আংশিক কমিটিতেই যুবদলের ৬ বছর!
প্রকাশ : ২০ জানুয়ারি ২০২২, ০৯:৩০
আংশিক কমিটিতেই যুবদলের ৬ বছর!
জাহিদ বিপ্লব
প্রিন্ট অ-অ+

২০১৭ সালের ১৭ জানুয়ারি সাইফুল আলম নীরবকে সভাপতি এবং সুলতান সালাউদ্দিন টুকুকে সাধারণ সম্পাদক করে দেয়া হয় জাতীয়তাবাদী যুবদলের কমিটি। ঘোষিত এই কমিটির আংশিক কমিটি দিতেই সময় লেগেছে তিনবছর। তিনবছর মেয়াদি এ কমিটির মেয়াদ ছয়বছরে পদার্পণ করলেও এখনো করতে পারেনি পূর্ণাঙ্গ কমিটি। পূর্ণাঙ্গ কমিটি না করার ফলে পদবঞ্চিত রয়েছেন কয়েকশ’ নেতা।


যুবদলের অতীত কমিটিগুলো পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, সাবেক ছাত্রদল নেতাদের প্রাধান্য দিয়ে যুবদলের কমিটি গঠন করা হয়। যুবদলের আংশিক কমিটির ফলে বিগত ছাত্রদলের (রাজিব-আকরাম) কমিটির নেতাদের ভাগ্য ঝুলে রয়েছে। যুবদলের আগের (আলাল-নীরব) কমিটির অনেক নেতারও স্থান হয়নি এই আংশিক কমিটিতে।


আংশিক কমিটি ঘোষণা করে পূর্ণাঙ্গ কমিটির দিকে ধাবিত না হয়ে সারাদেশে সংগঠনকে শক্তিশালী করার জন্য যুবদলের সিনিয়র নেতাদের সমন্বয়ে ১১টি টিম করা হয়। কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি তরিকুল ইসলাম বনিকে এ টিমের প্রধান করা হয়েছে। টিমের অন্য প্রধানরা হলেন-জাকির হোসেন নান্নু, আব্দুল খালেক হাওলাদার, আলী আকবর চুন্নু, গোলাম রাব্বানী, রুহুল আমিন আকিল, ইউসুফ বিন জলিল কালু, আবু সেলিম চৌধুরী, জাকির হোসেন সিদ্দিকী, কাজী আজিজুল হাকিম আরজু এবং শহীদুল্লাহ তালুকদার।


বিএনপির একটি সূত্র জানায়, গঠিত এসব সাংগঠনিক টিমের প্রধান দুই-একজনের বিরুদ্ধে ওঠেছে নানা অভিযোগ। কমিটি বানিজ্য, নিজস্ব বলয় সৃষ্টি করা, যোগ্য ও ত্যাগীদের বাদ দিয়ে বিতর্কিতদের পদে অধিষ্ঠিত করাসহ রয়েছে বিভিন্ন অভিযোগ। এসব অভিযোগ নিয়ে একাধিক অভিযোগপত্রও পড়েছে বিএনপি অফিসে। বিষয়টি বিএনপির অনেক সিনিয়র নেতারাও ওয়াকিবহাল। যা দলটির নয়াপল্টন অফিসে নিয়মিত আসা বিএনপির এক কেন্দ্রীয় নেতা বিবার্তার কাছে স্বীকার করেন।


বিএনপি সূত্র জানায়, যুবদলের কমিটির বিদ্যমান অবস্থা নিয়ে দলটির হাইকমান্ডও রয়েছে দোটানায়। পূর্ণাঙ্গ নাকি নতুন কমিটি। এ কমিটিতে পদবঞ্চিতরা বলছেন-এতো বছরেও যেহেতু বর্তমান কমিটি এই কমিটিকে পূর্ণাঙ্গ করতে পারেনি, তাই আর পূর্ণাঙ্গ কমিটির প্রয়োজন নেই। আমরা চাই বিএনপির হাইকমান্ড যেনো নতুন একটি কমিটি উপহার দেয়। যাতে করে আমরা ঠিকানা পাই।


সূত্র জানায়, গত বছরের নভেম্বরে যুবদলের নতুন কমিটির গুঞ্জন শোনা গিয়েছিলো। কিন্তু পরে তা আর আলোর মুখ দেখেনি। চলতি জানুয়ারির প্রথম দিকে নতুন কমিটির কথা শোনা গেলে তাও দিতে ব্যর্থ হয়েছে বিএনপির হাই কমান্ড।


যুবদলের এই কমিটির পদবঞ্চিত ছাত্রদলের সাবেক সহ-সভাপতি ফেরদৌস আহমেদ মুন্না বিবার্তাকে বলেন, পূর্ণাঙ্গ হোক আর নতুন হোক, পদ প্রয়োজন। কমিটিতে কেনো ছাত্রদলের সাবেক নেতাদের রাখা হলো না, কোন যুক্তিতে তাদের এতো বছরেও নেয়া হলো না তা আমার জানা নেই। আমরা পদবিহীন থাকার কারণে, পারিবারিকভাবে, সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন হচ্ছি, লজ্জিত হচ্ছি। দেশনেত্রীর মুক্তি আন্দোলনে রাজপথে আছি। আজ যদি গ্রেফতার হই, তাহলে কোন পরিচয়ে দল আমার মুক্তি চাইবে?


পদ না পাওয়া ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম হাওলাদার সেতু বিবার্তাকে বলেন, আমরা যারা ছাত্রদলের রাজনীতিতে জড়িত ছিলাম, তাদের কোনো না কোনো স্থানে অধিষ্ঠিত করা প্রয়োজন। না হলে এই প্রজন্মগুলো হারিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। আজকে আমি যুবদলের রাজনীতি করার জন্য উৎসাহবোধ করেছি, অনেকে হয়ত অন্য সংগঠনে কাজ করতে চায়। যথাস্থানে মূল্যায়ন করলে কাজ করার গতি বৃদ্ধি পায়। পদহীনতার কারণে যেনো আমাদের এই প্রজন্মরা হারিয়ে না যায়, সেদিকে বিএনপির হাইকমান্ডকে দৃষ্টি দেয়ার আহবান জানাচ্ছি।


এবিষয়ে যুবদলের ঢাকা বিভাগীয় সাংগঠনিক টিমের প্রধান জাকির হোসেন নান্নু বিবার্তাকে বলেন, আমরা চাই নতুন কমিটি হোক। সংগঠন আরো বেগবান হোক। ছয় বছর হতে চললেও আপনারাতো এখনো এই কমিটিকে পূর্ণাঙ্গ রূপ দিতে পারেননি, এটা কি আপনাদের ব্যর্থতা নয়? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ প্রশ্নের জবাব সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দিতে পারবেন। তবে, কমিটি পূর্ণাঙ্গ হলে পদবঞ্চিতরা তাদের পরিচয় পেতো।


বর্তমান কমিটির সফলতা ও ব্যর্থতা নিয়ে যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরব বিবার্তাকে বলেন, সফলতা-ব্যর্থতার হিসেব করা ভিন্ন ব্যাপার। আমি মনে করি, এই কমিটির সফলতা বেশি। ৮২টি জেলা ইউনিটের সবগুলোতেই কমিটি করা হয়েছে। অনেক জেলায় দীর্ঘদিন কমিটি ছিলো না, তা সম্পূর্ণ করেছি। ৯৩৬টি উপজেলা ও পৌর কমিটির ৮০ শতাংশই কমিটি করা হয়েছে। সাংগঠনিক মাপকাঠি দিয়ে বিচার করলে আমরা সফল।


দীর্ঘদিনেও আপনারা এ কমিটিকে পূর্ণাঙ্গরূপ দিতে পারেননি, যার কারণে শতশত নেতা হয়েছেন পদবঞ্চিত। এটা কি আপনাদের ব্যর্থতা নয়? জবাবে নীরব বলেন, এ বিষয়টি সিদ্ধান্ত নেবার এখতিয়ার বিএনপির হাইকমান্ডের। তবে, পূর্ণাঙ্গ কমিটি হওয়া দরকার। এ কমিটির তিনবছর কেটেছে আদালতের বারান্দায়। ম্যাডাম (খালেদা জিয়া)কে নিয়মিত বিভিন্ন ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় কোর্টে হাজির করা হয়েছে। প্রতিদিনই ছিলো যুবদলের সরব উপস্থিতি। তবে, আমরা চেষ্টা করছি অতি দ্রুত সময়ের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি দেয়ার। নতুন কমিটি প্রসঙ্গে যুবদলের সভাপতি বলেন, নতুন কমিটি হওয়া না হওয়া বিএনপির হাইকমান্ডের ওপর নির্ভর করে।


বিবার্তা/বিপ্লব/জহির

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com