তুরস্কের স্থানীয় নির্বাচনে হোঁচট খেল এরদোগানের দল
প্রকাশ : ০১ এপ্রিল ২০১৯, ১৫:২৭
তুরস্কের স্থানীয় নির্বাচনে হোঁচট খেল এরদোগানের দল
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইপ এরদোগানের দল স্থানীয় নির্বাচনে রাজধানী আঙ্কারার দখল হারিয়েছে। ১৬ বছরের ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ের মধ্যে এটিকে তার বড় বিপর্যয় মনে করা হচ্ছে।


এরদোগানের দল জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি (একেপি) ও বিরোধী দল- উভয়ই তুরস্কের সবচেয়ে বড় শহর ইস্তান্বুলের মেয়র পদে জয় লাভ করেছেন বলে দাবি করছে। তবে তুরস্কের নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে ইস্তান্বুলেও বিরোধী দল এগিয়ে রয়েছে।


প্রেসিডেন্ট এরদোগানের দল একেপি'র নেতৃত্বাধীন জোট জাতীয়ভাবে পৌর নির্বাচনে ৫১ শতাংশের বেশি ভোট পেয়েছেন।


দেড় দশক ধরে জনপ্রিয় দলটি প্রতিটি নির্বাচনে জয়লাভ করে। দেশটির অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির কারণেই দলটি জনপ্রিয়তা লাভ করেছিল। এরদোগান এই মেয়র ও ডিস্ট্রিক্ট কাউন্সিল নির্বাচনকে তুরস্কের টিকে থাকার লড়াই হিসেবে অভিহিত করেছেন।


তবে তুরস্কের মুদ্রা লিরার দর পতনের পর অর্থনৈতিক মন্দা দেখা দেয়ায় এই নির্বাচনটিকে এরদোগান ও তার দলের জন্য একটি পরীক্ষা হিসেবেই দেখা হচ্ছে।


রাষ্ট্রীয় সংস্থা আনাদোলু প্রাথমিক ফলাফলের বরাত দিতে জানিয়েছে, ৯৯ শতাংশ ভোট গণনার পর দেখা গেছে যে আঙ্কারার মেয়র পদে বিরোধী দলীয় প্রার্থী মানসুর ইয়াভাস ৫০ দশমিক ৮৯ শতাংশ ভোট পেয়ে জয়লাভ করেছে। একেপি পেয়েছে ৪৭ দশমিক ০৬ শতাংশ ভোট।


ইস্তাম্বুলে নির্বাচনের ক্ষমতাসীন ও বিরোধী দলীয় উভয় প্রার্থীই নিজেকে বিজয়ী দাবি করেছেন। প্রায় সবগুলো ব্যালট গণনার পর দেখা গেছে যে, একেপি প্রার্থী ৪৮ দশমিক ৭০ শতাংশ এবং বিরোধী দলীয় প্রার্থী ৪৮ দশমিক ৬৫ শতাংশ ভোট পেয়েছেন। উভয় প্রার্থীর মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছে।


আনাদোলু প্রকাশিত সর্বশেষ ফলাফলে দেখা গেছে যে একেপি মাত্র ৪ হাজার ভোটে এগিয়ে রয়েছে।


ক্ষমতাসীন দলটি জানিয়েছে, তারা দুটি প্রধান নগরীতে কয়েক হাজার ব্যালটের বৈধতাকে চ্যালেঞ্জ করার পরিকল্পনা করছে। তারা এই ভোটগুলোকে অবৈধ মনে করছে।


আঙ্কারায় কয়েক হাজার সমর্থকের সামনে এরদোগান এই নির্বাচনে একেপিকে বিজয়ী হিসেবে দাবি করেছেন। দলটি ডানপন্থী ন্যাশনালিস্ট মুভমেন্ট পার্টির (এমএইচপি) সাথে জোটবদ্ধভাবে নির্বাচন করেছে। তারা দেশব্যাপী ৫০ শতাংশের বেশি ভোট পেয়েছে।


আঙ্কারায় নিজেদের পরাজয় সম্পর্কে সরাসরি কোনো কিছু উল্লেখ না করে এরদোগান তার সমর্থকদের উদ্দেশে বলেন, এই ভোটে যদি কোনো ধরনের ত্রুটি থাকে, তবে তা সংশোধন করা আমাদের কর্তব্য।


২০২৩ সালে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া জাতীয় নির্বাচনের আগে তুরস্কের অর্থনীতি পুনর্গঠনে মনোযোগ দেবেন বলে দাবি করেন তিনি। সূত্র: এএফপি ও বিবিসি


বিবার্তা/জাকিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com