আজ প্রেমের জানালা খুলেছি
প্রকাশ : ০৯ নভেম্বর ২০১৯, ০৯:৩২
আজ প্রেমের জানালা খুলেছি
পীর হাবিবুর রহমান
প্রিন্ট অ-অ+

আজ প্রেমের জানালা খুলেছি, আমার মতে প্রেম হলো সরল মনের গভীর অনুভূতির টান আবেগ ও আকর্ষণ, ইচ্ছের বিরুদ্ধেও সেই টান টেনে আনে, টেনে নিয়ে যায়, বিরক্ত হলেও টানে, কারণে অকারণে টানে।


আজকাল অস্থির সমাজের ঘটনা প্রবাহ নিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিলে আপনজনরা বাধা দেন। আমার মঙ্গল কামনা করেই দেন, কিন্তু আমার বিরক্ত লাগে। ব্রাইটনের বড় ভাই মহি ভাই কিছুক্ষণ আগে কিছুটা বয়ান দিলেন। বললেন, সমাজ গোল্লায় যাক। নিজের সুস্থ্যতা ও বেঁচে থাকা জরুরি।


সকালে নিউইয়র্ক থেকে উনার ছোট ভাই আমাদের ছেলেবেলার বন্ধু সাব্রী সাবেরীন ইনবক্সে মজার কমেন্ট পাঠিয়েছেন। তারা দুই ভাই, তরুণ বয়সে আমাদের শহরের রোমান্টিক প্রেমিক মুখ ছিলেন। মহি ভাই’র প্রাপ্তিযোগ কেমন জানি না। কিন্তু সাবেরীন যে কপালে প্রেমের রাজটীকা নিয়ে এসেছিল, এ নিয়ে দেশবিদেশে থাকা বন্ধুদের বুক পুড়ে ঈর্ষার অনলে।


সাবেরীন লিখেছে, স্ট্যাটাসে ‘ব্যক্তিগত ব্যথা, বিশ্বাসঘাতকতা ও প্রতারণা বেদনা ভুলে অবচেতন মনে কাউকে নাকি ক্ষমা করে দিয়েছি’। সাবেরীন মতিহারের অকাল প্রয়াত কবি দাউদ হায়দারের কবিতার লিরিকও উল্লেখ করেছেন। মতিহারের কবিতার নায়ক দাউদ হায়দার লিখেছিলেন, ‘যে আমারে দুঃখ দিল, সে যেন আজ সুখেই থাকে’।


প্রেম নিয়ে মহি ভাই ও সাবেরীন অগাধ জ্ঞান রাখেন। আমার প্রেমের কপাল নয়। আমি না প্রেমিক না বিপ্লবী। জগৎবিখ্যাত লেখক ও প্রেমিকদের জীবন ও বাণী যতটা পাঠ করেছি ততটাই মুগ্ধ হয়েছি। বড় ভাই আর বন্ধুদের প্রেম উপভোগ করেছি। নিজের কপালে এ জনমে কিছু জুটেনি।


আমাদের তারুণ্যে রবীন্দ্রনাথের শেষের কবিতার লাবণ্য যেমন টেনেছে, তেমনি সুনীলের রহস্যময় সৃষ্টি নীরাও ভাবিয়েছে। পূর্ণেন্দুপত্রীর কথোপকথন থেকে মহাদেব সাহার চিঠির আকুতি হৃদয় স্পর্শ করেছে। কবি নজরুলের ফজিলাতুন্নেছাকে নিয়ে লেখা মোতাহার হোসেনের কাছে আবেগঘন চিঠি কিংবা স্ত্রীর কাছে জেলখানায় বসে কবি নাজিম হিকমতের বহুল আলোচিত জেলখানার চিঠি হৃদয় মন তোলপাড় করেছে। বাঙালি মৈত্রেয়ী দেবী ও বিদেশি মির্চা এলিয়াদের অমর প্রেমের উপন্যাস ‘বাংলার রাত’ ও ‘নহন্যতে’ আমাদের মন আলোড়িত করেছিল।


জগতে আমাদের শ্রেষ্ট মানবতাবাদী বাঙালি কবি ও লেখক নিয়ত যার পরম আশ্রয়ে যাই সেই কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকেই আমার সবসময় প্রেমের রাজা মনে হয়েছে। আজ তাই দেশ, রাজনীতি ও সামাজিক অস্থিরতা অবক্ষয় নয়, প্রেম নিয়েই কিছুটা ভাবি। রুদ্রের মত বলি, ‘অভিলাষী মন চন্দ্রে না-পাক জ্যোৎস্নায় পাক সামান্য ঠাঁই, কিছুটা তো চাই, কিছুটা তো চাই’।


প্রেম নিয়ে বিখ্যাতদের যতো কথা


কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর প্রেম নিয়ে বলেছেন, ‘ক্ষমাই যদি করতে না পারো, তবে তাকে ভালোবাস কেন? আনন্দকে ভাগ করলে দুটি জিনিস পাওয়া যায়, একটি হচ্ছে জ্ঞান অপরটি হচ্ছে প্রেম’।


কবি নজরুল বলেছেন, ‘তোমারে যে চাহিয়াছে ভুলে একদিন, সে জানে তোমারে ভোলা কী কঠিন’। লালন সাইজি বলেছেন, ‘কলঙ্ক না লাগে যদি ভালোবেসে, লাগে কি ভালো? প্রেমের কি স্বাধ আছে বলো নিন্দার কাঁটা যদি না বিঁধিল গায়ে।’ মরমি কবি হাছন রাজা বলেছেন, ‘আহারে সোনালী বন্ধু শুনিয়া যাও মোর কথারে, হাছন রাজার হৃদকমলে তোমার চাঁন্দমুখ গাঁথারে’।


শংকর বলেছেন, ‘যৌবনে যার প্রেম হলো না তার জীবন বৃথা।’ শংকর আরো বলেছেন, ‘চিঠি লেখার প্রতিভা সবচেয়ে বিকশিত হয় প্রেমে পড়লে। প্রেমপত্র তাই সব দেশে এত আদরের’।


দস্তয়োভস্কি বলেছেন, ‘তোমার হৃদয়ের যতটা আমাকে দিতে পারো, তার বেশি তো আমি চাইতে পারি না’। চিলির মহান নেতা আলেন্দের সহযাত্রী নোবেল বিজয়ী পাবলো নেরুদা বলেছেন, ‘হাসো ঐ বোকা ছেলেটিকে নিয়ে যে তোমাকে ভালবেসে অসহায়।’


রবীন্দ্রনাথ আরো বলেছেন, ‘পৃথিবীতে বালিকার প্রথম প্রেমের মত সর্বগ্রাসী প্রেম আর কিছু নাই। প্রথম যৌবনে বালিকা যাকে ভালোবাসে তাহার মত সৌভাগ্যবানও আর কেহই নাই। যদিও সে প্রেম অধিকাংশ সময় অপ্রকাশিত থেকে যায় কিন্তু সে প্রেমের আগুন সব বালিকাকে সারা জীবন পোড়ায়’।


শরৎচন্দ্র বলেছেন, ‘বড় প্রেম কাছেই টানে না, দূরেও ঠেলিয়া দেয়’। টেনিসন বলেছেন, ‘ভালোবাসা যা দেয়, তার চেয়ে বেশি কেড়ে নেয়’। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় বলেছেন, ‘আমার ভালবাসার কোন জন্ম হয় না, মৃত্যু হয় না। কেননা আমি অন্যরকম ভালোবাসার হীরের গয়না শরীরে নিয়ে জন্মেছিলাম’।


সমরেশ মজুমদার বলেছেন, ‘ছেলেরা ভালবাসার অভিনয় করতে করতে যে কখন সত্যি সত্যি ভালবেসে ফেলে তারা তা নিজেও জানে না। মেয়েরা সত্যিকার ভালবাসতে বাসতে যে কখন অভিনয় শুরু করে তারা তা নিজেও জানে না’। আইনস্টাইন বলেছেন, ‘ভালবাসায় পতনের জন্য কোনভাবেই আমরা মহাকর্ষ--অভিকর্ষকে দায়ী করতে পারি না’।


বঙ্কিমচন্দ্র বলেছেন, ‘যাকে ভালবাস তাকে চোখের আড়াল করো না’। মিল্টন বলেছেন, ‘ভালবাসা হৃদয়ের দরজা মুহুর্তে খুলে দেয়’। জর্জ হেইট বলেছেন, ‘গভীর ভালবাসার কোনো ছিদ্রপথ নেই’। কার্লাইল বলেছেন, ‘অন্ধভাবে কাউকে ভালবাসলে তার ফল শুভ হতে পারে না’। দার্শনিক প্লেটো বলেছেন, ‘প্রেম হল মানসিক ব্যাধি’।


জালাল উদ্দিন রুমি বলেছেন, ‘আমার প্রথম প্রেমের গল্প শোনামাত্র তোমাকে খুঁজতে থাকি। কিন্তু জানি না ওটা কতটা অন্ধ ছিল। প্রেম আসলে কোথাও মিলিত হয় না। সারাজীবন এটা সবকিছুতে বিরাজ করে’। তিনি আরো বলেন, ‘যেখানে মন কেবল সীমানাই দেখতে পায়, প্রেম সেখানেও গোপন পথ খুঁজে বের করে’।


উইলিয়াম শেক্সপিয়র বলেছেন, ‘কাউকে সারাজীবন কাছে পেতে চাও? তাহলে প্রেম দিয়ে নয়, বন্ধুত্ব দিয়ে আগলে রাখো। প্রেম একদিন হারিয়ে যাবে, বন্ধুত্ব কোনোদিন হারাবে না’।


এলিজাবেথ বাওয়েন বলেছেন, ‘যখন আপনি কাউকে ভালোবাসেন, তখন আপনার জমিয়ে রাখা সব ইচ্ছেগুলো বেরিয়ে আসতে থাকে’।


জীবনানন্দ দাশ বলেছেন, ‘তুমি তা জানো না কিছু, না জানিলে আমার সকল গান তবু তোমাকে লক্ষ্য করে! যখন ঝরিয়া যাবো হেমন্তের ঝড়ে, পথের পাতার মত তুমিও তখন আমার বুকের ‘পরে শুয়ে রবে’?


বার্নাড শ বলেছেন, ‘প্রেম হলো সিগারেটের মত, যার আরম্ভ হল অগ্নি দিয়ে, আর শেষ পরিণতি ছাইয়ে’।


শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় বলেছেন, ‘প্রেম একটি লাল গোলাপ’। আর আশুতোষ মুখোপাধ্যায় বলেছেন, ‘লুকোচুরিই তো প্রেমের রোমান্স। প্রেম যেদিন স্বীকৃতি পেয়ে যায় সেদিন থেকে প্রেমের মজাও নষ্ট হয়ে যায়।


মিরবো বলেছেন, ‘ছোট ছোট বিচ্ছেদ প্রেমকে গভীর করে, আর দীর্ঘ বিচ্ছেদ প্রেমকে হত্যা করে’।


সৈয়দ মুজতবা আলী বলেছেন, ‘এমন সময় সেই পায়ের মৃদু চাপ। সব সংশয়ের অবসান, সব দুঃখ অন্তর্দান। মহাদেব সাহা বলেছেন, ‘তোমাকে ভুলতে চেয়ে তাই আরো বেশি ভালোবেসে ফেলি, তোমাকে ঠেলতে গিয়ে দূরে আরো কাছে টেনে নিই। যতই তোমার কাছ থেকে আমি দূরে যেতে চাই তত মিশে যাই নিঃশ্বাসে প্রশ্বাসে’। হেলাল হাফিজ বলেছেন, ‘ভালবেসেই নাম দিয়েছি ‘তনা’। মন না দিলে ছোবল দিয়েও তোলে বিষের ফনা’।


রুদ্র মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ বলেছেন, ‘আমি সেই অবহেলা, আমি সেই নতমুখ, নিরবে ফিরে যাওয়া অভিমান-ভেজা চোখ, আমাকে গ্রহণ করো। উৎসব থেকে ফিরে যাওয়া আমি সেই প্রত্যাখ্যান, আমি সেই অনিচ্ছা বুকে নেয়া ঘোলাটে চাঁদ। আমাকে আর কি বেদনা দেখাবে’? নির্মলেন্দু গুণ বলেছেন, ‘রাত্রিভোর স্বপ্ন দেখে ভোর সকালে ক্লান্ত। যাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখা, সে যদি তা জানত’!


হুমায়ুন আহমেদ বলেছেন, ‘অল্প বয়সের ভালোবাসা অন্ধ গন্ডারের মত। শুধুই একদিকে যায়, যুক্তি দিয়ে বুদ্ধি দিয়ে আদর দিয়ে এই গন্ডারকে সামলানো যায় না’। তিনি আরো বলেছেন, ‘প্রেমিকা বিহীন তরুণের পৃথিবীতে বেঁচ থাকা, ঘাসবিহীন মাঠে গরুর পায়চারির মত’। হুমায়ুন আজাদ বলেছেন, ‘দ্বিতীয়, তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম প্রেম বলে কিছু নেই। মানুষ যখন প্রেমে পড়ে তখন প্রতিটি প্রেমই প্রথম প্রেম’।


মির্জা গালিবের একটি প্রিয় শায়ের দিয়ে শেষ করতে চাই, ‘যখন ভাঙা কবরের পাশে কোনো সুন্দরী রমণী চুল এলিয়ে ক্রন্দন করে তখন মনে হয় পৃথিবীতে মৃত্যুর চেয়ে কোনো সুন্দর দৃশ্য আর কিছু নেই’। গালিবের শায়েরটি আকর্ষণীয় হলেও আমার এই চাওয়া নেই। ব্রাইটনও নিউইয়র্কের দুই প্রজন্মের দুই প্রেমিক ভাইয়ের থাকতে পারে।


বাংলাদেশ প্রতিদিনের নির্বাহী সম্পাদক পীর হাবিবুর রহমানের ফেসবুক থেকে...


বিবার্তা/জহির

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com