জীবনবোধ...
প্রকাশ : ১৬ জুলাই ২০১৮, ১২:১৩
জীবনবোধ...
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

আজ অফিস যাবার পথে লালদিঘীর পাড়ে একটি দৃশ্য দেখে থমকে দাঁড়ালো আমার মন। মুহূর্তে আনমনা করে দিলো আমাকে। মনের মধ্যে কতো বিষয় যে আনাগোনা শুরু করে দিলো তার কোন ইয়াত্তা নেই।


যখন মনে হলো এই দৃশ্যটা বদলে দিতে পারে অনেকের জীবন, প্রশান্তিতে ভরে দিতে পারে মন, ততক্ষণে গাড়ি চলে গেছে কতোয়ালী মোড়ে। সবিনয়ে ড্রাইভারকে বললাম, আমার একটা ভাল লাগা পাগলামির মূল্য দিতে গাড়িটা ঘুরিয়ে আবার একটু লালদিঘীর পাড়ে যান।


তিনিও হয়তো মনে মনে ভাবলেন, কবিরা একটু পাগল কিছিমেরই হয়। যা হোক যাচ্ছি আবার, আর মনে মনে প্রার্থনা করছি, আল্লাহ এই স্বর্গীয় দৃশ্যটা যেনো আবার দেখতে পাই। পেলামও। Gunman কে দিয়ে ধারণও করালাম।


নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালে যোগদানের পর থেকেই মনটা বিষাদগ্রস্ত হয়ে আছে। এতো অবজ্ঞা, এতো হিংস্রতা, এতো অবহেলা, এতো নির্যাতন, এতো অসম্মান, এতো অসহায়ত্ব দেখে মনটা ভারাক্রান্ত লাগে। মিথ্যা মামলাও যে হয় না, তা নয়। সেগুলোও অনুধাবণের চেষ্টা করি।


তবে একটা অসহায় শ্রেণী সত্যি পড়ে পড়ে মার খাচ্ছে। এর পরিমাণটা যে এতো বেশি, এটা আমার ধারণার বাইরে ছিলো। গর্ভজাত শিশুর পিতৃত্বের দায়ে বাধ্য হয়ে আপসে বিয়ে করছে ধর্ষককে। স্বামী রাখতে চাচ্ছে না, তবুও সংসার করতে চাচ্ছে, যাবার জায়গা নেই, স্বামী ২য় বিবাহ করেছে, কাবিননামা নেই একাধিক সন্তানের পিতৃ পরিচয় জড়িত, অথচ বিবাহের স্বীকৃতি নেই।


এই বিষয়গুলো ভীষণ পীড়া দেয়, নির্যাতনের ভয়াবহতাও মনকে পোড়ায়।


অথচ আজ এই দৃশ্যটা এ সমস্ত যন্ত্রণাদায়ক কষ্ট ভোলায়ে অদ্ভূত একটা সৌন্দর্যে ভরে দিলো মনটা। নিরেট শ্রমজীবি, নিম্ন আয়ের মানুষ। মাথা গোঁজার ঠাঁই নেই, চাল নেই, চুলো নেই, স্বামী-স্ত্রী সন্তানাদি নিয়ে ফুটপাতে বসবাস। কোন ব্যাংক- ব্যালেন্স নেই, প্রাসাদোপম বাড়ি নেই, গাড়ি নেই, দামী কোন শাড়িও নেই, সোনার কোন গহনা নেই, শিক্ষা নেই, দীক্ষা নেই ; আছে প্রবল জীবনবোধ, নিবিড় বুঝাপড়া।


পরিশ্রান্ত স্বামী খালি গায়ে বিদ্যুতের খুঁটির স্তুপের উপর গভীর ঘুমে মগ্ন, আর তার দরদী স্ত্রী পাশে বসে তার মাথায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছে পরম মমতায়। রাস্তায় যানবাহনের বিকট শব্দ, শহুরে প্রচন্ড শোরগোল উপেক্ষা করে প্রখর রোদে স্বামীজী ঘুমুচ্ছেন নির্বিঘ্নে, নিরাপদে।


দরজা নেই, জানলা নেই, ফ্যান নেই, এসি নেই, নেই এপিট ওপিট করার সুযোগ, তবু আছে সীমাহীন প্রশান্তি। এদের জীবনে অসীম চাহিদা নেই, পেট ভরলেই হলো, তাই অন্যের আহার কেড়ে নিয়ে সম্পদের পাহাড় বানানোর ইতর ভাবনা নেই, আছে গভীর তৃপ্তি। আছে পারস্পরিক মমত্ববোধ।


আর সমাজের ধনাঢ্যদের কতো কিছু আছে, শুধু নেই নির্ভেজাল প্রশান্তি, তবে মাঝে মাঝে প্রশান্তির ভান করে বটে, সুখের কৃত্রিম ঢেখুর তুলে বিলাসী খাবারে, পরিবারের কেউ কারো জন্য অপরিহার্য নয়, টাকাই যথেষ্ট, মায়ের হাতের রান্নার স্বাদ-গন্ধের কোন প্রয়োজনই বোধ করে না কেউ, নামীদামী রেস্টুরেন্টেই সব চলে, অসীম চাহিদার পেছনে ছুটতে ছুটতে তারা ভুলে যায় পারিবারিক নিবিড় বন্ধনের কথা, নাড়ির কথা, সূক্ষ্ণ জীবনবোধের কথা।


এটা বুঝতে চায় না যে, সুখ শুধু বিত্তবৈভবেই থাকে না, প্রাসাদোপম অট্টালিকায়ই থাকে না, প্রকৃত সুখ থাকে মানুষের মনে, যে কোন অবস্থানে, যদি কেউ সুখে থাকতে জানে।


জান্নাতুল ফেরদৌস আলেয়ার ফেসবুক থেকে...


বিবার্তা/জাকিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com