দূর আকাশ থেকে জানান দেবে ‘আমি আছি’
প্রকাশ : ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৯:১২
দূর আকাশ থেকে জানান দেবে ‘আমি আছি’
শাহনাজ শারমিন
প্রিন্ট অ-অ+

আত্মার কাছাকাছি যে বসবাস করে, সে আত্মার আত্মীয়; বন্ধু বা স্বজন। ‘বন্ধু’ দুই অক্ষরের একটি শব্দ। এ শব্দের মাঝে মিশে আছে যেন পৃথিবীর সব প্রশান্তির ছায়া, নির্ভরতার বিশ্বস্ত নাম। ভালো বন্ধুরা হয় মানুষের সারাজীবনের বন্ধু।


হাজারটা বন্ধু পাওয়া বড় কথা নয়, বড় কথা হচ্ছে যখন পৃথিবীর সব মানুষ বিরুদ্ধে থাকবে তখন বন্ধু পক্ষে থাকবে।


শত্রু তুমি বন্ধু তুমি … তুমি আমার সাধনা … তোমার দেয়া আঘাত আমায় … দেয় যে মধুর বেদনা … তুমি আমার সাধনা … বন্ধু হচ্ছে চাঁদের মতো। চাঁদনী রাতে যেখানেই যাবো, সঙ্গে যাবে চাঁদ। যতদূরেই হোক, দূর আকাশ থেকে জানান দেবে ‘আমি আছি। ঠিক যেনো বন্ধুর হাত ধরে পথ চলা।


আসলে বন্ধুত্ব কোনো সূত্রের মাপকাটিতে মাপা যাবে কিনা মনে হয় না। তবে বন্ধুত্ব হলো ভালবাসার একটি নির্যাস, দুটি মনের আত্মবিশ্বাস,সু-সময় কিংবা অসময়ের সঙ্গী। বন্ধুত্ব কখনও হারায় না... হারিয়ে যায় সেই মানুষটি যে বন্ধুত্বের মূল্য দিতে পারে না।


প্রকৃত বন্ধু হলো সে যিনি অপর বন্ধুর দুঃখে সমব্যাথী হয়, সুখকে সমানভাবে ভাগ করে নেয়। বন্ধুত্ব কোনো সূত্রের মাপকাঠিতে মাপা যায় না। যে কথাগুলো গুরুজন বা পিতা-মাতাকে বলা যায় না সে কথাগুলো আমরা প্রাণ খুলে বন্ধুর কাছে প্রকাশ করি।


আজ জানবো ভালো বন্ধু চিনে নেয়ার কয়েকটি উপায়। আশা করি এগুলো ভালো বন্ধু খুঁজে নিতে আপনার সহায়ক হবে।


সততা


যে কোন সম্পর্কেই সততা অনিবার্য। তবে বন্ধুত্বে তার গুরুত্ব যেন আরো বেড়ে যায়, কারণ বন্ধুটির হাতে অবচেতন ভাবেই নিজেরে দায়িত্ব অর্পণ করি আমরা। তাই যে বন্ধু আপনাকে ভালো খারাপের ফারাক বোঝাতে কঠিন হতে পারে তাকে নির্দিধায় সৎ বন্ধু বলা যায়।


আপনাকে নিয়ে গর্বিত


শুধু ভালোটা নেবে কিন্তু খারাপটা নয় এ কেমন বন্ধুত্ব। বন্ধুতো হবে সেই, যে ভালোর পাশাপাশি আপনার খারাপের মাঝেও ভালোটাকে খুঁজে নেবে। আপনার ভুলগুলোকে ভালোতে পরিবর্তন করতে সাহায্য করবে। যে কিনা লজ্জিত নয়, আপনাকে নিয়ে গর্ব করবে।


একা ছেড়ে দেবে না


দুঃসময়ের বন্ধুই সত্যিকারের বন্ধু, কথাটা আজ কোন নতুন কিছু নয়। তাই পিকনিক, পার্টি, হৈ হুল্লোরের চেয়ে খারাপ সময়ে পাশে দাঁড়িয়ে থাকা আপনার বন্ধুটিকে গুরুত্ব দিন। হতে পারে সে খানিকটা চুপচাপ কিন্তু আপনার বিপদে সেই সবার আগে কথা বলবে।


যতনেবে ততোটা দেবে


বন্ধুদের মাঝে দেয়া নেয়া বিষোয়টা ঠিক যায় না। তাই বলে সে আপনার কাছ থেকে সুবিধা নিয়েই যাবে অথচ আপনি তার কাছ থেকে কোন সাপোর্ট পাবেন না তা কি করে হয়? বন্ধুর মনতো হবে উদার, সে দেয়ার জন্য থাকবে উদগ্রীব। তাই ভালো বন্ধু সুযোগ পেলেই আপনার জন্য হাত বাড়িয়ে দিবে। সে যতোটা নেবে, তার চেয়েও বেশি দিতে চাইবে।


মর্যাদা রাখবে


মনের কথা বন্ধুকে বলবেন এটাই স্বাভাবিক। তবে বন্ধু যদি সেই কথা নিয়ে দুর্বল সময় আপনাকে কথা শোনায়, কটুক্তি করে তাহলে কীভাবে সে ভালো বন্ধু হলো। একজন ভালো বন্ধু আপনার গোপনীয়তাকে মর্যাদা দেবে। আপনার সম্মানকে নিজের সম্মান ভাববে।


জীবনের কোন মুহুর্তে, কী রকম বন্ধু আপনি পাবেন তা কেউ জানে না। তবে মনের দুয়ার খুলে দেওয়ার আগে বিশ্বাসের স্থানটি তৈরি করুন। হতে পারে সে খুব ভালো একজন মানুষ তবে আপনার বন্ধু হিসেবে নয়। তাই হাজারও বন্ধুর মাঝে, ভালো বন্ধুকে চিনে নিন। হোক তা সংখ্যায় কম। জানেনই তো, ‘দুষ্ট গরুর চেয়ে শুণ্য গোয়াল ভালো’।


বন্ধুর সমর্থন খুব প্রয়োজন


কাউকে বন্ধু হিসাবে মনে স্থান দেওয়ার আগে নিজেকে প্রশ্ন করুন সে সব পরিস্থিতিতে আপনার পাশে থাকবে কি না। মানুষের জীবনে ভালো সময় যেমন আসে, তেমনি খারাপ সময়ও আসে। খারাপ সময়ে বন্ধু যদি আপনার কাঁধে একটু হাত রাখে বা ভালো পরামর্শ দেয় তবে বিপদ কাটিয়ে ওঠা অনেক সহজ হয়ে যায়। বন্ধু যদি আপনার বিপদে সাহায্য না করে, তবে মনে রাখবেন সে আদৌ আপনার বন্ধু ছিল না। যে বন্ধু আপনাকে বিপদে সাহায্য করে না, আজই মোবাইল থেকে তার নাম্বার এবং মন থেকে তার নাম মুছে ফেলুন।


অতিরিক্ত প্রভাব বিস্তারকারি বন্ধুকে না বলুন


আপনার বন্ধু যদি নিজেকে শ্রেষ্ঠ ভাবে এবং সবকিছু আপনার উপর চাপিয়ে দেয় তবে সেটি আপনাদের বন্ধুত্বের জন্য ভয়ংকর ফল বয়ে আনতে পারে। কারণ বন্ধুত্ব এমন একটি বিষয় যে এখানে কেউ শ্রেষ্ঠ নয়। যখন সকল বন্ধুরা মিলেমিশে একটা সিদ্ধান্ত নেয় তখনই কাঙ্ক্ষিত ফলাফলটা বের হয়ে আসে। গভীরভাবে চিন্তা করে দেখুন, বন্ধু যদি আপনার মতামত বা সিদ্ধান্তের কোন মূল্য না দেয় তবে তার থেকে দূরত্ব বজায় রাখাই শ্রেয়।


প্রতারক বন্ধুকে চিনে রাখুন


ভালো বন্ধুরা সবসময় গোপনীয়তা বজায় রাখে এবং কখনই আপনার সাথে মিথ্যা বলবে না। বন্ধুত্বে ঈর্ষার কোন স্থান নেই। কিন্তু অনেক মানুষই বন্ধুর ভালো সহ্য করতে পারে না। তারা সুযোগ খোঁজে কীভাবে বন্ধুর ক্ষতি করা যায়। তারা প্রথম যে কাজটি করে, তা হল একটুখানি সত্যের সাথে অনেকখানি মিথ্যা জড়িয়ে প্রচার করে। এতে তার বন্ধুর সুনামের দারুণ ক্ষতি হতে পারে। তাই কারো সাথে বন্ধুত্বের আগে বোঝার চেষ্টা করুন সে প্রতারক কি না। মনে রাখবেন কিছু বন্ধু হাসিমুখে আপনার পিঠে ছুরি চালাতে পারবে।


অন্যকে উত্ত্যক্তকারী আপনার বন্ধু নয়


যে অন্যকে উত্ত্যক্ত করে মজা পায় তার নামটা আপনার বন্ধুতালিকা থেকে মুছে ফেলুন। অনেক মানুষ আছে যারা সহপাঠী এবং অন্যদেরকে শারীরিকভাবে এবং মানসিকভাবে নির্যাতন করে এক ধরনের পৈশাচিক আনন্দ পায়। এই নির্যাতন ইংরেজিতে বুলিং নামে পরিচিত। নির্যাতনকারিরা নারী পুরুষ কাউকেই সম্মান দিতে জানে না। তাই যে অমানুষগুলো বিনা কারণে অন্যকে কথার বাণে বিদ্ধ করে তাদের বিরুদ্ধে মাথা তুলে দাঁড়ান। ভিকটিমের পাশে থাকার চেষ্টা করুন। উত্ত্যক্তকারি আপনার বন্ধু হলে আজই সম্পর্ক ছিন্ন করুন এবং আর তার মুখের উপর উচিত কথা বলতেও পিছপা হবেন না।


বিবার্তা/শারমিন

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com