জাবি উপাচার্যের অপসারণ দাবিতে পদযাত্রা
প্রকাশ : ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ২০:০১
জাবি উপাচার্যের অপসারণ দাবিতে পদযাত্রা
জাবি প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের অপসারণের দাবিতে পদযাত্রা ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারে আন্দোলনকারী শিক্ষক শিক্ষার্থীরা।


মঙ্গলবার (১৫ অক্টোবর) দুপুর ১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদের সামনে থেকে পদযাত্রাটি শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে নতুন প্রশাসনিক ভবনের সামনে এসে শেষ হয়। পদযাত্রা শেষে প্রতিবাদ সমাবেশ করেন আন্দোলনকারীরা।


প্রতিবাদ সমাবেশে ছাত্রফ্রন্ট জাবি সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক শোভন রহমানের সঞ্চালনায় অধ্যাপক রায়হান রাইন বলেন,


অনেক আগেই উপাচার্যকে আমরা অবাঞ্চিত ঘোষণা করেছি। উপাচার্যের অপসারণ দাবি জানিয়ে আমরা আচার্য বরাবর চিঠি পাঠিয়েছিলাম। অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে জানাতে হচ্ছে আমাদের চিঠির পাবার পরও আচার্য মহোদয় এখনো পর্যন্ত কোন উত্তর দেননি। উপাচার্যকে টিকিয়ে রাখার জন্য নতুন নতুন সংগঠন গড়ে তোলা হচ্ছে। কিন্তু অন্যায় করে কেউ কখনো পার পেয়ে যেতে পারেনা। এই নতুন সংগঠনগুলোর উদ্দেশ্য একটাই আর তাহলো উপাচার্যের দোষত্রুটি ঢেকে দেয়া। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি এবং সাথে সাথে উপাচার্যের অপসারণের দাবি জানাচ্ছি।


ছাত্রফ্রন্ট (মার্ক্সবাদী) জাবি শাখার সভাপতি মাহাথির মোহাম্মদ বলেন, ‘উপাচার্য ভারপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের উপর দায়িত্ব দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়কে ভারাক্রান্ত করে তুলছেন। ভারপ্রাপ্ত করে রাখার উদ্দেশ্য হলো স্বৈরাচারী কায়দায় বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনা করা। কেননা এতে করে পদচ্যুত হওয়ার ভয়ে কেউ প্রতিবাদ করতে পারেন না। উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম দুর্নীতির সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছে গেছেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বার্থে তার অপসারণ আবশ্যক। আমরা রাষ্ট্রকে বলতে চাই, এই দুর্নীতিবাজ উপাচার্যকে অপসারণ করুন। অন্যথায় আরো কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলার মাধ্যমে উপাচার্যের অপসারণ নিশ্চিত করা হবে।


এসময় কর্মসূচির অংশ হিসেবে বুধবার (১৬ অক্টোবর) দুপুরে বিক্ষোভ মিছিল, ১৭ অক্টোবর সংহতি সমাবেশ এবং ১৯ অক্টোবর মশাল মিছিল অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর ব্যানারের মুখপাত্র দর্শন বিভাগের অধ্যাপক রায়হান রাইন।


প্রসঙ্গত, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ 'অধিকতর উন্নয়ন প্রকল্প' শিরোনামে সরকারের কাছ থেকে ৩ বছর মেয়াদী প্রকল্পের আওতায় প্রায় ১ হাজার ৪৪৫ কোটি টাকার একটি বাজেট বরাদ্দ পায়। এই বাজেট থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগকে দুই কোটি টাকা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে প্রশাসনের বিরুদ্ধে। এছাড়াও অর্থ প্রকল্পে জালিয়াতি ও টেন্ডার ছিনতাইয়েরও অভিযোগ উঠেছে উপাচার্যের বিরুদ্ধে।


বিবার্তা/শিহাব/জাই

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com