‘আমাদের শিল্প-সংস্কৃতি বিশ্ব দরবারে পৌঁছে যাবে’
প্রকাশ : ০১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৮:২৪
‘আমাদের শিল্প-সংস্কৃতি বিশ্ব দরবারে পৌঁছে যাবে’
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

আমাদের শিল্প সংস্কৃতি কেবল বাংলাদেশের সীমানায় নয়, বিশ্ব দরবারে পৌঁছে যাবে- এ আশাবাদ ব্যক্ত করে বৃহস্পতিবার বিকেলে ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলা’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


এসময় আগামী ২২ ও ২৩ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠেয় দুই দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলনেরও উদ্বোধন ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী।


এ সময় তিনি বলেন, অশুভ পথে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারীরা কখনো সংস্কৃতি ও ভাষা চর্চা করতে জানে না। বাংলাদেশ হবে অসাম্প্রদায়িক, বাংলাদেশ হবে শান্তিপূর্ণ। যে বাংলাদেশে প্রতিটি মানুষ তার ধর্ম স্বাধীনভাবে পালন করবে। বিভিন্ন ভাষাভাষী যেসব মানুষ আছে, তারাও স্বাধীনভাবে তাদের ভাষা চর্চা করতে পারবে।


প্রধানমন্ত্রী বলেন, নিজেদের সংস্কৃতি, ভাষা, শিল্প-সাহিত্যকে যদি আমরা মর্যাদা না দিতে পারি এবং উৎকর্ষ সাধন করতে না পারি, তাহলে জাতি হিসেবে আমরা কখনো আরও উন্নত হতে পারব না।


বাংলাদেশকে এগিয়ে নেয়ার প্রত্যয়ে প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ যেন এগিয়ে যায়, সেটাই আমরা চাই। আমরা যখন সরকার গঠন করেছি, তখনই আমরা এ ব্যাপারে যথেষ্ট আন্তরিক। আমরা চেষ্টা করেছি আমাদের ঐতিহ্যগুলো ধরে রাখার জন্য।


তিনি বলেন, আমাদের এখানে বইমেলা হয়। মনে রাখতে হবে—বইমেলা শুধু বই কেনাবেচার জন্য নয়। বইমেলা সাহিত্যচর্চার ক্ষেত্র প্রসারিত করে, অজানাকে জানার সুযোগ করে দেয়। এ জন্যই আমরা বইমেলাকে প্রাণের মেলা বলি।


উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। বক্তব্য দেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, সংস্কৃতি সচিব মো. ইব্রাহিম হোসেন খান এবং বাংলা একাডেমির পরিচালক শামসুজ্জামান খান।


এই অনুষ্ঠানে ২০১৭ সালের বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার দেয়া হয়। উদ্বোধনী অনষ্ঠান শেষে প্রধানমন্ত্রী বইমেলা ঘুরে দেখেন।


কবিতায় মোহাম্মদ সাদিক ও মারুফুল ইসলাম, কথাসাহিত্যে মামুন হোসাইন, প্রবন্ধে অধ্যাপক মাহবুবুল হক, গবেষণায় অধ্যাপক রফিকউল্লাহ্ খান, অনুবাদে আমিনুল ইসলাম ভুঁইয়া, মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সাহিত্যে কামরুল ইসলাম ভুঁইয়া ও সুরমা জাহিদ, ভ্রমণকাহিনীতে শাকুর মজিদ, নাটকে মলয় ভৌমিক, বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীতে মোশতাক আহমেদ এবং শিশুসাহিত্যে ঝর্ণা দাশ পুরকায়স্ত এবার বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পেয়েছেন।


উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাজ্যের লেখক এগনিস মিডোসম, ক্যামেরুনের ড. জয়েস অ্যাসউন টেনটেন, মিশরের ইব্রাহিম এলমাসরি ও সুইডেনের অরনে জনসন।


রাজধানীর বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণ ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এ মেলার পরিসর এবার আরও বেড়েছে। বেড়েছে বইয়ের স্টল নিয়ে বসা প্রকাশনা সংস্থার সংখ্যা।


প্রায় পাঁচ লাখ বর্গফুট এলাকায় ৪৫৫টি প্রতিষ্ঠানকে ৭১৯টি ইউনিট এবং বাংলা একাডেমিসহ ২৪টি প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানকে মোট ১৫ হাজার ৫৩৬ বর্গফুট আয়তনের ২৫টি প্যাভিলিয়ন বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে ১৩৬টি লিটল ম্যাগাজিনকে লিটল ম্যাগাজিন কর্নারে স্টল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।


বাংলা একাডেমিসহ মেলায় অংশগ্রহণকারী অন্যান্য প্রতিষ্ঠান পুরো ফেব্রুয়ারি মাস বইয়ের এ উৎসবে বই বিক্রি করবে ২৫ শতাংশ ছাড়ে।


এবারও মেলার সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশে রয়েছে শিশুচত্বর। ওই কর্নারকে সাজানো হয়েছে শিশুকিশোরদের জন্য বিনোদন ও শিক্ষামূলক অঙ্গসজ্জায়।


ছুটির দিন ছাড়া প্রতিদিন বিকেল ৩টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত মেলা চলবে। ছুটির দিন বেলা ১১টা থেকে রাত ৯টা এবং ২১ ফেব্রুয়ারি সকাল ৮টা থেকে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত খোলা থাকবে মেলা প্রাঙ্গণ। মাসব্যাপী গ্রন্থমেলায় এবারও ‘শিশুপ্রহর’ ঘোষণা করা হবে।


বিবার্তা/বিপ্লব/কাফী

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com