সম্পৃক্ত সর্বজনীন আর সভা
প্রকাশ : ০৭ জুন ২০১৭, ১১:৩৪
সম্পৃক্ত সর্বজনীন আর সভা
জিয়াউদ্দিন সাইমুম
প্রিন্ট অ-অ+

বাংলা ভাষায় ‘সম্পৃক্ত’ শব্দটি এখন ভুল অর্থে ব্যবহৃত হলেও বেশ চলছে। তবে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সুবিপুল রচনা-সম্ভারের কোথাও এই শব্দটি নেই। শব্দটি কেন এবং কিভাবে ‘যুক্ত’, ‘জড়িত’, ‘সংশ্লিষ্ট’, ‘সম্পর্কিত’ অর্থে চালু হয়ে গেছে, তা এখন গবেষণার বিষয়। ধারণা করা হয়, ‘সম্পর্কিত’ শব্দটি ভুলভাবে ‘সম্পৃক্ত’ শব্দটির মাধ্যমে প্রতিস্থাপিত হয়ে গেছে। অথচ শব্দটি পারিভাষিক। রসায়নবিদ্যার satuarated saturated শব্দটির প্রতিশব্দ ‘সম্পৃক্ত’ বা ‘পরিপৃক্ত’। এই বিশেষ অর্থটি ছাড়া শব্দটিকে অন্য কোনো অর্থে ব্যবহার করা ঠিক নয়।


তবে ‘সর্বজনীন’ ও ‘সার্বজনীন’- শব্দ দুটি শুদ্ধ কিন্তু অর্থ ভিন্ন। তাই দুটো শব্দকে অভিন্ন অর্থে ব্যবহার করা সমীচীন নয়। অনেকে ‘সর্বজনীন’ অর্থে ‘সার্বজনীন’ লিখে থাকেন। শব্দ দুটোর আভিধানিক অর্থ না-জানার জন্য এমন ভুল হয়। ‘সর্বজনীন’ শব্দের অর্থ ‘সবার মঙ্গল বা সবার হিত বা কল্যাণ বা সবার মঙ্গলের জন্য কৃত বা সকলের জন্য উদ্দিষ্ট’। যেমন ‘মানবাধিকার সর্বজনীন অধিকার হিসেব স্বীকৃত।’


অন্যদিকে, ‘সার্বজনীন’ শব্দের অর্থ ‘সবার মধ্যে প্রবীণ বা সবার মধ্যে শ্রেষ্ঠ’। যেমন ক. নেলসন মেন্ডেলা দক্ষিণ আফ্রিকার একজন সার্বজনীন নেতা। খ. সার্বজনীন দুর্গাপূজায় আপনাকে স্বাগত’। দ্বিতীয় বাক্যের অর্থ হচ্ছে: সর্বশ্রেষ্ঠ দুর্গাপূজায় আপনাকে স্বাগত।


আর যে জায়গায় সমবেত হয়ে সবাই শোভা পান তাই সভা। হিন্দু ব্যবহারতত্ত্ব অনুযায়ী যে স্থলে রাজার প্রতিনিধি হিসেবে তিনজন বেদবিদ বা পণ্ডিত উপবেশন করেন, তা সভা নামে অভিহিত। বোঝা যাচ্ছে সভার সাথে জ্ঞানের আলোর একটা সম্পর্ক রয়েছে।


অবশ্য বর্তমানকালে সভার সাথে ধর্মীয় অনুষঙ্গের সম্পর্ক সব সময় থাকে না। তবে সভাতে জ্ঞানী ও বিজ্ঞ লোক উপস্থিত থাকেন। অর্থাৎ সভা শব্দটি এখন ধর্মনিরপেক্ষ শব্দে পরিণত হয়ে সব শ্রেণীর লোকের সমাবেশকে বোঝায় (সফল করো হে প্রভু আজি সভা, এ রজনী হোক মহোৎসবা, বাহির অন্তর ভুবনচরাচর মঙ্গলডোরে বাঁধি এক করো, শুষ্ক হৃদয় করো প্রেমে সরসতর, শূন্য নয়নে আনো পুণ্যপ্রভা- রবীন্দ্রসংগীত; তবে আজ সন্ধ্যার পরে এইখানেই একটা সভা হবে- ষোড়শী, শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়; যাহারা সভাস্থলে গোঁ হইয়া বসিয়া থাকে, তাহারা অসামাজিক, যাহারা নিজেই কথা কহিতে চাহে, পরের কথা শুনিতে চাহে না তাহারা অসামাজিক, যাহারা নিজের রসিকতা ব্যতীত আর কোনো কারণে হাসিতে চাহে না তাহারা অসামাজিক- সমাজ, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর)।


অভিধান মতে, সভা শব্দটি নানা অর্থে ব্যবহৃত হয়। যেমন সমাবেশ, বৈঠক, আলোচনার জন্য জনসমাবেশ, সংঘ, সমিতি, দল, সমাজ (সাহিত্যসভা), মজলিস, পরিষদ (আইনসভা), দরবার (রাজসভা)। শব্দটির গঠন হচ্ছে সংস্কৃত সৎ + (ভা+ অ + আ।


লেখাটি লেখকের ব্লগ থেকে নেয়া


বিবার্তা/জিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com