জনমনে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা
প্রকাশ : ০৯ মে ২০১৮, ২০:২৯
জনমনে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা
মূর্শিদা আক্তার রীমা
প্রিন্ট অ-অ+

আমার দাদুর (মৃত) ডান হাতে একটা পোড়াদাগ ছিলো। একদিন কৌতূহলবশত দাদুকে জিজ্ঞেস করলাম, দাদু আপনার হাতে এই পোড়া দাগ কিভাবে হলো? মুহূর্তে দাদুর দুচোখে অশ্রু দেখলাম।


ঘটনাটা ছিলো বাঙালি তথা বিশ্ব ইতিহাসের অন্যতম মর্মান্তিক ঘটনা। দাদু বলতে শুরু করলেন, উনার মা নাকি সকালবেলা পিঠা বানানো অবস্থায় আকস্মিক এক খবর শুনে শোকে স্তব্ধ হয়ে তার হাতে উনুনের গরম তেল ঢেলে দিয়েছিলেন। সেই সকালবেলাটা ছিলো ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের। শেখ মুজিবকে তার পরিবারসহ মেরে ফেলা হয়েছে। দাদুর শোককাতর চেহারায় এই ঘটনার বর্ণনা শুনে আমার শিশু মনে তখন থেকেই প্রশ্ন জেগেছে কে এই শেখ মুজিব?


নিকট আত্মীয়দের সুযোগ পেলেই শেখ মুজিব সম্পর্কে জিজ্ঞস করতাম। স্বপ্ন ছিলো যদি শেখ মুজিবকে দেখতাম, তার সাথে কথা বলতে পারতাম! আমার এই ইচ্ছার পেছনে একটাই কারণ ছিলো- কেন, শেখ মুজিবের মৃত্যুর খবর শুনে দাদুর মা এতো ব্যথিত হয়েছেন, শোকে বিভোর হয়েছিলেন? তিনি তো দাদুর মায়ের কোনো নিকট আত্মীয় ছিলেন না! কেন, শেখ মুজিব ও তার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে আমাদের ঘরে প্রায় এত্তো আলোচনা হয়?


আস্তে আস্তে নিজের পরিপার্শ্বিক পরিবেশ এবং বই পড়ে শেখ পরিবার সম্পর্কে জানতে শুরু করি। টুঙ্গিপাড়ার সেই মিয়াভাই বাঙালির স্বাধীকার আন্দোলনের মহান দার্শনিক, বাংলার অবিসংবাদিত নেতা, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। যার ডাকে বাঙালি, অবাঙালি, হিন্দু, মুসলিম, জাতি বর্নভেদে ঐক্যবদ্ধভাবে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেয় এবং বিশ্বমানচিত্রে একটি স্বাধীন স্বার্বভৌম ভূখণ্ড বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করে।


আজ আমি তারই সুযোগ্য উত্তরসুরী, বিশ্বস্বীকৃত সফল রাষ্ট্রনায়ক, আমাদের ‌কমিউনিটি হেল্থ কেয়ার প্রভাইডার CHCP এর পুনঃপ্রবক্তা দেশরত্ন শেখ হাসিনা সম্পর্কে আমার ক্ষুদ্র জ্ঞানে লিখে শেষ করতে পারবো না। তবে আমি যে পেশায় আছি, এই পেশায় না এলে বুঝতেই পারতাম না যে, বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব নবজাতক বংলাদেশের প্রতিটা মানুষেকে ভালো রাখতে কতদূর পর্যন্ত ভেবে ছিলেন!


তার দূরদর্শী ভাবনার প্রতিফলন ঘটলে বংলাদেশের মান-মর্যাদা আজ কোথায় থাকত। আজ যখন আমি গ্রামের হতদরিদ্র মানুষগুলোকে তাদের প্রয়োজনে সামান্যতম সেবা দিই, আমার একটা পরামর্শে এই দরিদ্র শ্রেণীর মানুষগুলোর মুখে সুখের হাসি ফোটে, তখনি ভাবি- এমনি প্রতিটা সুখের হাসি ফোটানোর জন্যই মমতাময়ী জননী দেশরত্ন শেখ হাসিনা আপনি আমাদেরকে নিয়োগ দিয়েছেন। আসলে আপনিই হলেন, এই দেশের সবচেয়ে বড় সেবিকা।


আজ যখন কমিউনিটি হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডার (CHCP) সদস্যরা রেল স্টেশনে, চলন্ত বাসে একজন অসহায় গর্ভবতী মায়ের ডেলিভারি করাতে সক্ষম হয়, এমনি বাস্তবতায় দাঁড়িয়ে একজন কমিউনিটি হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডার সদস্য হিসাবে জাতির বিবেকের কাছে প্রশ্ন রাখি- এই কৃতিত্ব কার? অবশ্যই প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার। শেখ হাসিনা যদি এই দেশের জনসাধারণের সুখ, শান্তি, স্বাস্থ্য চিকিৎসা সম্পর্কে না ভাবতেন, তাহলে কখনোই এই অসহায় গর্ভবতী মা, বোন, বৃদ্ধাদের পাশে আমরা দাঁড়াতে পারতাম না।


আমার ক্লিনিকে আসা এক বৃদ্ধা মহিলার সাথে কথা হচ্ছিল। অনেক্ষণ কথা বলার এক পর্যায়ে বৃদ্ধা মহিলা কেঁদে কেঁদে বলছেন “আল্লাহ্ তুই শেখের জি-রে বাঁচায়া রাখ, শেখের জি গদিতে আওনের পরেত্তনে আমি বয়ষ্ক ভাতা পাই, এই হাসপাতালে আই বিনা পইসায় পুতের বউরল্লাই ওষুধ নি খাওয়াই! আল্লাহ্ তুই শেখের জি-রে ভালারাইচ”।


হে মমতাময়ী জননী শেখ হাসিনা, বাংলাদেশের মানুষ এভাবেই আপনার ওপর আস্থা রাখছে। মহান সৃষ্টিকর্তার কছে আপনার দির্ঘায়ু কামনা করছে।


বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য উত্তোসূরি, বঙ্গরত্ন শেখ হাসিনা, আপনি যে ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখিয়েছেন তা আজ দৃশ্যমান। বাংলাদেশ আজ নিজস্ব স্যাটেলাইট ব্যাবহার করবে। যোগাযোগ ব্যবস্থা, তথ্য-প্রযুক্তিতে ইন্টারনেট সেবা গ্রামের হাসপাতাল, ক্লিনিক, স্কুল, কলেজ, ইউনিয়ন পরিষদ থেকে শুরু করে গ্রামের জেলে, কৃষক, শ্রমিক, দিন মজুরের হাত পর্যন্ত পৌঁছে গেছে। আগের দিনে যখন পরিবারের কর্তাকে তিনবেলা ভাত খাওয়ার উপাদান যোগাড়ের চিন্তা করতে হতো, এখন সময় বদলেছে- পরিবার কর্তা এখন বিদেশে থাকা ছেলের সাথে মোবাইল ভিডিওতে কথা বলে। পরিবারের সমস্যা সমাধানের উপায় খুঁজে পায়। প্রযুক্তির এই উন্নয়ন দেশের মানুষের জীবনমান, সামাজিক মর্যাদায় অমুল পরিবর্তন সাধন করেছে।


বাংলাদেশে নারী শিক্ষা ও ক্ষমতায়নে দেশরত্ন শেখ হাসিনা, আপনি যে স্তম্ভ দাঁড় করিয়েছেন- তাতে আমি গর্ব করে বলতে পরি। আমি বাঙালি নারী, যে দেশের রাষ্ট্রপ্রধান জননেত্রী শেখ হাসিনা, আমায় রুখবে কে?


লেখক : স্বাস্থ্যকর্মী


বিবার্তা/কাফী

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com