মেজর সিনহা নিহতের ঘটনায় মাঠে নেমেছে তদন্তকারী দল
প্রকাশ : ০৪ আগস্ট ২০২০, ১৮:৫২
মেজর সিনহা নিহতের ঘটনায় মাঠে নেমেছে তদন্তকারী দল
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

কক্সবাজারের টেকনাফের শামলাপুরে পুলিশের গুলিতে সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান নিহতের ঘটনায় মাঠে নেমেছে তদন্তকারী দল।


স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের গঠিত তদন্তদলের প্রধান চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান জানিয়েছেন, আগামী সাত দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার চেষ্টা করা হবে। মঙ্গলবার (৪ আগস্ট) সাড়ে ৩টায় কক্সবাজার হিলডাউন সার্কিট হাউজে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি এ কথা জানান।


মিজানুর রহমান বলেন, দীর্ঘ বৈঠকে তদন্তদলের সদস্যরা ঘটনার ব্যাপারে বিস্তারিত আলাপ-আলোচনা করেছেন। এতে তদন্তদলের নির্দিষ্ট কর্ম-পরিকল্পনা তথা কর্মপরিধি নির্ধারণ করা হয়েছে। এ অনুযায়ী কমিটির সদস্যরা ঘটনার তদন্তের স্বার্থে ঘটনাস্থলসহ মাঠ পর্যায়ে যেখানে যাওয়া দরকার সেখানে পরিদর্শন করবে। এ ছাড়া প্রত্যক্ষদর্শীসহ যাদের দরকার তাদের সঙ্গে কথা বলবে তদন্তদল।


বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সশস্ত্র বিভাগে কর্মরত সেনাবাহিনীর রামু ১০ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি ও কক্সবাজার এরিয়া কমান্ডারের মনোনীত প্রতিনিধি লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোহাম্মদ সাজ্জাদ, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মনোনীত প্রতিনিধি অতিরিক্ত ডিআইজি (অপরাধ ও অপারেশন) মো. জাকির হোসেন এবং কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ শাহজাহান আলি।


এদিকে মেজর (অব.) সিনহা নিহতের ঘটনায় প্রকৃত তথ্য উদঘাটন ও নিরপেক্ষ তদন্তের স্বার্থে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠনে আইনি নোটিশ দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্র সচিব ও আইন সচিবকে এ আইনি নোটিশ দেন ন্যাশনাল ‘ল’ ইয়ার্স কাউন্সিলের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জুলফিকার আলী জুনু।


আইনি নোটিশে বলা হয়, জাতীয় পত্রিকা থেকে প্রাপ্ত সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি যে, দেশের একজন সাবেক সেনা কর্মকর্তা পুলিশের গুলিতে বিচারবহির্ভুত হত্যার শিকার হয়েছেন। পুলিশের ভাষ্য, শুক্রবার (৩১ জুলাই) রাত ৯টার দিকে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের টেকনাফের বাহারছড়া শামলাপুর তল্লাশি চৌকিতে পুলিশের গুলিতে সিনহা মো. রাশেদ খান নিহত হন। জেলা পুলিশ জানিয়েছে, এদিন সাবেক ওই সেনা কর্মকর্তা ব্যক্তিগত গাড়িতে করে অপর এক সঙ্গীসহ টেকনাফ থেকে কক্সবাজার যাচ্ছিলেন। মেরিন ড্রাইভ সড়কের বাহারছড়া চেকপোস্টে পুলিশ গাড়িটি থামিয়ে তল্লাশি করতে চাইলে সেনা কর্মকর্তা বাধা দেন। এ নিয়ে তর্ক-বিতর্কের একপর্যায়ে সেনা কর্মকর্তা তার কাছে থাকা পিস্তল বের করলে পুলিশ গুলি চালায়। এতে অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান গুরুতর আহত হন। পরে তাকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। শনিবার সকালে নিহতের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে।


পত্রিকার ভাষ্যমতে এবং নিহত মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খানের সামাজিক মর্যাদা ও পূর্ববর্তী জীবন বৃত্তান্ত থেকে জানা যায় যে, তিনি ছিলেন একজন দেশপ্রেমিক ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন মানুষ। তার বিরুদ্ধে পুলিশ কর্তৃক যে অভিযোগ এনে গুলি করা হয়েছে যা দেশের বিশিষ্টজনের চোখে কাল্পনিক।


পুলিশ কর্তৃক গুলি চালানোর কিছু আইনগত প্রক্রিয়া রয়েছে। পিআরবি ১৫১ বিধি অনুসারে ঘটনাস্থলে ম্যাজিস্ট্রেট উপস্থিত থাকলে ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশেই অধিনায়ক পুলিশ অফিসার আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহারের গুলিবর্ষণ করার আদেশ দিতে পারেন। মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খানের ওপর পুলিশ কর্তৃক গুলি চালিয়ে হত্যার সময় পুলিশ কর্তৃক আরোপিত আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহারের বিধি নিয়ম অনুসরণ করা হয়েছে কিনা? নাকি অপপ্রয়োগের মাধ্যমে সরাসরি গুলি করে হত্যা করা হয়েছে তার একটি নিরপেক্ষ সুষ্ঠু তদন্ত ও ঘটনার মূল রহস্য জনস্বার্থে ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় সরকার কর্তৃক প্রকাশ করা উচিৎ।


বিবার্তা/আবদাল

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com