সাংবাদিক হাবীবের মৃত্যুতে শোকের ছায়া
প্রকাশ : ১৯ জানুয়ারি ২০২২, ১২:৫০
সাংবাদিক হাবীবের মৃত্যুতে শোকের ছায়া
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী ও দৈনিক সময়ের আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক সাংবাদিক হাবীব রহমানের মৃত্যুর ঘটনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ সর্বত্র শোকের ছায়া নেমেছে।


এর আগে বুধবার (১৯ জানুয়ারি) রাত আড়াইটার দিকে রাজধানীর হাতিরঝিল থেকে রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।


হাতিরঝিল থানার এএসআই কায়েস উদ্দিন বলেন, রাত ২টা ৩৮ মিনিটে রাসেল নামের এক পথচারী ৯৯৯-এ ফোন করে দুর্ঘটনার খবর দেন। খবর পেয়ে দ্রুত আমি ঘটনাস্থলে ছুটে যাই। ততক্ষণে কে বা কারা সাংবাদিক হাবীব রহমানকে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে যায়। দুর্ঘটনাকবলিত মোটরসাইকেল তখনো পাহারা দিচ্ছিলেন পথচারী রাসেল, মোটরসাইকেলটি হাতিরঝিল থানায় নেয়া হয়েছে।


পথচারী রাসেল ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী উল্লেখ করে কায়েস উদ্দিন জানান, এ ঘটনায় হাতিরঝিল থানার এসআই মাসুদ খলিফাকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।


এসআই মাসুদ খলিফা এ প্রসঙ্গে বলেন, হাবীব রহমানের মৃত্যু মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নাকি অন্য কোনো কারণে তা তদন্তের পর বলা যাবে।


ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (পরিদর্শক) মো. বাচ্চু মিয়া জানান, ময়নাতদন্তের জন্য হাবিব রহমানের লাশ ঢামেক মর্গে রাখা হয়েছে।


এদিকে তার আকস্মিক মৃত্যুতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তার অগ্রজ ও অনুজরা শোকস্তব্ধ হয়ে পড়েছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও তার মৃত্যুর ঘটনায় শোক ছেয়ে গেছে। দেশের মিডিয়া অঙ্গন, রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠনও তার মৃত্যুতে শোকাহত।


তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল ফেসবুকে লিখেন, রাজধানীর হাতিরঝিলে মোটরসাইকেল দূর্ঘটনায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও দৈনিক সময়ের আলো পত্রিকার সিনিয়র রিপোর্টার মো. হাবীবুর রহমান হাবিব নিহত হয়েছেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক বিটে কাজের সুবাদে আমাদের অনেকের সাথে হাবিবের যোগাযোগ ছিলো, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা হওয়ায় দলের প্রতি তার ভালোবাসাটি ছিলো অন্যরকম। প্রতিশ্রুতিশীল সাংবাদিক হাবীবুর রহমান হাবিবের এই অকাল মৃত্যুুতে গভীর শোক প্রকাশ করছি৷



তার মৃত্যু নিয়ে সাংবাদিক শরীফুল হাসান ফেসবুকে লিখেন, কোনো কোনো সকাল শুরু হয় ভীষণ মন খারাপের খবর দিয়ে। এই যেমন আজ ঘুম থেকে উঠেই জানতে পারলাম, চোখের সামনে বড় হতে দেখা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছোট ভাই সদা হাস্যমুখ সাংবাদিক হাবীব রহমান আর নেই। মঙ্গলবার মধ্যরাতে বাসায় ফেরার পথে হাতিরঝিলে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা। এরপর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর মৃত্যু। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন।


তিনি লেখেন, হাবীবের যে গুণটা আমার সবচেয়ে ভালো লাগতো সেটা হলো ওর আচরণ। খুব বিনয়ী ছিলো। সবসময় হাসিমুখে কথা বলতো। দারুণ সাংগঠনিক। ঢাকা রিপোর্টর্স ইউনিটির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ছিল। ও যখন আমাদের সময় থেকে সময়ের আলোতে যায় আমাকে জানিয়েছিল। কিছুদিন আগে সর্বশেষ দেখা হয়েছিল। নারায়ণগঞ্জের নির্বাচন কাভার করছিলো সেই ছবি দেখলাম কয়েকদিন আগে।


সাংবাদিক সানাউল হক সানি তাকে নিয়ে ফেসবুককে লেখেন, হাবিব ভাই, এত সহজ মরে যাওয়া! একটা যুগ আগলে রেখেছেন। সেই বঙ্গবন্ধু হল থেকে শুরু। এরপর গত গল্প আড্ডা গান অভিমান.. খুব কি তাড়া ছিল। আর কিছুদিন কি থাকা যেত না।