ঢামেক চিকিৎসককে মারধর, বিচারের দাবিতে ঢাবি শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন
প্রকাশ : ১০ আগস্ট ২০২২, ১৮:০৩
ঢামেক চিকিৎসককে মারধর, বিচারের দাবিতে ঢাবি শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন
ঢাবি প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ইন্টার্ন চিকিৎসক ডা. মো. সাজ্জাদ হোসেনের ওপর হামলার প্রতিবাদ ও বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাধারণ শিক্ষার্থীরা।


বুধবার (১০ আগস্ট) বিকাল ৩টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে তারা এই মানববন্ধন কর্মসূচি করে। এসময় ডাকসুর সাবেক সমাজসেবা সম্পাদক আকতার হোসেনের নেতৃত্বে কয়েকজন সাধারণ শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।


আকতার হোসেন বলেন, ক্যাম্পাসে যারা চিহ্নিত সন্ত্রাসী তাদের কোন বিচার হয়না। ঘটনার দুইদিন হয়ে গেল কিন্তু এখন পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এই সন্ত্রাসীদের চিহ্নিত করার কোন উদ্যোগ গ্রহণ করে নাই। যারা অপরাধী তাদের খোঁজার কোন নাম গন্ধ নেই।এই পরিস্থিতি চলতে থাকলে শুধু যারা ক্যাম্পাসের শিক্ষার্থী তারাই যে ক্ষতির শিকার হবে তা নয়, সবার স্বাধীন চলাফেরার যে অধিকার সেটা বিঘ্নিত হবে। যারা সন্ত্রাসী করেছো তাদের লুকিয়ে থাকার কোন সুযোগ নেই, ধরা পড়তেই হবে।


আইন বিভাগের শিক্ষার্থী সালেহ উদ্দিন সিফাত বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে‌ যখন প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীরা হলে আসে তখন তাদেরকে প্রশাসনিক কায়দার বাইরে গণরুমগুলোতে রাখা হয়। তারপর তাদেরকে গেস্ট রুমে নিয়ে সবক দেয়া হয় যে এটা করবে ওটা করবে। ক্যাম্পাসে যদি কোন সমস্যা হয় তাহলে বড় ভাইয়ের কাছে আসবে তারা তোমাদের সবকিছু সমাধান করে দিবে। এই ধরনের একটা সাহস তাদেরকে দেয়া হয়। এজন্যই তারা একজন ডাক্তারকে পর্যন্ত মারধর করে এসেছে। তা না হলে গ্রাম থেকে আসা একজন শিক্ষার্থী ধুম করে কাউকে গিয়ে এভাবে আহত করবে না।


সিফাত আরো বলেন, আপনি যদি কোন ঝামেলায় পড়ে যান আপনার কোন বড় ভাই এগিয়ে আসবে না। বুয়েটে যারা আবরার ফাহাদকে নির্যাতন করেছিল তখনও তাদের আশেপাশে তাদের বড় ভাইরা ছিল এবং তারা মনে করেছিল তাদের বড় ভাইরা ব্যাক আপ দিয়ে তাদেরকে সুন্দর করে জেল থেকে বের করে আনবে। কিন্তু আমরা কি দেখতে পেয়েছি বুয়েট ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এতো বড় নেতা হয়ে তিনিও সর্বশেষ আদালতের রায়ের শিকার হলেন।


সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থী মোছাদ্দেকা আফরিন দোলা বলেন, উনি আইডি কার্ড দেখাতে পারেননি। তার নাকি ম্যানারের সমস্যা আছে। অপরিচিত কাউকে এভাবে মারা কোন ধরনের ম্যানারের মধ্যে পড়ে এটা আমার জানা নেই। কতিপয় শিক্ষার্থীদের জন্য যদি পুরো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে অপবাদ দেয়া হয় তাহলে সত্যি সেটা দুঃখজনক।


আরবি বিভাগের শিক্ষক শাহ আলম অর্ণব বলেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় এখন বিনোদন কেন্দ্র হয়ে গেছে। এখন তো আর শিক্ষার পরিবেশ নাই। বাইরের মানুষ আসতে পারে কিন্তু তারা এখানে অশালীন কার্যক্রম করে। এখানে তো নিয়মনীতি থাকবে।


বিবার্তা/সাইদুল/এসএফ


সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com