ঘরে থাকাই নিরাপদ, ই-কমার্সই ভবিষ্যৎ
প্রকাশ : ০৮ এপ্রিল ২০২১, ১৫:৩৪
ঘরে থাকাই নিরাপদ, ই-কমার্সই ভবিষ্যৎ
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

এবারের ই-কমার্স দিবসের প্রতিপাদ্য ছিলো ‘ঘরে থাকাই নিরাপদ, ইকমার্সই ভবিষ্যৎ’। ই-কমার্স দিবস ২০২১ উপলক্ষে বুধবার (৭ এপ্রিল) রাতে ‘ই-কমার্স ফর লিভিং’ শিরোনামে ভার্চুয়ালি এক আলোচনা সভার আয়োজন করে ই-কমার্স ব্যবসায়ীদের সংগঠন ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব)।


ই-ক্যাবের প্রেসিডেন্ট শমী কায়সারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই সভায় সম্মানিত অতিথি ছিলেন ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক ও ই-ক্যাবের উপদেষ্টা সংসদ সদস্য নাহিম রাজ্জাক। অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি উপস্থিত ছিলেন বাণিজ্য সচিব ড. জাফর উদ্দীন, আমদানি ও রফতানি অনু-বিভাগের প্রধান এএইচএম শফিকুজ্জামান, ডিজিটাল কমার্স সেলের প্রধান হাফিজুর রহমান। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ই-ক্যাবের ডিরেক্টর আসিফ আহনাফ।


ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, ই-ক্যাব আজ অপরিহার্য সংগঠনে পরিণত হয়েছে। ই-ক্যাব হয়েছে ১ হাজার ৫০০ সদস্যের পরিবার। এত অল্প সময়ে ই-কমার্সের এই ব্যাপ্তি ও ই-ক্যাবের এই অগ্রগতি শুধু করোনার কারণে হয়নি। করোনার মতো পরিস্থিতিতে সরকারের নানা পদক্ষেপ ও ই-ক্যাবের যারা নেতৃত্বে রয়েছে তাদের ক্রমাগত প্রচেষ্টার ফসল। দেশের সবচেয়ে বড় ডাক-বিভাগের চেইনকে ই-কমার্সের কাজে লাগানোর মাধ্যমে ই-কমার্সের ব্যাপ্তি আরো প্রান্তিক পর্যায়ে ছড়িয়ে দেয়া সম্ভব। ই-কমার্স এবং পোস্টাল সার্ভিস উভয় সক্ষমতা মিলিয়ে গ্রামীণ ই-কমার্সের ব্যাপ্তি বাড়ানো যায়। কারণ ডাক বিভাগের মতো এত বড় বাহিনী ও নেটওয়ার্ক দেশের কোনো প্রাইভেট বা পাবলিক সেক্টরের নেই।


আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, বাংলাদেশের ই-কমার্স এখন প্রবৃদ্ধির একটা উদাহরণ হিসেবে বিশ্বজুড়ে আলোচনার বিষয় হয়েছে দাঁড়িয়েছে। এটা সম্ভব হয়েছে ই-ক্যাবের সম্মিলিত প্রচেষ্টা এবং এই সেক্টরের কর্মীদের একনিষ্ঠ পরিশ্রমের কারণে। ই-ক্যাব একটি নবীন সংগঠন হয়েও তাদের কর্মতৎপরতা এবং আপদকালীন সময়ে সেবা দিয়ে সক্ষমতা ও দক্ষতার পরিচয়ে দিয়ে আইসিটি সেক্টরের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সংগঠনে পরিণত হয়েছে। পৃথিবীর যে তিনটি দেশ করোনাকালীন অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে, তারমধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। এতে ই-ক্যাব সদস্যরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন।


ই-ক্যাবের উপদেষ্টা সংসদ সদস্য নাহিম রাজ্জাক বলেন, ই-ক্যাব যেভাবে মাঠ পর্যায়ে এবং সরকারের সাথে পলিসি পর্যায়ে কাজ করে দেশের ই-কমার্সের উন্নয়নে কাজ করছে, এর ফলে অল্প সময়ের মধ্যে ই-কমার্সের উল্লেখযোগ্য ব্যাপ্তি ঘটেছে। এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারলে সংগঠনটি খুব শিগগিরই আরো অনেক দূর এগিয়ে যাবে। সুন্দরভাবে কাজ করার জন্য এবং সময়ের সাথে সঠিক পদক্ষেপ ও নেতৃত্ব দেয়ার জন্য তিনি ই-ক্যাবের কার্যনির্বাহী পরিষদের প্রশংসা করেন।


সভাপতির বক্তব্যে ই-ক্যাবের প্রেসিডেন্ট শমী কায়সার বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন স্বপ্ন আজ সফল হয়েছে। আজ মুজিব বর্ষে এবং স্বাধীনতার ৫০তম বর্ষে এসে আমরা তার সুফল ভোগ করছি। বিগত সময়ে ই-ক্যাব সেযব উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। সবসময় আমরা সরকারের সহযোগিতা পেয়েছি এবং পাচ্ছি। করোনার ঢেউ যখন দ্বিতীয়বার এসেছে তখন সরকার প্রথমে চলাচল সীমিত ঘোষণা করে ৬ টা পর্যন্ত। আমরা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়ে এবং সরাসরি গিয়ে বর্তমানে এই সময়টা রাত ১২টা পর্যন্ত বর্ধিত করেছি। এভাবে আমরা মানুষকে সেবা দিতে অনলাইন উদ্যোক্তাদের নিয়ে সবার পাশে থাকবো।


ই-ক্যাবের সেক্রেটারি জেনারেল মোহাম্মদ আব্দুল ওয়াহেদ তমাল, ফিন্যান্স সেক্রটারী আব্দুল হক অনু, জয়েন্ট সেক্রেটারি নাসিমা আক্তার নিশা, ডিরেক্টর জিয়া আশরাফ, ডিরেক্টর সাইদ রহমান বক্তব্য দেন।


আলোচনা সভায় ই-ক্যাবের স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্যরা তাদের চলতি বছরের তাদের পরিকল্পনা তুলে ধরেন।


বিবার্তা/গমেজ

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com