অবসর কাটুক আনন্দে
প্রকাশ : ১২ নভেম্বর ২০২০, ১৭:৫৭
অবসর কাটুক আনন্দে
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

পৃথিবীর এই অসুখের সময়ে আমরা পেয়েছি অফুরন্ত অবসর। কারো কারো কাজে কর্মের সুযোগ হলেও অধিকাংশই ঘরে সময় কাটাচ্ছি বিরক্ত নিয়ে। অফিস নেই, বাচ্চাদের স্কুল নেই, কোথাও বেড়াতে যাওয়ার উপায় নেই। সেই একঘেয়েমি এক ঘর। ঘরে থেকে থেকে মন যেন হাঁপিয়ে উঠছে। এই ক্লান্তিকর সময় আমরা ইচ্ছে করলেই আনন্দময় করে তুলতে পারি। তার জন্যে চাই ইচ্ছে আর চেষ্টা। দেখে নেয়া যাক আমরা কীভাবে কাটাতে পারি আমাদের অফুরন্ত অবসর।


বই পড়া:


বই পড়া তো এক আনন্দের বিষয়৷ হোক সেটা গল্পের বই কিংবা অ্যকাডেমিক। আর পড়ার অভ্যাস থাকলে তো কথাই নেই। এই অবসরে প্রিয় কিছু বই পড়ে নিতে পারেন যেগুলো এতদিন কাজের চাপে ছুঁয়ে দেখার অবকাশ মেলেনি।


ভাষা শিখুন:


মাতৃভাষার বাইরে অন্য ভাষা জানাটা একটা আলাদা অর্জন। আর ভাষা জানা থাকলে আপনার তত বেশি সুযোগ আসবে। তাই এই অবসর সময়ে নিজের পছন্দসই কিছু ভাষা শিখতে পারেন।


ঘর গোছানো:


নিজের ঘর কেমন করে সাজাবেন এমন স্বপ্ন হয়তো এতদিন শুধু দেখেই আসছেন অবকাশ পাননি সাজিয়ে তোলার। এই সময়টাতে মনের মত করে সাজিয়ে নিতে পারেন ঘরটি। ব্যস্ততার কারণে আমরা আমাদের বাসস্থানটিকে সঠিকভাবে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে রাখতে পারি না। সেক্ষেত্রে এই সময়টা বেশ কাজের বলতে পারেন। ঘরকে জীবাণুমুক্ত করতে রোজ ঘর পরিষ্কার করতে পারেন।


গার্ডেনিং:


বাগান করতে পারেন এই সময়ে। আর আগে থেকে থেকে থাকলে সেগুলির পরিচর্চা করে অনেকটা ভালো সময় কাটাতে পারেন। ঘরের ব্যালকনিতে টবে লাগানো গাছ অথবা বাড়ির বাগানে থাকা গাছের পরিচর্যা নিন নিজের হাতে। বইপত্র, নেট ঘেঁটে বাগান চর্চা, কোন গাছের জন্য কী সার লাগে, সেসব জেনে নিন।


রান্না করুন:


এই মহামারীর সময়ে বাড়ির বাইরে ভাজাভুজি, ফার্স্ট-ফুড খাওয়া বন্ধ। তাছাড়া বাইরের কেনা খাবার খেয়ে দিন কাটানো ঠিকও হবে না। তাই অবসরে নিজে রান্নার হাতটা ঝালিয়ে নিন। পত্রপত্রিকা, ইউটিউব দেখে নতুন নতুন পদ রাঁধুন। বাড়ির লোকেদের চমকে দিন নতুন কিছু খাইয়ে।


শরীরচর্চা:


সময় কাটানোর বেশ ভালো একটা উপায় হলো শরীরচর্চা। এতে শরীরও ভালো থাকবে সেইসাথে সময়ও কাটবে।


টুকিটাকি কাজ:


বাড়ির বাড়তি জিনিস, বোতল থেকে শুরু করে কার্ডবোর্ড, নিউজ পেপার এসব কাজে লাগিয়ে ঘর সাজানোর জিনিস তৈরি করে ফেলতে পারেন। যারা সেলাই ইত্যাদি হাতের কাজ জানেন, এই সময় চর্চা করুন। সময়ও কাটবে, বাড়িও সাজানো হবে।


নিজের সুপ্ত প্রতিভাকে জাগিয়ে তুলুন। পাশাপাশি বাড়ির ছোট ছেলেমেয়েদের নতুন কিছু শেখান। এই সময় মানুষ যা কিছু চর্চা করবেন, আগামী দিনে সেগুলিই হয়ে উঠবে তাদের চলার পথের পাথেয়।


বিবার্তা/জাই

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com