‘আমার লাশটাও আওয়ামী লীগকেই সমর্থন দিবে’!
প্রকাশ : ২৮ অক্টোবর ২০২২, ২২:০৮
‘আমার লাশটাও আওয়ামী লীগকেই সমর্থন দিবে’!
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

আগামীকাল রংপুরে বিএনপি'র বিভাগীয় মহাসমাবেশ।
একই দিনে ঢাকার পুরাতন বাণিজ্যমেলা মাঠে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ঢাকা জেলা সম্মেলন।
বলা হচ্ছে রংপুর বিভাগে শ্রমিক ইউনিয়নের ডাকে পরিবহন ধর্মঘট চলছে। বিএনপি'র খুলনা মহাসমাবেশের আগেও এমন ঘটনা ঘটেছিলো!
যাইহোক, এই ধর্মঘটের মাঝেও আগামীকাল রংপুরের বিএনপি'র বিভাগীয় মহাসমাবেশে যোগদান উপলক্ষ্যে রংপুর বিভাগের আটটি জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বিএনপি'র নেতাকর্মী ও সমর্থকেরা আজ দুপুর থেকেই সমাবেশস্থলে জড়ো হতে শুরু করেছে। একাত্তর টিভিতে এমনই একটি প্রতিবেদন দেখলাম।
ব্যাপারটি এমন হওয়ায় স্বাভাবিক।
ধরুন, আজ যদি বিএনপি'র জায়গায় 'বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ' থাকতো তাহলে আমরা যারা আওয়ামী লীগের নিবেদিতপ্রাণ কর্মী তাদেরকে কোন বাধা দিয়েই আপনি ঠেকিয়ে রাখতে পারতেন না।
যদিও বলা হচ্ছে শ্রমিক ইউনিয়নের তরফ থেকেই পরিবহণ ধর্মঘট ডাকা হয়েছে তারপরও সাধারণ ও সচেতন নাগরিকদের (বিএনপি'র নেতাকর্মী ও সমর্থকদের কথা নাহয় বাদই দিলাম) অনেকেই এটা মানতেই চাচ্ছেন না, তাদের ধারণা এই পরিবহণ ধর্মঘটের পেছনে সরকার ও প্রশাসনের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ইন্ধন আছে।
একাত্তর নিউজের প্রতিবেদনে দেখলাম রংপুরের পরিবহণ শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদকের কাছে যখন এই পরিবহন ধর্মঘটের কারণ জানতে চাওয়া হয়েছিলো তখন তিনি বলেছেন যে তিনি এই ধর্মঘটের কারণ জানেন না!
আশা করি,
বুঝতেই পারছেন সাধারণ সচেতন নাগরিক ও ভোটারদের কাছে কি মেসেজ যাচ্ছে।
সাধারণ নাগরিকেরা ধরেই নিচ্ছে,
বিএনপির মহাসমাবেশগুলোতে জনসমাবেশ যেন পর্যাপ্ত আকারে না হয় সেইজন্যই এই ধরনের অপকৌশল নেওয়া হচ্ছে।
আমি আওয়ামী লীগের কর্মী।
আমার লাশটাও আওয়ামী লীগকেই সমর্থন দিবে!
কিন্তু যারা আওয়ামী লীগ -বিএনপি বুঝে না সেইসব ভোটারদের কাছে এমন 'হটকারি মেসেজ' দেওয়াটা কি খুব জরুরি ছিলো?
এতে কি আদৌ কোন লাভ হচ্ছে?
বিএনপি'র নিবেদিত কর্মীসমর্থকদের কি আদৌ আটকানো যাচ্ছে?
বরং যদি কোন বাধা না থাকতো তাহলে কালকের সমাবেশে যোগ দেওয়ার জন্য হয়তো আজ দুপুর থেকেই বিএনপি'র নেতাকর্মীরা সমাবেশস্থলে জমায়েত হওয়ার জন্য এতোটা তাড়না পেত না,
যদি কোন বাধা না থাকতো তাহলে হয়তো বিএনপির নেতাকর্মীরা সমাবেশে যোগ দিতে এতোটা মরিয়া হয়ে উঠতো না।
বাস্তবতা হলো, এই ধরনের রাজনৈতিক প্রোগ্রাম যতই বাধাগ্রস্ত হয় ততই বরং খরস্রোতা হয়।
এটা প্রায় নিশ্চিৎ করেই বলা যায় যে,
বিএনপির মহাসমাবেশগুলোতে লাখ লাখ লোকের সমাবেশ না হলেও যেটুকু হচ্ছে মৃতপ্রায় বিএনপি'র কাছে সেটুকুই অনেক অনেক বেশী এবং এইসব মহাসমাবেশ থেকে যে শক্তি ও মনোবল বিএনপি'র নেতাকর্মী ও সমর্থকেরা পাচ্ছে তা প্রায় বিলীন হয়ে যাওয়া বিএনপিকে পুনরুজ্জীবিত করতে যথেষ্ট ভূমিকা রাখছে।
আগামীকাল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ঢাকা জেলা সম্মেলন উপলক্ষ্যে আমাদের আওয়ামী লীগের জাতীয় নেতৃবৃন্দ ঘোষণা দিয়ে বলেছেন আওয়ামী লীগের এই জেলা সম্মেলনে যে গণজমায়েত হবে তা বিএনপি'র বিভাগীয় সমাবেশের চেয়েও বেশী হবে।
তা হয়তো হবেও কারণ আমরা এখন ক্ষমতায় আছি, ক্ষমতায় থেকে অনেক কিছুই করা যায় যেখানে স্বার্থ থাকে কিন্তু স্ব-ইচ্ছা থাকে না।
ব্যাপারটা একটু ভেঙে বলি।
ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতির সাথে সরাসরি যুক্ত থাকার সুবাদে দেখছি ক্ষমতায় আসার আগে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সমাবেশগুলোতে যে জনসমাবেশ হতো সেগুলো ছিলো একেবারে জেনুইন, যত বাধাই থাকুক এইসব সমাবেশে প্রতিটা নেতাকর্মী ও সমর্থকেরা পুরোটা প্রাণ দিয়েই অংশ নিতো এবং তীর্থের কাকের মতো নেত্রীর বক্তব্যের জন্য অপেক্ষা করতো এবং নেত্রীর বক্তব্য শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত কেউই সমাবেশস্থল ত্যাগ করতো না।
দল ক্ষমতায় আসার পর দেখলাম চিত্র পাল্টানো শুরু হলো, নেত্রীর সমাবেশগুলোতে আগের চেয়ে লোকসমাগম বাড়তে থাকলো কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে লক্ষ্য করা শুরু করলাম যে এই সমাবেশের একটা বিরাট অংশ সমাবেশস্থলে ঢুকে কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকেই সমাবেশস্থল থেকে কেটে পড়া শুরু করে এমনকি নেত্রীর বক্তব্য শুরু হওয়ার আগেই কিংবা নেত্রীর বক্তব্য শেষ হওয়ার আগেই তারা সমাবেশস্থল ত্যাগ করে!
এই বিরাট অংশটি কারা?
এরা কি আদতেই আওয়ামী লীগের কর্মী?
নাকি ভাড়া খাটা অ-আওয়ামী লীগের কেউ?
আওয়ামী লীগের কেউ হলে তো নেত্রীর বক্তব্যের আগে সমাবেশস্থল ত্যাগ করার কথা না!
সেজন্যই বলছিলাম, ক্ষমতায় থাকলে মিছিল সমাবেশে জমায়েত ঘটানো যতোটা না চ্যালেঞ্জ তার চেয়েও বেশী চ্যালেঞ্জ ক্ষমতার বাইরে থেকে মিছিল সমাবেশে জমায়েত ঘটানো।
ক্ষমতায় থেকে একলাখ জমায়েত ঘটানো যতোটা সহজ ক্ষমতার বাইরে থেকে পঁঞ্চাশ হাজার জমায়েত ঘটানোও তার চেয়ে কঠিন!
তাই বলছি, বিভিন্ন ছলছুতোয় তাদেরকে বাধা দিয়েন না বরং ছেড়ে দিন, দেখবেন জমায়েত এমনিতেই কমে যাবে!
অন্যদেরকে বাধা দিয়েন না বরং নিজেদের সাংগাঠনিক শক্তির ওপর আস্থা রাখুন।


আতিকুজ্জামান ফিলিপ
সহ-তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক at স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ


বিবার্তা/জেএইচ


সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com