নার্ভাস ব্রেকডাউন থেকে মুক্তি পাওয়ার সহজ রাস্তা
প্রকাশ : ১০ জানুয়ারি ২০১৯, ১৩:৫৯
নার্ভাস ব্রেকডাউন থেকে মুক্তি পাওয়ার সহজ রাস্তা
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

সময়ের সাথে সাথে বদলে যাওয়া জীবনযাত্রায় স্ট্রেসের পরিমাণ অনেকটাই বেড়েছে। স্ট্রেস বা মানসিক চাপের পরিমাণ বাড়লে স্বাভাবিকভাবেই বাড়বে মানসিক চাপে ভেঙে পড়ার সংখ্যাও।


কোনো বড় কাজ করার আগে, পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা দিত যাওয়ার আগে, পেশার জগতে কোনো কঠিন সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে বা পারিবারিক-সামাজিক সংকটে এই মানসিক চাপ বিরাট আকার নেয় এবং অনেকেরই এতে নার্ভাস ব্রেকডাউন হয়।


জীবনযাত্রার বদলের পর এখন এই নার্ভাস ব্রেকডাউনের সংখ্যা ব্যাপকভাবে বেড়ে গেছে এবং এটি এতটাই বেড়েছে যে, এই সমস্যা অহরহ পড়তে হয় আমাদের। মাথা ঘুরতে থাকে, হৃদস্পন্দন বেড়ে যায়, ঘনঘন বাথরুম ছুটতে হয়- এর সবই নার্ভাস ব্রেকডাউনের লক্ষণ।


তবে সমস্যা যেমন বেড়েছে, তেমনই বিষয়টি নিয়ে সচেতনতাও বেড়েছে। সেই কারণে চিকিৎসাবিদ ও মনোবিদরা এখন পরামর্শ দিচ্ছেন কী করে এই নার্ভাস ব্রেকডাউনের হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।


চটজলদি আরাম পেতে যেমন ওষুধ ব্যবহারের পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা, তেমনই দীর্ঘমেয়াদি ভাবে আরাম পেতে রয়েছে অন্য বেশ কিছু পদ্ধতিতেও। যা একই সাথে তুলনায় অনেক সহজ এবং প্রচলিতও।


তেমনই কয়েকটি পদ্ধতি নিম্নে দেয়া হলো:


১. সাফল্যের কথা ভাবুন


নিজের সাফল্যের সময়কার কথা ভাবুন। সেই সব ঘটনা বা পরীক্ষার কথা মনে করুন, যেগুলো আপনি সাফল্যের সাথে পেরিয়ে এসেছেন। চেষ্টা করুন এমন কোনো ঘটনার কথা মনে করতে, যখন আপনি খুব আনন্দে ছিলেন।


২. গেম খেলুন


প্রত্যেকের হাতেই এখন স্মার্টফোন এবং তাতে কোনো না কোনো ভিডিও গেম রয়েছে। মানসিক চাপ খুব বেড়ে গেলে তেমনই কোনো একটা গেমে নিজেকে ব্যস্ত রাখুন। খুব ভালো হয় যদি কোনো স্পিড সংক্রান্ত খেলা (কার রেসিং ধরনের) খেলতে পারেন। চটজলদি নার্ভাস ব্রেকডাউনের হাত থেকে বেরিয়ে আসতে পারবেন।


৩. মজার ভিডিও দেখুন


মোবাইল বা কম্পিউটার থেকে ইন্টারনেট সার্চ করলে খুব সহজেই ফানি স্ট্রিমিং ভিডিও পেয়ে যাবেন। তেমনই কিছু দেখতে শুরু করুন। মানসিক চাপ বা নার্ভাস ব্রেকডাউন সামলাতে তাৎক্ষণিক কাজে লাগবে।


৪. আত্মপ্রেম কমান


নিজেকে নিয়ে কী আপনি খুব গর্বিত? নিজের কাজ, নিজের চেহারা, এর কোনোটা নিয়ে কি আপনার গর্বের শেষ নেই? তাহলে এটা আপনার নার্ভাস ব্রেকডাউনের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। নিজের ইমেজ বা ইগোর প্রতি অল্প আঘাত এলেই আপনি ভেঙে পড়তে পারেন। তাই এই আত্মপ্রেম বা গর্বের বোধটা একটু কমাতে হবে। সেক্ষেত্রে দীর্ঘমেয়াদি হিসেবে উপকার পাবেন আপনি। কোন কোন ক্ষেত্রে আপনি অন্যের দ্বারা উপকৃত, সেটা লিখে রাখার অভ্যাস করুন। এতে এই গর্ববোধটা কমে।


৫. শরীরের খেয়াল


শরীরের খেয়াল রাখতে হবে আপনাকে। নিয়মিত যোগাসন বা তাইচি সাহায্য করে মন ভালো রাখতে। অবিলম্বে এর কোনো একটার সাথে যুক্ত হন। নার্ভাস সিস্টেমের উপকার হবে। শরীর ফুরফুরে হবে। খুব অল্প চাপেই যাতে ভেঙে না পড়েন, শরীর তার জন্য নিজেকে তৈরি করে নেবে। আর এর পাশাপাশি লক্ষ্য রাখুন, যেন পর্যাপ্ত বিশ্রাম পান। সূত্র: ওয়ান ইন্ডিয়া


বিবার্তা/জাকিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com