ঘরের জন্য দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী নাসির
প্রকাশ : ১৬ জানুয়ারি ২০২২, ১০:১১
ঘরের জন্য দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী নাসির
খলিলুর রহমান
প্রিন্ট অ-অ+

মো. নাসির হাওলাদার। তিনি গৃহহীন একজন মানুষ। সহায় সম্বল বলতে কিছুই নেই তার। স্ত্রী, দুই সন্তান ও বৃদ্ধা মাকে নিয়ে একটি কুড়ে ঘরে বসবাস করছেন। শুধু তাই নয়, একটু সুখে থাকার আশায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহারের একটি ঘরের জন্য সবার দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন তিনি। তবে সবাই আশ্বাস দিলেও তা দৃশ্যমান না হওয়ায় হতাশা প্রকাশ করেছেন সমাজ সেবা অধিদফতরের তালিকাভুক্ত ওই প্রতিবন্ধী।


মো. নাসির হাওলাদারের জন্ম বরিশাল জেলার বাকেরগঞ্জ উপজেলার ১০নং গারুড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের জিনিয়া গ্রামে। তার পিতা মৃত জলিল হাওলাদার। মাতা কুলসুম বেগম। নাসিরের বাবা মারা গেছেন। তাই বৃদ্ধা মা, স্ত্রী ও দুই সন্তানকে নিয়েই বেঁচে আছেন তিনি।


শনিবার (১৫ জানুয়ারি) সকালে নাসির বিবার্তাকে বলেন, আমার বড় ছেলে চতুর্থ শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করেছে। পরে অর্থের অভাবে তাকে আর লেখাপড়া করাতে পারিনি। পরে একটি দোকানে চাকরিতে দেই। সেখানে মাসে দুই হাজার টাকা বেতন পায়। আর ছোট ছেলের বয়স চার বছর। এছাড়া মা অনেক অসুস্থ। প্রতি মাসে তার অনেক টাকার ওষুধ কিনে দিতে হয়। তাই স্ত্রীকে নিয়ে আমি ভিক্ষা করি। ভিক্ষা করে কোনোভাবে সংসার চলে।



কান্না জড়িতম কণ্ঠে তিনি বলেন, তিন ভাই ও এক বোনের মধ্যে আমি সবার ছোট। বাবার তেমন কোনো সম্পদ ছিল না। আর বড় ভাইরাও তেমন বৃত্তবান না, তারা খুব অসহায়। তাই ৬০ বছর বয়সী বৃদ্ধা মা আমার কাছে থাকেন।


জানা গেছে, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য সরকারি ও বেসরকারি সুযোগ-সুবিধার কথা সংবিধান সম্মত। তা সত্ত্বেও রাষ্ট্রীয় সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত এই প্রতিবন্ধী। দীর্ঘদিন ধরেই মাথাগোঁজার ঠাঁই খোঁজার জন্য সরকারের কর্তাব্যক্তিদের পেছনে ঘুরে বেড়ালেও কেউই তার প্রতি সদয় সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়নি। এমনকি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও উপজেলা প্রশাসনের উদাসীনতার কারণে মুজিব বর্ষে প্রধান মন্ত্রীর উপহার একটি ঘরও পাননি এই দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী।


নাসির বলেন, প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘরের জন্য জেলা প্রশাসক ও উপাজেলার নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে আবেদন করেছি। কিন্তু এখনো ঘর পাইনি। কবে পাব তাও জানি না।



এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বাকেরগঞ্জ উপজেলার ১০নং গারুড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কাইয়ুম খান বিবার্তাকে বলেন, উনি সম্ভবত উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে আবেদন করেছেন। বিষয়টি আমি অবগত নই।


স্থানীয় ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম সিকদারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমাদের ওয়ার্ডে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ১০টি ঘর আছে। আরো ৫টি ঘর নির্মাণাধীন রয়েছে।


তবে প্রতিবন্ধী নাসিরের আবেদনের বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, কারা আবেদন করেছে তা এখন বলতে পারছি না। বিষয়টি আপনাকে একটু পরে জানাচ্ছি।



তবে বাকেরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাধবী রায়ের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিবার্তাকে বলেন, উনি অনেক আগে এক বার আমার কাছে আসছিলেন। নিজ জমিতে ঘর বানাতে চান তিনি। এটা হলো ‘খ’ তালিকার ঘর। আমাদের এখনো ‘খ’ তালিকার ঘর আসেনি। আসলে তিনি অবশ্যই পাবেন।


বিবার্তা/খলিল/গমেজ/জহির

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com