আলোর দিশারী হয়ে বাংলায় ফিরে আসেন শেখ হাসিনা: হানিফ
প্রকাশ : ১৭ মে ২০২২, ১৪:৩৫
আলোর দিশারী হয়ে বাংলায় ফিরে আসেন শেখ হাসিনা: হানিফ
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি বলেছেন, দেশে মানুষ যখন কথা বলতে পারতো না, গণতন্ত্র নির্বাসিত অবস্থায় ছিলো ঠিক সেই অন্ধকার সময়ে আলোর দিশারী হয়ে বাংলায় ফিরে আসেন শেখ হাসিনা। তাঁর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ঘুরে দাঁড়িয়েছে। তিনি দেশে ফিরে এসেছিলেন বলেই আজ দেশের মানুষ নতুন করে স্বপ্ন দেখছে, উন্নত দেশ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়ন হচ্ছে।


মঙ্গলবার (১৭ মে) সকাল ১১টায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ৪১তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।


মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, ১৯৭১ সালের পরাজিত শক্তি পাকিস্তানের এজেন্ট জিয়াউর রহমান অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করেছিলো। এই দেশে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধ্বংস করে দিতে চেয়েছিলো। জয় বাংলা নিষিদ্ধ, ৭ই মার্চের ভাষণ নিষিদ্ধ করা হয়েছিলো। যুদ্ধাপরাধী যারা জেলে ছিলো তাদেরকে দালাল আইন বাতিল করে মুক্ত করে দেয়া হয়েছিলো। নিষিদ্ধ জামায়াতে ইসলামীকে রাজনীতি করার সুযোগ করে দেয়া হয়। সমস্ত বাংলাদেশকে একটা পাকিস্তানের অঙ্গরাজ্য হিসেবে প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করা হয়েছে।


তিনি বলেন, জিয়া ক্ষমতা দখল করে তিন লাখ নেতাকর্মীকে নির্যাতন করেছিলো। সেই সময়ে লাখ লাখ নেতা-কর্মীকে বিনা বিচারে জেলে রাখা হয়। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা গুম খুনের স্বীকার হয়েছিলো। আওয়ামী লীগকে খন্ড বিখন্ড করা হয়।


তিনি বলেন, দেশে মানুষ যখন কথা বলতে পারতো না, চরম দিশেহারা অবস্থায় ১৯৮১ সালে কাউন্সিলে শেখ হাসিনাকে সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। এরকম এক ভয়াবহ পরিস্থিতিতে শেখ হাসিনা শত বাঁধা, ভয় উপেক্ষা ১৭ মে তিনি দেশে ফিরে এসেছিলেন। দলকে সুসংগঠিত করার পাশাপাশি জনগণকে সামরিক স্বৈরাচারী সরকারের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ করেন।


হানিফ বলেন, দীর্ঘ লড়াই-সংগ্রাম শেষে ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগকে রাষ্ট্রক্ষমতায় নিয়ে আসেন শেখ হাসিনা। ২০০১ সালে নির্বাচনে ষড়যন্ত্রের কারণে পরাজিত হলেও ২০০৮ সালের সালের নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয়ের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগকে আবারো ক্ষমতায় নিয়ে আসেন। এরপর থেকে টানা তিনবারের মতো শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায়। আজকে তাঁর নেতৃত্বে বাংলাদেশ চরম দারিদ্রের দেশ থেকে বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে বিবেচিত। তাঁর নেতৃত্বে আজ বিশ্বের উন্নয়ন রোল মডেল দেশ।


তিনি বলেন, ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার সময় বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু আয় ৬০০ ডলারের নিচে ছিলো। আজ মাথাপিছু আয় ২৮০০ ডলার ছাড়িয়ে গেছে। তিনি বাংলাদেশে এসেছিলেন বলেই আজ দেশের মানুষ নতুন করে স্বপ্ন দেখছে। তিনি এসেছিলেন বলেই উন্নত দেশ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়ন হচ্ছে।


দেশে এখনো শেখ হাসিনার সরকার উৎখাতে ষড়যন্ত চলছে উল্লেখ করে নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে হানিফ বলেন, শেখ হাসিনার পথ চলা কখনো মসৃণ ছিলো না। বারবার হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। স্বৈরশাসকের নিযাতনসহ সকল বাধা বিপত্তি মোকাবিলা করে তিনি দেশকে এগিয়ো নিচ্ছেন। ষড়যন্ত্র চলছে আপনারা সতর্ক থাকুন।


আওয়ামী লীগের এ সিনিয়র নেতা বলেন, ২০০৭ সালের বাংলাদেশ আর এখনকার বাংলাদেশ এক নয়। অনেকে নতুন করে শেখ হাসিনাকে উৎখাত করে নতুন করে অসাংবিধানিক সরকার প্রতিষ্টার স্বপ্ন দেখছেন। এরা কারা... পাকিস্তানের এজেন্টরাই যাচ্ছে শেখ হাসিনাকে উৎখাত করতে। অসাংবিধানিক পন্থায় সরকার গঠনের স্বপ্ন আজীবন দুঃস্বপ্নই রয়ে যাবে।


এখন আর অসাংবিধানিক পন্থায় সরকার গঠন করার সুযোগ নেই জানিয়ে হানিফ বলেন, আওয়ামী লীগের লাখ লাখ নেতাকর্মী থাকতে আর কাউকে ষড়যন্ত্র করে ক্ষমতায় যেতে দিবে না। জনগণ না চাইলে এই দেশে আর কেউ অসাংবিধানিক পথে ক্ষমতায় যেতে পারবে না।


আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় উপস্থিত আছেন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আবদুর রহমান, ড. আব্দুর রাজ্জাক, শাজাহান খান, জাহাঙ্গীর কবির নানক, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি, ড. হাছান মাহমুদ, বাহাউদ্দীন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক মিজা আজম, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল প্রমুখ। আলচনা সভার সঞ্চালনা করেন আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ।


বিবার্তা/সোহেল/তাওহিদ/বিএম

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com