নাখালপাড়ায় জঙ্গি আস্তানায় নিহত আরো দুই জনের ছবি প্রকাশ
প্রকাশ : ১৮ জানুয়ারি ২০১৮, ১৯:০৮
নাখালপাড়ায় জঙ্গি আস্তানায় নিহত আরো দুই জনের ছবি প্রকাশ
খলিলুর রহমান
প্রিন্ট অ-অ+

রাজধানীর পশ্চিম নাখালপাড়ার রুবি ভিলায় নিহত তিন জঙ্গীর একজনের পরিচয় পাওয়া গিয়েছিল। বাকি দুই জনের পরিচয় পাওয়ার জন্য র‌্যাব বৃহস্পতিবার তাদের ছবি প্রকাশ করেছে।


গত বৃহস্পতিবার (১১ জানুয়ারি) রাতে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে নাখালপাড়ার ‘রুবি ভিলা’ ঘেরাও করে র‍্যাব। এসময় ছয় তলা ওই ভবনের পঞ্চম তলা থেকে জঙ্গিরা গ্রেনেড বিস্ফোরণ ঘটালে র‌্যাব ও জঙ্গিদের মধ্যে গোলাগুলি হয়। এতে তিন জঙ্গি নিহত হয়। শুক্রবার বিকালে তাদের লাশ উদ্ধার করে সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে নেয়া হয়।


রবিবার (১৪ জানুয়ারি) তিন জঙ্গির এক জনের পরিচয় সনাক্ত করে র‌্যাব। তারা ছবিযুক্ত দু’টি জাতীয় পরিচয়পত্র পায়, যার একটিতে নাম ছিল জাহিদ হাসান অন্যটিতে মো. সজিব মিয়া। এমনকি পরিচয়পত্র দুটিতে ভিন্ন ভিন্ন তথ্য-উপাত্ত (নাম, পিতা-মাতার নাম ও ঠিকানা) থাকায় তাৎক্ষণিকভাবে সঠিক পরিচয় নিয়ে সন্দেহের সৃষ্টি হয়।


পরে ফিংগার প্রিন্ট অনুসন্ধানে জঙ্গি জাহিদের ফিংগার প্রিন্ট একটি জাতীয় পরিচয়পত্রের সঙ্গে মিলে যায়। ওই পরিচয়পত্র অনুযায়ী তাহার মূল নাম মেজবা উদ্দিন। সে কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলার বাদুয়ারা গ্রামের বাসিন্দা এনামুল হকের ছেলে।


এ তথ্যের ভিত্তিতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তার পিতা-মাতা ও পরিবারের কয়েকজন সদস্যকে ঢাকায় নিয়ে আসা হয়। এ সময় জঙ্গি মেজবা সম্পর্কে তার পরিবারের সদস্যরা বিস্তারিত জানিয়েছে বলে দাবি করেছে র‌্যাব।


মেজবার পরিবারের সদস্যদের বরাত দিয়ে র‌্যাব জানায়, মেজবার বাবা এনামুল হক চাঁদপুর কাদরা মাদ্রসার শিক্ষক ছিলেন। বর্তমানে স্থানীয় এক মসজিদের মোহাদ্দেস। চার ভাই ও তিন বোনের মধ্যে মেজবা'র অবস্থান ৪র্থ (ভাইদের মধ্যে বড়)। সে মনোহরগঞ্জের আলীনকিপুর বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশুনা করে। ২০০৭ সালে সে ঢাকার সায়েদাবাদে একটি মোটর গ্যারেজে কাজ নেয়। আরো পরে সে যাত্রাবাড়ী জনপদ মোড়ে মেজবা টায়ার শপ্ নামে নিজেই একটি মোটর গ্যারেজ চালু করে।


২০১৫ সালের দিকে মেজবা’র মধ্যে আমূল পরিবর্তন দেখা দেয়। সে ধর্মকর্মের প্রতি বিশেষ অনুরক্ত হয়ে ওঠে। সে নিজ গ্রামে গিয়ে স্থানীয় মসজিদের ইমামের ইমামতি নিয়ে প্রশ্ন তোলে এবং পরবর্তীতে একা একা নামাজ আদায় শুরু করে।


র‌্যাব জানায়, মেজবা ২০১৭ সালের ২৮ মে পাশের গ্রামের শারমিন আক্তার নামের এক মেয়েকে বিয়ে করে। বিয়ের কিছুদিন পর সে স্ত্রীর কাছে স্বীকার করে যে সে উগ্রবাদে আকৃষ্ট হয়ে পড়েছে।


সর্বশেষ গত বছরের ২০ অক্টোবর সে গ্রামের বাড়ি গিয়েছিল। এ সময় সে অপরিচিত দুই যুবককেও সঙ্গে নিয়ে যায়। মেজবার পরিবার অপরিচিত যুবকদের পরিচয় জানতে চাইলে সে জানায়, এই যুবকরা তার মায়ের পেটের ভাইয়ের চেয়েও আপন। ২৬ অক্টোবর সে গ্রামের বাড়ি ত্যাগ করে।


গত ১০ নভেম্বরের পর হতে মেজবা তার পরিবারের সাথে সর্বপ্রকার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে। তবে ১৫-২০ দিন আগে হঠাৎ একদিন অজ্ঞাত স্থান থেকে স্ত্রী ও মাকে ফোন করে ক্ষমা চায় এবং ''জান্নাতে দেখা হবে'' বলে বিদায় নেয়। এ সময়ে তার স্ত্রী অন্তঃস্বত্ত্বা বলে জানালে সে আল্লাহর রাস্তায় চলে যাচ্ছে বলে জানায়। এ সংবাদে ভীত হয়ে মেজবার পরিবার গত ১৯ ডিসেম্বর যাত্রাবাড়ী থানায় একটি জিডি করে।


নিখোঁজ হওয়ার আগে মেজবার পরিবারের দেয়া তথ্য অনুযায়ী তার সর্বশেষ ঠিকানা ছিল দক্ষিণ সায়েদাবাদ রবিন মিয়ার মেস। ওই সূত্রে ধরে ওই মেসের ম্যানেজার রিপনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মেজবা গত ৫ আগস্ট তার মেস ভাড়া নেয়। সে নিয়মিত নামাজ পড়ত। তার আচার-আচরণও ছিল ভাল। তবে সে মাঝে মধ্যে তাবলীগের কথা বলে নিরুদ্দেশ থাকত বা মেসে ফেরত আসত না। সে গত ৭ নভেম্বর মেজবা তাবলিগে যাচ্ছে বলে সর্বশেষ মেস ত্যাগ করে। এরপর আর ফিরে আসেনি। গত ৩ জানুয়ারি মেজবার ভাই ও বাবা ঢাকায় এসে মেস থেকে তার সমস্ত জিনিসপত্র নিয়ে যায়।


এদিকে, মেজবার পরিচয় ও তার সম্পর্কে সব তথ্য পাওয়া গেলেও বাকি দু'জনের এখনো পরিচয় উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। তাই আজ তাদের ছবি প্রকাশ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান।


বিবার্তা/খলিল/হুমায়ুন/কাফী

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com