দীর্ঘ যানজটে নাকাল রাজধানীবাসী
প্রকাশ : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:০৪
দীর্ঘ যানজটে নাকাল রাজধানীবাসী
খলিলুর রহমান
প্রিন্ট অ-অ+

বিধিনিষেধ শিথিলের পর থেকে প্রতিদিন রাজধানীর যানজট যেন বাড়ছে। বিশেষ করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান চালুর পর থেকে রাজধানীতে তীব্র যানজটের কবলে পড়েছেন রাজধানীবাসী। তবে বনানী থেকে উত্তরা পর্যন্ত যানবাহনের দীর্ঘ লম্বা লাইন তৈরি হচ্ছে সবচেয়ে বেশি। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রী ও চালকেরা।


ভুক্তভোগিরা বিবার্তাকে জানান, যানজটের কারণে রাজধানীর বনানী, কুড়িল বিশ্বরোড, খিলক্ষেত, উত্তরা ও প্রগতি সরণিতে গাড়ির চাকা নড়ে না। সারি সারি গাড়িতে ঘণ্টারর পর ঘণ্টা অলস সময় পাড় করতে হচ্ছে নগরবাসীকে।


জানা যায়, রাজধানীর বনানী থেকে উত্তরা-টঙ্গী পর্যন্ত তীব্র যানজটে নাজেহাল সাধারণ মানুষ। এ পথের বিভিন্ন স্থানে উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ চলমান। কিন্তু, পরিকাঠামো আর পরিকল্পনার অভাবে পথচারী থেকে শুরু করে সাধারণ যাত্রীদের নাভিশ্বাস উঠেছে। গত কয়েকদিন থেকে এ পথে যানজট লেগেই থাকে। মহাখালী থেকে বনানী-উত্তর থেকে টঙ্গী পর্যন্ত পথ পাড়ি দিতে সময় লাগছে ৪ থেকে ৫ ঘণ্টা।



কয়েকজন যাত্রী ও চালকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ঢাকা থেকে বেরোনোর সময় মহাখালী থেকে বনানী-উত্তরা হয়ে গাজীপুর কমপক্ষে ২০টি স্থানে যানজটে পড়তে হয়। উত্তরা বাইপাইল মহাসড়ক চলমান উন্নয়ন কাজের কারণে সরু হয়ে পড়েছে। বিমানবন্দর থেকে আব্দুল্লাহপুর পর্যন্ত বিআরটিএর উন্নয়ন প্রকল্প চলমান থাকার কারণেও সড়কের বিভিন্ন স্থানে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। এ পথে যথাযথ বিকল্প পথ-লাইন তৈরির কথা থাকলেও তা করা হয়নি।


কুড়িল বিশ্বরোড এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, সড়কজুড়ে তীব্র যানজট। যান চালকদের বক্তব্য, উত্তর-টঙ্গী থেকে গাজীপুর পর্যন্ত সড়কে যানজট সৃষ্টি হচ্ছে বেশ কয়েকদিন ধরে। এতে যানজটের অংশ যুক্ত বনানী থেকে মহাখালী পর্যন্ত। টার্মিনাল থেকে বের হওয়ার পর রাস্তায় যাতে কোনো গাড়ি থেমে না থাকে, সেজন্য কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশকে বিশেষভাবে কাজ করতে দেখা গেছে।


ঢাকা মহানগর পুলিশের এডিসি (ট্রাফিক-উত্তরা বিভাগ) মো. বদরুল হাসান বিবার্তাকে বলেন, গাজীপুরের রাস্তা-ঘাট নষ্ট রয়েছে। এ কারণে গাজীপুরের গাড়িগুলো এদিকে চলে আসে। এছাড়াও বিআরটিএর উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ চলছে। তাই বিভিন্ন এলাকায় রাস্তা-ঘাট ভেঙে গেছে। এ জন্য ওই সড়কে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।


এদিকে, উত্তরা-বানানী সড়কে দীর্ঘ যানজটের কারণে মিরপুর, শেওড়াপাড়া, কাজীপাড়া, আগারগাঁও, তালতলা, শাহবাগ, কারওয়ান বাজার, ফার্মগেট ও বিজয় সরণিসহ আশেপাশের এলাকায় যানজট দেখা যায়। এছাড়া বাড্ডা, রামপুরা, মালিবাগ এলাকাও তীব্র যানজটের মুখোমুখি হতে হয় যাত্রীদেরকে।



রহিম মিয়া নামের এক মোটরসাইকেল চালক বিবার্তাকে বলেন, স্কুল খোলার পর থেকে সড়কে যানজট দেখা যাচ্ছে সবচেয়ে বেশি। আসলে রাজধানীর প্রায় সব পরিবারেই একজন করে শিক্ষার্থী আছে, তারা সবাই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাওয়ার জন্য বের হয়েছে, অনেকের সঙ্গে অভিভাবকরাও আছে, যে কারণে সড়কে প্রাইভেটকার, রিকশার সংখ্যা বেড়েছে। অন্যদিক প্রতিটি গণপরিবহনেও শিক্ষার্থীরা উঠছে, স্কুল-কলেজ সংলগ্ন বিভিন্ন স্টপেজে নামে যাচ্ছে, তাই গাড়ি থামিয়ে তাদের নামাতে হচ্ছে। সবকিছু মিলিয়ে রাজধানীতে আজও তীব্র যানজট সকাল থেকেই।


উল্লেখ্য, গত ১৯ আগস্ট থেকে রাজধানীতে শতভাগ গণপরিবহন চলাচল শুরু হওয়ার পর থেকে প্রায় প্রতিদিনই যানজট সৃষ্টি হতে দেখা গেছে। এর সঙ্গে ৫৪৩ দিন পর স্কুল-কলেজ খুলেছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ফেরার অপেক্ষা শেষ হয়েছে শিক্ষার্থীদের। যে কারণে সড়কে অতিরিক্ত প্রাইভেটকার, রিকশা চলাচল করছে। গণপরিবহনেও শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন স্টপেজ থেকে উঠছে-নামছে ফলে গণপরিবহনে ধীরগতি থেকেও যানজটের সৃষ্টি হয়েছে সড়কে।


বিবার্তা/খলিল/গমেজ/শাহিন

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com