থেমে যাক বয়সের চাকা
প্রকাশ : ২২ নভেম্বর ২০২০, ১৯:০৬
থেমে যাক বয়সের চাকা
অনামিকা রায়
প্রিন্ট অ-অ+

আঠারোতে তো অধিকাংশের ত্বকই ঈর্ষণীয়। তখন থেকেই শুরু করতে হবে ত্বকের দেখভাল। তবেই আটচল্লিশেও জেল্লা অনেকখানি বজায় থাকবে। আর যদি ভাবেন, এখন থাক পরে শুরু করব। ভুল করবেন। চামড়ায় জাঁকিয়ে বসবে বয়স আর সময়। তখন কিন্তু ঔজ্জ্বল্য ফিরিয়ে আনা বেশ মুশকিল।


কিন্তু সত্যিই কি শরীরের ঘড়িটাকে এক জায়গায় থামিয়ে দেয়ার কোনো উপায় আছে? আর সেই পদ্ধতিগুলি কি সবই কৃত্রিম, কষ্টকর? রূপবিশেষজ্ঞরা বলছেন, ‘এজিং’ জৈবিক প্রক্রিয়া। সেটিকে পুরোপুরি থামানো হয়তো যায় না। তবে ক্যামেরা বা আয়নার চোখে বয়স ফাঁকি দেয়ার কিছু কৌশল আছে। স্বাভাবিক উপায়ে, নিয়মিত রূপচর্চা ও জীবনাভ্যাসে কিছু শৃঙ্খলা মেনে চলুন। ত্বকের তারুণ্যের মেয়াদ বাড়বে। ত্বকে কত দিনের মধ্যে বয়সের দাগ পড়বে, তা প্রথম যৌবনেই ঠিক হয়ে যায়। কারণ তা নির্ভর করে যত্নের উপরে। তাই-ই কম বয়স থেকেই ত্বকের যত্ন শুরু করুন।


দূষণের সংস্পর্শে এসে ত্বক দ্রুত বিবর্ণ ও শিথিল হয়, কুঁচকে যায়। ডার্ক স্পট দেখা দেয়। তাই বাইরে বেরোলে যতটা সম্ভব শরীর ঢেকে রাখবেন। যে অংশ বাইরে বেরিয়ে থাকবে, সেখানে ওয়াটার রেজ়িস্ট্যান্ট এবং এসপিএফ যুক্ত সানস্ক্রিন লাগান। বাড়ি এসে ভাল ভাবে স্নান করে নিন। মেকআপ লাগালে খুব ভাল ভাবে পরিষ্কার করবেন।


ত্বকের ক্লেনজ়িং, টোনিং, সেরাম ও ময়শ্চারাইজ়িং-এর রুটিন মানার সময়ে ত্বকের প্রতি যত্নশীল হন। জোরে ঘষবেন না। কোমল ভাবে ক্রিম লাগাবেন। প্রত্যেক দিন স্ক্রাব করবেন না। বদলে স্পঞ্জ দিয়ে মুখ মুছে নিন। আঙুলের আলতো স্পর্শে বৃত্তাকার ভাবে, আপওয়ার্ড স্ট্রোক-এ ক্রিম মাসাজ করুন।


ঘেমে গেলেই ভাল করে মুখ পরিষ্কার করবেন। এসি-তে থাকলে ঘন ময়শ্চারাইজ়ার ও বডি লোশন মাখা জরুরি।


স্বাস্থ্যকর খাবার, নিয়মিত ব্যায়াম ও পর্যাপ্ত বিশ্রামের রুটিন মেনে চলুন। শরীরের উপর অত্যাচার করলে আগেভাগেই বয়স্ক দেখাবে। স্ট্রেসে লাগাম টানার চেষ্টা করুন।


ভুরু কোঁচকানোর অভ্যেস নিয়ন্ত্রণে রাখুন। এতে কপালে ভাঁজ পড়ে। বালিশে মুখ গুঁজে শোবেন না। ত্বকে চাপ পড়ে কুঞ্চন আসতে পারে।


কোনো প্রসাধনী, ক্রিম বা লোশন লাগিয়ে যদি মনে হয় গরম লাগছে, ত্বক জ্বলছে, ওটি আর ব্যবহার করবেন না।


২২ বছর বয়সের পর নিয়মিত ফেসিয়াল, ফেস মাসাজ ও নাইট ক্রিম ব্যবহার করে ত্বকের যত্ন নিন। ত্রিশ ছুঁইছুঁই হলেই রেটিনল-সমৃদ্ধ অ্যান্টি এজিং প্রডাক্ট ব্যবহার শুরু করে দিন। এই সময় থেকেই আলাদা করে আন্ডার-আই ক্রিম ব্যবহার করতে পারেন।


হয়তো, সময় থাকতে ত্বকের যত্ন করে ওঠা হয়নি। কিন্তু বয়স ঘনাতেই মেনোপজ় হরমোনগুলির সৌজন্যে ত্বকের বলিরেখা, দাগছোপগুলি প্রকট হয়ে উঠেছে। তখন এই এজ স্পটগুলি ঠিক করতে চাইলে, ত্বকে কী সমস্যা হচ্ছে সেটা বুঝে নিতে হবে।


চামড়া ঝুলে আসছে দেখলে, কোলাজেন সমৃদ্ধ ক্রিম বা স্কিন লোশন ব্যবহার করুন। বাইরের জল হাওয়ার প্রভাবেও ত্বকের কোলাজেন তাড়াতাড়ি নষ্ট হয়। ত্বকের উপরের পরতটি পাতলা হয়ে যায়। রেটিনয়েড, কোলাজেন, ভিটামিন সি সমৃদ্ধ প্রডাক্টগুলি এই নষ্ট কোষ মেরামত করতে পারে। স্কিন টাইটনিং বা ফার্মিং প্রডাক্টে এই উপাদানগুলি আছে কিনা, দেখে কিনুন। ব্যবহারের সময় যথা সম্ভব কম ঘষবেন। আলতো চাপড়ে (প্যাট) অ্যান্টি এজিং প্রডাক্ট লাগান।


ডার্ক স্পটে অ্যান্টি এজিং সেরাম লাগান। ত্বকের যেখানে ভাঁজ পড়ছে, সেখানে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট ক্রিম, পেপটাইড বা স্কিন বুস্টার সেরাম লাগাতে পারেন। অতিরিক্ত শুষ্ক ত্বকের ক্ষেত্রে ভিটামিন বি ফাইভ যুক্ত বুস্টার সেরাম কার্যকর। ত্বকের ছিদ্র উন্মুক্ত হয়ে গেলে ‘পোর টোনার’ লাগানো যায়।


ব্যায়াম করুন নিয়মিত। মন শান্ত রাখতে মেডিটেশন করুন। কম তেলমশলা স্বাস্থ্যকর খাবার খান, পরিমাণ মতো জল খান। ঘুমকে অবহেলা করবেন না। সকলের সঙ্গে ভাল সম্পর্ক রাখুন, তাতে মন ভাল থাকবে। এগুলিই তারুণ্যকে ধরে রাখতে সাহায্য করবে।


বিবার্তা/অনামিকা/জাই

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com