্নের পুরাতন শহর, সাধু গলের মঠ এবং মন্টি স্যান জিওরজিওসহ ১১টি ইউনেস্কো ঐতিহ্যবাহী স্থান রয়েছে। দেশটির উত্তর-পশ্চিম প্রান্তের এক শহরের নাম সোলোথার্ন। পর্যটকরা এই শহরে ঢুকেই থমকে যান টাউন স্কয়ারের সামনে থাকা ঘড়ির দিকে তাকিয়ে। কারণ সোলোর্থান শহরের মূল কেন্দ্রেই দেখা মিলবে রহস্যময় এক ঘড়ির। যা অন্যান্য ঘড়ি থেকে ভিন্ন।


সাধারণত সব ঘড়িতে এক থেকে ১২টার কাঁটা থাকে। তবে সোলোর্থানের এই রহস্যময় ঘড়িতে আছে শুধু ১১টি কাঁটা। সেই হিসাবে এ শহরের ঘড়িতে কখনো ১২টা বাজে না। তবে ১২টার কাঁটা নেই কেন? জানলে অবাক হবেন, শুধু এ শহরের ঘড়ি নয়, অনেক কিছুতেই ১১ সংখ্যার নিদর্শন পাওয়া যায়। যেমন- এ শহরে আছে ১১টি জাদুঘর, ১১টি গির্জা, ১১টি ঝর্ণাসহ আরো অনেক কিছু। তবে ১১তেই কেন সবকিছু সীমাবদ্ধ হয়ে আছে শহরটি?


ইতিহাস অনুযায়ী, একাদশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে এই নগরীতে ইলভ নামে এক জার্মান আসেন। যিনি এই নগর প্রতিষ্ঠা করেন। তার অবদানের জন্য ইলভ সোলোথার্নবাসীর সমর্থন পেয়েছিলেন। এ কারণে ইলভের নামের সঙ্গে মিলিয়ে ইলেভেন সংখ্যায় বিভিন্ন নিদর্শন তৈরি করা হয়।