রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান : একটি প্রস্তাব
প্রকাশ : ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ১৫:৩৮
রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান : একটি প্রস্তাব
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

আমি ঠিক বুঝতে পারছি না ব্যাপারটা। বাংলাদেশে কি শরণার্থী বিষয়ক কোনো বিশেষজ্ঞ নেই, যারা পুরো ব্যাপারটা দেশের মানুষের কাছে তুলে ধরবেন?


আমি নিজেকে বিশেষজ্ঞ দাবি করছি না, তবে আমি আমার অনার্স, মাস্টার্স ও পিএচডি থিসিস শরণার্থীদের ওপর করেছি। সেই অভিজ্ঞতা থেকে খুব অল্প কথায় ব্যাপারটা তুলে ধরছি।


মিয়ানমার থেকে যে মানুষগুলো প্রাণভয়ে পালিয়ে আসছে, বাংলাদেশ শেষ পর্যন্ত তাদের আশ্রয় দেবে। কারণ, প্রথমত জাতিগতভাবে আমরা এতোটা অমানবিক নই। দ্বিতীয়ত, মানুষগুলো যখন প্রাণভয়ে চলেই আসছে, তাই মানবিকতার খাতিরে হলেও তাদের আশ্রয় দেয়ার ব্যাপার থেকেই যায়।


এখন প্রশ্ন হচ্ছে, এই এতোগুলো মানুষকে আশ্রয় দেয়ার মতো সামর্থ্য আমাদের আছে কি-না? কিংবা থাকলেও আমরা একাই কেন এর দায়ভার বহন করবো?


তাহলে সামাধান কি?


জাতিসংঘের একটা সংস্থা আছে - ইউএনএইচসিআর। এরা শরণার্থীদের নিয়ে কাজ করে। ইউইনএইচসিআরের আওতায় শরণার্থীদের রি-সেটেলমেণ্ট প্রক্রিয়া বলে একটা ব্যাপার চালু আছে। ব্যাপারটা আরেকটু পরিষ্কার করি।


এই যে হাজার হাজার সিরিয়ান শরণার্থী তুরস্ক কিংবা আশপাশের দেশে আশ্রয় নিয়েছিলো; তাদের অনেককে এরপর জাতিসংঘের এই সংস্থার মাধ্যমে ইউরোপ-আমেরিকায় স্থানান্তর করা হয়েছে বা হচ্ছে। এ ধরনের শরণার্থীদের বলা হয় রি-সেটেল্ড শরণার্থী। অর্থাৎ এরা প্রথমে প্রাণভয়ে আশপাশের দেশে গিয়ে আশ্রয় নেয়, এরপর জাতিসংঘের মাধ্যমে পৃথিবীর অন্যান্য দেশে আশ্রয় পায়।


এছাড়া বিভিন্ন দেশের মাঝে শরণার্থী বিষয়ক চুক্তিও হতে পারে। এই যেমন সিরিয়ান শরণার্থী বিষয়ে ইইউ'র সঙ্গে তুরস্কের আলাদা একটা চুক্তি আছে।


এখন যেহেতু আমাদের এই রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতেই হচ্ছে, তখন সরকারের মূল কাজ হবে বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে নিয়ে জাতিসংঘ ও অন্যান্য দেশের সঙ্গে চুক্তি করা। অন্তত রি-সেটেল্ড রিফিউজি কোটায় এই রোহিঙ্গারা যাতে অন্যান্য দেশে আশ্রয় পায়।


এছাড়া দ্বিপাক্ষিক চুক্তিও হতে পারে অন্যান্য দেশের সঙ্গে, যাতে অন্তত অর্ধেক কিংবা একটা মোটামুটি সংখ্যার রোহিঙ্গা শরণার্থীকে অন্য কোথাও স্থানান্তর করা যায়।


এই কাজটি ঠিক এই মুহূর্তেই করতে হবে। কারণ, এটি এখন বিশ্ব মিডিয়ায় স্থান পাচ্ছে। ভুলে গেলে চলবে না, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এই মুহূর্তে পৃথিবী সবচাইতে ভয়াবহ শরণার্থী সমস্যার মাঝ দিয়ে যাচ্ছে। আমার মনে হয়, বাংলাদেশ সরকারের উচিত হবে এখনই এই ব্যাপারটাকে গুরুত্বের সঙ্গে নেয়া।


আমিনুল ইসলামের ফেসবুক থেকে


বিবার্তা/মৌসুমী/হুমায়ুন

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com