জিডিপি প্রবৃদ্ধি হবে রেকর্ড ৮ দশমিক ১৩ শতাংশ
প্রকাশ : ১৯ মার্চ ২০১৯, ১৫:৩৮
জিডিপি প্রবৃদ্ধি হবে রেকর্ড ৮ দশমিক ১৩ শতাংশ
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, দেশের মানুষের বার্ষিক মাথাপিছু আয় (২০১৮-২০১৯ অর্থবছর) ১ হাজার ৯০৯ ডলারে পৌঁছাবে বলে আশা করছে সরকার। গত বছরে এই অংক ছিল ১ হাজার ৭৫১ ডলার।


তিনি বলেন, অর্থবছরের প্রথম আট মাসের (জুলাই-ফেব্রুয়ারি) তথ্য বিশ্লেষণ করে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো যে হিসাব করেছে, তাতে ২০১৮-১৯ অর্থবছর শেষে জিডিপি প্রবৃদ্ধি হবে রেকর্ড ৮ দশমিক ১৩ শতাংশ। গতবছর প্রবৃদ্ধির হার ছিলো ৭ দশমিক ৮৬ শতাংশ।


শেরেবাংলা নগরে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ে মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) বৈঠক শেষে এ তথ্য জানান অর্থমন্ত্রী। বৈঠকে দেশের সমগ্র প্রকল্পগুলোর বরাদ্দ চূড়ান্ত করা হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


২০১৮-১৯ অর্থবছরের সংশোধিত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি আরএডিপি চূড়ান্ত করতে একনেকের এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।


জানুয়ারিতে আওয়ামী লীগ টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করার পর থেকেই নতুন অর্থমন্ত্রী বলে আসছিলেন, প্রবৃদ্ধির হার এবারই আট শতাংশ ছাড়িয়ে যাবে।


ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর প্রাক্কলন অনুযায়ী চলতি অর্থবছর শেষে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) আকার দাঁড়াবে প্রায় ২৫ লাখ ৩৬ হাজার ১৭৭ কোটি টাকায়। গত অর্থবছরে জিডিপির আকার ছিল ২২ লাখ ৫০ হাজার ৪৭৯ কোটি টাকা।


পরিসংখ্যান ব্যুরো প্রাক্কলিত যে হিসাব দিয়েছে, তাতে চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরে শিল্প খাতে প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে ১৭.৬১ শতাংশ। গত অর্থবছরের এ খাতে প্রবৃদ্ধি ছিল প্রায় ১৭.১৩ শতাংশ। এছাড়া কৃষি খাতে ৯.১৩ শতাংশ এবং সেবা খাতে ১২.১০ শতাংশ প্রবৃদ্ধির প্রাক্কলন করা হয়েছে এবার, যা গতবার যথাক্রমে ১১.০২ শতাংশ ও ১২.৮০ শতাংশ ছিল।


অর্থমন্ত্রী বলেন, চলতি অর্থবছরে জিডিপি ৩১.৫৭ শতাংশ বিনিয়োগে আসছে বলে এই হিসাবে ধরা হয়েছে। গত অর্থবছর এই হার ছিল ৩১.১৩ শতাংশ। এবারের বিনিয়োগের মধ্যে সরকারি খাতের অবদান ৮.১৭ শতাংশ, আর বেসরকারি খাত থেকে ২৩.৪০ শতাংশ আসছে বলে তথ্য দেন মন্ত্রী।


এ সময় পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান উপস্থিত ছিলেন।


একনেকের বৈঠকে এডিপি থেকে আট হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ ছাঁটাই করে সংশোধিত এডিপির আকার প্রস্তাব করা হয়েছে ১ লাখ ৬৫ হাজার কোটি টাকা। বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে মূল এডিপি থেকে এই অর্থ কমানো হচ্ছে।


তবে পরিকল্পনা মন্ত্রী নিশ্চিত করেছেন, কোনো মন্ত্রণালয় মান ঠিক রেখে যদি ব্যয় করতে পারে তবে প্রয়োজন হলে তাদের বরাদ্দ আরো বাড়ানো হবে।


বিবার্তা/জাকিয়া


সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com