লক্ষ্য এখন পুষ্টি চাহিদা পূরণ: প্রধানমন্ত্রী
প্রকাশ : ১৮ জুলাই ২০১৯, ১২:২১
লক্ষ্য এখন পুষ্টি চাহিদা পূরণ: প্রধানমন্ত্রী
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা (ফাইল ফটো)
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমরা খাদ্য ঘাটতি পূরণ করেছি। এখন লক্ষ্য পুষ্টির চাহিদা পূরণ করা। তিনি বলেন, আমরা নির্বাচনী ইশতেহারে এগুলো উল্লেখ করেছিলাম। এখন আমরা সুষম পুষ্টিমান সম্পন্ন খাদ্য নিশ্চিতে কাজ করছি।


বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ (কেআইবি) মিলনায়তনে ‘জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০১৯’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।


‘মাছ চাষে গড়ব দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ’ শীর্ষক স্লোগান নিয়ে প্রতিবারের মতো এবারো দিবসটি পালিত হচ্ছে। সপ্তাহটি উদযাপন উপলক্ষে কেআইবি প্রাঙ্গণে সপ্তাহব্যাপী ‘মৎস্য মেলা’ অনুষ্ঠানের পাশাপাশি প্রতিটি জেলায় তিন দিনব্যাপী মৎস্য মেলা অনুষ্ঠিত হবে।


অনুষ্ঠানে এ বছর মৎস্য খাতে অবদানের জন্য আটটি স্বর্ণ ও নয়টি রৌপ্য পদক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তির হাতে তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।


অনুষ্ঠানে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান সভাপতিত্ব করেন। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব রাইসুল আলম মণ্ডল, মৎস্য অধিদফতরের মহাপরিচালক আবু সাইদ মো. রাশেদুল হক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


এর আগে বুধবার বুধবার (১৭ জুলাই) রাজধানীর মৎস্য অধিদফতরের সম্মেলনকক্ষে ‘জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ-২০১৯’ উপলক্ষে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু। সপ্তাহটি উদযাপন উপলক্ষে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রীর নেতৃত্বে মৎস্য ভবন থেকে এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়।


প্রতিমন্ত্রী এ সময় বলেন, ইলিশ উৎপাদনে বাংলাদেশ বিশ্বে প্রথম। পাশাপাশি মুক্ত জলাশয়ের মাছ আহরণে তৃতীয়, তেলাপিয়ায় চতুর্থ এবং বদ্ধ জলাশয়ে চাষকৃত মাছে পঞ্চম স্থানে বাংলাদেশ।


তিনি বলেন, ইলিশ সম্পদের স্থায়িত্বশীল উন্নয়নে জেলেদের সঞ্চয়ী করার পাশাপাশি তাদের আপত্কালীন জীবিকা নির্বাহের লক্ষ্যে সাড়ে ৩ কোটি টাকার একটি ‘ইলিশ উন্নয়ন ও সংরক্ষণ তহবিল’ গঠন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে সমুদ্রে গবেষণা ও জরিপ চালিয়ে ৪৩০ প্রজাতির মৎস্য সম্পদের সন্ধান পাওয়া গেছে।


সামুদ্রিক মৎস্য সম্পদের মজুত ও জীববৈচিত্র্যকে অধিকতর সমৃদ্ধ করতে সরকার ২৬ জুন নোয়াখালী জেলার হাতিয়ার নিঝুম দ্বীপসংলগ্ন ৩ হাজার ১৮৮ বর্গ কিলোমিটার সমুদ্র এলাকাকে প্রথমবার ‘সামুদ্রিক সংরক্ষিত এলাকা’ হিসেবে ঘোষণা করেছে।


প্রতিমন্ত্রী বলেন, কৃত্রিম প্রজনন ও চাষাবাদ কৌশল উদ্ভাবন করায় বিলুপ্তপ্রায় দেশীয় পাবদা, গুলশা, টেংরা, মহাশোলসহ প্রায় ২০টি প্রজাতির মাছ এখন বাজারে সহজেই পাওয়া যায়। অন্য বিলুপ্তপ্রায় মাছ পুনরুদ্ধারেও গবেষণা জোরদার করা হচ্ছে।


সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- মৎস্য উন্নয়ন করপোরেশনের চেয়ারম্যান দিলদার আহমদ, মৎস্য অধিদফতরের মহাপরিচালক আবু সাইদ মো. রাশেদুল হক, মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. ইয়াহিয়া মাহমুদ প্রমুখ।


বিবার্তা/রবি

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com