পাটের পাতা থেকে চা উৎপাদন শুরু
প্রকাশ : ২৩ জানুয়ারি ২০১৮, ১৯:১০
পাটের পাতা থেকে চা উৎপাদন শুরু
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

বাংলাদেশে পাটের পাতা থেকে ‘সবুজ চা’ উৎপাদন শুরু হয়েছে, এমনকি তা রপ্তানিও হচ্ছে জার্মানিতে। তবে বড় পরিসরে উৎপাদন শুরু করতে আরো সময় লাগবে। সেজন্য জামালপুরে একটি কারখানা স্থাপনের কাজ শুরু হয়েছে।


২০১৬ সালে বাংলাদেশে পাট পাতা থেকে এই অর্গ্যানিক চা উৎপাদনে সাফল্য লাভের প্রথম দাবি করে বাংলাদেশ পাট গবেষণা ইন্সটিটিউট। এরপর ঢাকায় গুয়ার্ছি অ্যাকুয়া অ্যাগ্রো টেক নামক একটি প্রতিষ্ঠান পাটের পাতা দিয়ে তৈরি অর্গ্যানিক চা জার্মানিতে রপ্তানি শুরু করে। এই প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার ইসমাইল হোসেন খান। প্রতিষ্ঠানটি এখন সরকারি ব্যবস্থাপনায় চলে গেছে আর ইসমাইল হোসেন খানকে করা হয়েছে পাট পাতা থেকে চা তৈরি প্রকল্পের উপদেষ্টা।


শুক্রবার জামালপুরের সরিষাবাড়ী এলাকায় এই প্রকল্প উদ্বোধন করেছেন বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম। এখানে এক কোটি ১৬ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি কারখানা করা হবে।


উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী বলেন,‘‘চা শিল্পে যোগ হচ্ছে পাটের পাতা থেকে চা। এতে পাট ও চা শিল্প সমৃদ্ধ হবে। বহু মানুষের বাড়তি কর্মসংস্থান হবে।''


তিনি আরো বলেন, ''পাটের সোনালি দিন ফিরিয়ে আনতে পাটকে নতুন নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবন করা হচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় নতুন উদ্ভাবন এই সবুজ চা।’’


এ প্রসঙ্গে সোমবার বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী ডয়চে ভেলেকে টেলিফোনে বলেন, ‘‘আমরা এরই মধ্যে ছোট পরিসরে উৎপাদনে চলে গেছি। করিম জুট মিল এবং প্রকল্পের উদ্ভাবক ইসমাইল হোসেন খানের ঢাকার উত্তরায় ছোট একটি কারখানায় জার্মানির একটি প্রতিষ্ঠানের কারিগরি সহায়তায় আমরা এই চা উৎপাদন করছি। এরইমধ্যে আমরা ৮-১০ টন পাট পাতার চা উৎপাদন করেছি এবং তা জার্মানিতেই ওই প্রতিষ্ঠানের কাছে রপ্তানি করা হয়েছে। সরিষাবাড়ীতে আমাদের কারখানা নির্মাণ সম্পন্ন হলে আমরা বাণিজ্যিক উৎপাদনে যাব। দেশের বাজারে এই চা বিক্রি হবে আর বিদেশে তো রপ্তানি করা হবেই।’’


তিনি জানান, এই চায়ের স্বাদ একদম গ্রীন টি'র মতো, দামও হবে সাধারণ চায়ের মতোই।’’


পাট পাতার চায়ের গুণাগুণ প্রসঙ্গে প্রতিমন্ত্রী, বলেন, ‘‘আমরা ছোট বেলায় দেখেছি ছোটখাট অসুখবিসুখ হলে শিশুদের পাটের পাতা শুকিয়ে গুঁড়ো করে খাওয়ানো হতো। পাট পাতার ভেষজ গুণ আছে। এই চা ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য উপকারী হবে। আমরা এরই মধ্যে এটা বাজারজাত করার সব ধরনের জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অনুমোদন পেয়েছি।’’


''প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে এই প্রকল্পে কাজ করছি''


প্রকল্পের উপদেষ্টা ইসমাইল হোসেন খান বলেন, ‘‘পাটের পাতা থেকে পানীয় (সবুজ চা) উৎপাদনের এই উদ্যোগ সরিষাবাড়ী থেকে শুরু হলো। এ চা শুধু বাংলাদেশেই পান করা হবে না, দেশের বাইরেও রপ্তানি হবে। চলতি বছরের শেষদিকে ভবন নির্মাণ শেষ হলে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে সবুজ চা উৎপাদন শুরু হবে।’’


তবে সোমবার তিনি ডয়চে ভেলের সঙ্গে টেলিফোনে এই চা নিয়ে বিস্তারিত কিছু বলতে রাজী হননি। প্রধানমন্ত্রীর অনুমতি না পেলে বিস্তারিত কিছু বলবেন না জানিয়ে তিনি বলেন, ‘‘বিশ্বে পাট পাতার চা বাংলাদেশেই প্রথম উৎপাদন হচ্ছে। নতুন কারখানায় বড় আকারে উৎপাদনে যেতে কমপক্ষে দু'বছর লাগতে পারে। আমি প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে এই প্রকল্পে কাজ করছি। আমিই এর উদ্ভাবক।’’


জানা গেছে, তোষা পাটের পাতা থেকে প্রস্তুত এই চা স্বাদে ভালো। তবে দুধ মিশিয়ে এই চা পান করা যাবে না। সূত্র : ডয়চে ভেলে


বিবার্তা/হুমায়ুন/মৌসুমী

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com