এনআরসিতে নাম না থাকলে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাবো: বিজেপি
প্রকাশ : ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০:২৪
এনআরসিতে নাম না থাকলে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাবো: বিজেপি
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

ভারতে ক্ষমতাসীন দল বিজেপি এক শীর্ষস্থানীয় নেতা বলেছেন, আসামের চূড়ান্ত নাগরিক তালিকা (এনআরসি) থেকে যাদের নাম বাদ পড়বে তাদের বাংলাদেশেই ‘ডিপোর্ট’ করা হবে।


বিজেপির প্রভাবশালী সাধারণ সম্পাদক রাম মাধব দিল্লিতে এনআরসি বিষয়ক এক আলোচনা সভায় তাদের এই নীতির কথা ঘোষণা করেছেন।


তিনি বলেন, তাদের পরিকল্পনা হল তিনটি ডি- ডিটেক্ট, ডিলিট ও ডিপোর্ট। প্রথম ধাপে অবৈধ বিদেশি কারা, তাদের শনাক্ত করা হবে (ডিটেক্ট), যেটা এখন চলছে। তারপর ভোটার তালিকা থেকে তাদের নাম বাদ দেয়া ও বিভিন্ন সরকারি সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত করার প্রক্রিয়া শুরু হবে (ডিলিট)। আর তারপর আমরা তাদের বাংলাদেশে ডিপোর্ট করবো।


এর আগে বিজেপির শীর্ষ স্তরের কোনো নেতাই এতো স্পষ্টভাবে এনআরসি থেকে বাদ-পড়াদের বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেয়ার কথা বলেননি।


এছাড়া এটা যে তার কোনো ব্যক্তিগত দাবি নয়, বরং বিজেপির ‘সুচিন্তিত মতামত’ সেটাও তিনি সোমবার সভার পর একান্ত আলোচনায় স্পষ্ট করেছেন।


রাম মাধব বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের আশ্রয় নেয়া ও তাদেরকে ফেরত পাঠানোর বিষয়ে মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষের আলোচনার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বলেন, বিশ্বের কোনো দেশই অবৈধ অভিবাসীদের বরদাস্ত করে না। কিন্তু রাজনৈতিক কারণে ভারত অবৈধ অভিবাসীদের ধর্মশালায় পরিণত হয়েছে।


তিনি বলেন, বাংলাদেশ নিজেরাই তো লাখ লাখ রোহিঙ্গাকে মিয়ানমারে ফেরত পাঠাতে সে দেশের সঙ্গে সক্রিয় আলাপ-আলোচনা চালাচ্ছে। সৌদি আরবও সে দেশে থাকা অবৈধ পাকিস্তানি, বাংলাদেশী বা ভারতীয়দের মাঝ মাঝেই ফেরত পাঠায়। কাজেই ডিপোর্ট করার মধ্যে অন্যায় কিছু নেই।


প্রতিবেশী দেশ থেকে নির্যাতিত হয়ে আসা সংখ্যালঘুদের আশ্রয় দেয়া এবং তাদের নাগরিকত্ব দিতে সরকার দায়বদ্ধ বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।


ওই আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন আসামের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়ালও। তিনি বলেন, অবৈধ বিদেশিদের খুঁজতে আসামের পর এবার সারা ভারতেই এনআরসি প্রক্রিয়া চালু করা উচিত।


তিনি আরো বলেন, বৈধ নাগরিকদের নাগরিকত্ব প্রমাণ করার জন্য এবং এনআরসির চুড়ান্ত তালিকায় নিজেদের নাম নথিভুক্ত করার জন্য পর্যাপ্ত সুযোগ দেয়া হবে।


তবে বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব বাংলাদেশে ডিপোর্ট করার কথা পরিষ্কার করে বললেও ভারত সরকার এখনই এ বিষয়ে মুখ খুলতে চাইছে না।


দিল্লিতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রবীশ কুমার এ বিষয়ে বিবিসির এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, আমরা এনআরসি প্রক্রিয়া নিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রেখে চলছি। ভারতের সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে পরিচালিত এই প্রক্রিয়া এখনো শেষ হয়নি এবং খসড়ায় যাদের নাম বাদ পড়েছে তারা যে নিজেদের ভারতীয় নাগরিক প্রমাণ করার আরো অনেক সুযোগ পাবেন সেটাও বাংলাদেশকে জানানো হয়েছে। তাই এই মুহুর্তে এর চেয়ে বেশি কিছু আমাদের বলার নেই।


ভারতে জুলাই মাসের শেষে আসামের এনআরসির যে দ্বিতীয় খসড়া প্রকাশিত হয়েছে, তা থেকে রাজ্যের প্রায় ৪০ লাখ বাসিন্দার নাম বাদ পড়েছে।


সরকার যদিও বলছে, এরা সবাই আবার আপিল করার বা নথিপত্র জমা দেয়োর সুযোগ পাবেন। তারপরেও যদি এনআরসিতে তাদের নাম না-ওঠে, তাহলেও তাদের ফরেনার্স ট্রাইব্যুনালে বা শেষ পর্যন্ত হাইকোর্টে যাওয়ার অবকাশ থাকবে।


কিন্তু এই সব প্রক্রিয়া শেষেও আসামের বেশ কয়েক লাখ লোক অবৈধ বিদেশি হিসেবেই চিহ্নিত হবেন বলে ধরে নেয়া হচ্ছে। সূত্র: বিবিসি


বিবার্তা/জাকিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com